শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের কারণে মোবাইল আসক্তি থেকে রক্ষা করা যাচ্ছেনা শিশু কিশোরদের!

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধের কারণে মোবাইল আসক্তি থেকে রক্ষা করা যাচ্ছেনা শিশু কিশোরদের!

অদ্রি আলাউদ্দিন :

১৯৭৩ সালে আমেরিকার নিউইয়র্ক শহরে প্রথম মোবাইল ফোন আবিস্কার হয়। যিনি আবিস্কার করেন ব্যক্তিটি ছিলেন ইঞ্জিনিয়ার মার্টিন কুপার। যাকে বলা হয় মোবাইল ফোনের জনক। মার্টিন কুপার কাজ করতেন ছোট একটি কোম্পানি মোটরোলায়। কিন্তু তাঁর স্বপ্ন ছিল অনেকটা পাহাড়ের চূঁড়ার মতো। ছোট কাজ করলেও চিন্তা চেতনা আর স্বপ্ন ছিল সুদূরপ্রসারী। তাঁর স্বপ্ন ছিল এমন একদিন আসবে যে ধনি-গরীব, ছোট বড় সবার সাথে মোবাইল ফোন থাকবে। তিনি এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছিলেন আমার এই কল্পনা চিন্তা ও আবিস্কার মানুষের কাছে কল্প কাহিনির মতো শুনাবে। কিন্তু বাস্তবে তা বাস্তব করতে তিনি সক্ষম হয়েছিল। তারবিহীন টেলিফোন শিল্প হিসেবে মোবাইল ফোনের পথিকৃৎ হিসেবে বিশ্বে পরিচিত হয়ে আছেন। মোবাইল অর্থ “ভ্রাম্যমান বা স্থানান্তর যোগ্য” এই ফোন সহজে যেকোনও স্থান থেকে অন্য স্থানে বহন করা যায় এবং ব্যবহার করা যায়। তাঁর এই আবিস্কার বিজ্ঞানের সবচাইতে প্রয়োজন এবং জনপ্রিয়তার শীর্ষে। কিন্তু এই আবিস্কারের পূর্বেও এর একটি আবিস্কারের কথা জানা যায় পৃথিবীর সর্ব প্রথম মোবাইল ফোন আবিস্কার করেন ১৯১৭ সালে। এটি আবিস্কার করেন ফিনিস আবিস্কারক এরিক টাইগাস্টেডট। তথ্যপ্রযুক্তি বিশেষজ্ঞদের মতে ২০০৭ সালে উন্নত প্রযুক্তি নিয়ে বাজারে এসেছে আই ফোন। এর পর থেকেই বিশ্বজুড়ে স্মার্ট ফোনের যাত্রা শুরু। অভ্যাস ও আসক্তি দুটো ভিন্নপথ দুটো এক নয়, আসক্তির বিষয়টি একেবারেই ভিন্ন। বর্তমান বিশ্বে শিশু থেকে বৃদ্ধ কেউ রক্ষা পাচ্ছেনা¬ এই মোবাইল আসক্তি থেকে। প্রয়োজনে অপ্রয়োজনেও এর ব্যবহার বেড়েছে অনেকহারে। দক্ষিণ কোরিয়ার রেডিওলজি”র অধ্যাপক ইয়ুংসুক এর নেতৃত্বে একটি গভেষক দল শিশু,কিশোর-কিশোরীদের মস্তিস্ক পরীক্ষা করে এর প্রমান পেয়েছেন। যে সব শিশু-কিশোর-কিশোরীর মস্তিস্ক ব্যাপকভাবে এই পরিবর্তন লক্ষ্য করা গেছে, দেখা গেছে তাদের সবাই স্মার্টফোন বা ইন্টারনেটে আসক্ত। ১৫ থেকে ১৬ বছরের ফোন বা ইন্টারনেটে আসক্ত ১৯ জন কিশোরের উপর পরীক্ষা করেছেন সিউলের কোরিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীরা। তাদের প্রশ্ন করা হয়েছিল, তারা যে স্মার্ট ফোন বা ইন্টারনেট ব্যবহার করে, তা তাদের দৈনন্দিন জীবনে কি প্রভাব ফেলে? নিয়ন্ত্রিত দলে আরও ১৯ কিশোরীদের উপর পরীক্ষা করা হয়েছিল, যারা একেবারেই দরকার না হলে ফোন বা ইন্টারনেট ব্যবহার করেনা। বিজ্ঞানীরা বলেছেন, এই কিশোরদের তুলনায় আসক্তরা হতাশা, অবসাদ, উদ্বেগ, অনিদ্রা, অস্থিরতার অভিযোগ বেশি করেছিল। চিকিৎসকরা অশংগ্রহণকারীদের মস্তিস্কের ত্রিমাত্রিক বা থ্রিডি ছবি তুলেছিলেন, যার মাধ্যমে মস্তিস্কের রাসায়নিক পরিবর্তন স্পষ্টভাবে বোঝা যাবে। বিজ্ঞানীরা, বিশেষ করে গামা অ্যামিনোবাটাইরিক অ্যাসিড বা জিএবি’রপরিকর্তন লক্ষ্য করতে চেয়েছিলেন। জিএবিএ মস্তিস্কের এক ধরণের নিউরোট্রান্সমিটার, যেটি মস্তিস্কের বার্তাগুলোর গতিকে ধীর করে দেয়। এ ছাড়াও জিএবিএ’র দৃষ্টিশক্তি, আচরণ, মস্তিস্কের আরও অনেক কাজ যেমন নিন্দ্রা, উদ্বেগ এগুলোর উপর প্রভাব ফেলে। পরীক্ষায় দেখাগেছে স্মার্টফোন ও ইন্টারনেটে আসক্ত কিশোরদের মস্তিস্কে উচ্চ মাত্রায় জিএবিএ আছে। এই আসক্তি থেকে রক্ষা করতে হবে শিশু কিশোরদের। গত কয়েক বছরর তুলনায় বাংলাদেশেও ২০২০ সালে এসে মোবাইল আসক্তি আরো বৃদ্ধি পেয়েছে। কভিড ১৯ এর কারণে গত মে থেকেই স্কুল কলেজ বন্ধ যার কারণে খুব সহজেই শিক্ষার্থীদের হাতে নতুন বইয়ের পরিবর্তে স্মার্ট ফোন এসেছে। অটো পাশের কারণে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা বই থেকে ধীরে ধীরে দূরে চলে যাচ্ছে। এদেশে ৯০ দশকেও খেলার মাঠে খেলোয়াড় ছিল, ছিল মাঠ ভর্তি দর্শক। সন্ধার পর বসতো জারি, সারি, ভাটিয়ালী, মুর্শিদি গানের আসর এখন আর আগের মতো খেলার মাঠে খেলোয়াড় নেই, নেই কোন দর্শক। এখন বিনোদন বলতেই মোবাইল ফোন। যার কারণে শিশু-কিশোর-কিশোরীদের এই আসক্তি থেকে রক্ষা করা যাচ্ছেনা। অন্যদিকে তাদের মধ্যে অপরাধ প্রবণতাও থামানো যাচ্ছেনা। একসময় শিক্ষার্থীরা লাইব্রেরীতে যেয়ে পছন্দমতো বই পড়তে ভালোবাসতো। দেশিয় বিভিন্ন খেলায় মক্ত থাকতো শিশু কিশোররা। স্মার্টফোন কেড়ে নিয়েছে অনেক কিছু যেমন খেলার মাঠ, রেডিও, টেলিভিশন, যাত্রা, মঞ্চ নাটক এমনকি শখের হাত ঘড়িটাও। স্মার্ট ফোন মানেই হাতের মুঠোই দুনিয়া। ৮০ দশকে এদেশের শহর থেকে শহরতলীতেও বিনোদনের জন্য প্রেক্ষাগৃহ ছিল, নতুন নতুন চলচ্চিত্রের জন্য অপেক্ষায় থাকতো সব শ্রেণীর মানুষ এখন তা ধীরে ধীরে বিলিন হয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশ চলচ্চিত্রের এক জরিপে বলা হয় ৯০ দশকের পর অনেক প্রেক্ষাগৃহ ভেঙ্গে মার্কেট কিংবা বহুতল ভবন তৈরী করা হয়েছে। মোবাইল যেমন আশির্বাদ হয়ে এসেছে আবার এর উল্টোদিকও আছে। গত ২০ বছর পূর্বেও একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ যা চিন্তা করতে পারতনা এখন ১২ বছরের একজন কিশোররা মোবাইল ফোনের মাধ্যমে খুব সহজে ইউটিউব, ফেইসবুক, ইমু’র মাধ্যমে পেয়ে যাচ্ছে। এতে শিশু কিশোরদের মধ্যে অকালপক্কতা, খুন, ধর্ষণ, মাদকাসক্ত ব্যবহার বেড়ে যাচ্ছে। আধুনিক বিশ্বে অপরিকল্পিত সমাজব্যবস্থা, শিক্ষাব্যবস্থা, এরং অপসংস্কৃতির প্রভাবে এবং কর্মসংস্থানের অভাবের নেতিবাচক ফল হচ্ছে এই মোবাইল আসক্তি। এ থেকে মুক্তি পেতে হলে আমাদের সচেতন হতে হবে সর্বক্ষেত্রে শিশু কিশোরদের প্রতি যত্নশীল হতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত