কুরবানির পশুর চামড়া ফেলে দিলো নদীতে

কুরবানির পশুর চামড়া ফেলে দিলো নদীতে

মৌলভীবাজার জেলা প্রতিনিধিঃ
মৌলভীবাজারে -কুরবানির হাজার খানেক পশুর চামড়া নদীতে ফেলে দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। প্রবাস অধ্যুষিত মৌলভীবাজার জেলায় কয়েক হাজার চামড়া নষ্ট হয়ে গেছে। প্রচন্ড গরম ও লবনের সংকটের কারনে কুরবানির পশুর চামড়া নদীতে ফেলে দিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। যার ফলে এবারে ও কয়েক লাখ টাকার আর্থিক ক্ষতি হয়েছে এই চামড়া ব্যবসায়ীদের।
মৌলভীবাজার সদর উপজেলার প্রায় ২শ বছর পুরাতন বৃহত্তর সিলেট বিভাগের চামড়ার বড় ব্যবসা কেন্দ্র সদর উপজেলার বালিকান্দি। কোরবানির চামড়ার প্রাথমিক প্রক্রিয়ার মজুরী ও লবন দিয়ে যে টাকা ব্যয় হয় তাতে লোকসানের আশংখায় কাঁচা চামড়া ক্রয় করতে আগ্রহী হয়নি তারা। জেলা প্রশাসন কুরবানির চামড় সংগ্রহে ব্যবসায়ীদের নিয়ে একাধিক বৈঠক করে, নানা ভাবে উৎসাহ দেন। সেই সাথে তাদের সংগ্রহ করা চামড়া ন্যায্য দামে ঢাকায় বিক্রির প্রতিশ্রুতি দেয়া হয়। এতে জেলার অর্ধশতাধিক চামড়া ব্যবসায়ী ব্যাপক উৎসাহ নিয়ে বিভিন্ন মাধ্যমে টাকা সংগ্রহ করে চামড়া ব্যবসায় বিনিয়োগ করেন। কিন্তু চামড়া সংগ্রহের শুরু থেকেই সংরক্ষণে সুষ্ঠু ব্যবস্থানা থাকা এবং লবন ও জিলানী (চামড়া থেকে মাংশ পরিষ্কার করার লোক) শ্রমিক সংকট এবং গরমে ব্যাপক ভাবে চামড়া পঁচে নষ্ট হয়ে যায়। বালিকান্দি চামড়া ব্যবসায়ীরা তাদের সংগ্রহ করা শত শত পিছ গরু ও খাসির চামড়া নদীতে ফেলে দিয়েছেন।
জেলা প্রশাসকের অনুরোধে এবছর সামান্য চামড়া ক্রয় করেছি। লবন সংকটের কারনে প্রায় ৫শতাধিক চামড়া নদীতে ফেলে দিতে হয়েছে। সিন্ডিকেটের কারনে সম্ভবনাময় চামড়ার ন্যায্য দাম পাওয়া যাচ্ছেনা বলে জানান মেয়র। জেলা প্রসাশক মীর নাহিদ আহসান করোনা আক্রান্ত হয়ায় বিষয়টি নিয়ে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জানান, কুরবানির পশুর চামড়া নিয়ে যাতে কোন অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সে জন্য জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদের নিয়ে মৌলভীবাজারে ট্রিমওর্য়াক করা হয়েছে।
চামড়া ব্যবসার সাথে জড়িত সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ বছর জেলার সাতটি উপজেলায় প্রায় অর্ধলাখ পশু কুরবানি দেয়া হয়েছে। এই  খাতের সাথে জড়িয়ে আছে বিভিন্ন স্তরের বহু ব্যবসায়ী সহ দেশের এক বিশাল দরিদ্র জনগোষ্ঠীর মানুষ ও আয়-উপার্জনের আসায়। একারণে চামড়ায় লবনের সংকট যদি এখানে চলতে থাকে, আগে থেকে এর প্রতিকার না নিলে প্রতি বছরই নষ্ট হবে জাতীয় সম্পদ, এমনটাই মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত