বি এম সোহেল ভূইয়া বিশিষ্ট ফেনসিডিল ব্যবসায়ী ও নেশা খোর

বি এম সোহেল ভূইয়া বিশিষ্ট ফেনসিডিল ব্যবসায়ী ও নেশা খোর

বিশেষ প্রতিনিধিঃ সাংবাদিক মোঃ ফরহাদ জাহান অবশেষে সাংবাদিক মোঃ ফরহাদ জাহান এর ক্যামোরায় ধরা পরে নেশা খোর ও ফেনসিডিল ব্যবসায়ী বি এম সোহেল ভূইয়া, বি এম সোহেল ভূইয়া হলেন নরসিংদির রায়পুরার চরসুবুদ্দী গ্রামের যাত্রাপালাকার মরহুম জালাল উদ্দীন এর তৃতীয় পক্ষের স্ত্রী মনিরা জালালের তৃতীয় পুত্র। বর্তমানে এই ফেনসিডিল ব্যবসায়ী নরসিংদী সদর বৌয়াকুড় এলাকায় বসবাসরত। সে দীর্ঘদিন যাবত এই এই জঘন্য ব্যবসার সাথে জড়িত আছে। সে আখাউড়া, কসবা, শশীদল ও ভৈরব থেকে ফেনসিডিল এনে বিভিন্ন জায়গায় বিক্রি করে যুব সমাজকে ধ্বংসের মুখে এগিয়ে দিচ্ছে। শুধু তাই নয় এই বি এম সোহেল ভূইয়া এই ব্যবসাকে প্রশাসনের চোখের আড়ালে চলমান রাখার জন্য বৌয়াকুড়ে ফিস পার্ক নামে একটি দোকান খুলেছে। বি এম সোহেল ভূইয়া বেশ কয়েকবার পুলিশের কাছে ধরাও পরে। এই ফেনসিডিল ব্যবসার মূলধন যোগাড় করে তার সহধর্মিণী(ভৈরব চন্ডীবের গ্রামের) রুনিয়া আক্তারকে বিয়ের পর তার বাবার বাড়ি থেকে বিয়ের সময় যৌতুক হিসেবে দেওয়া ১৭ ভরি স্বর্ণালংকার ও নগদ পাঁচ লক্ষ টাকা। এভাবেই বি এম সোহেল ভূইয়া ফিস পার্কের আড়ালে চালিয়ে যাচ্ছে এই ফেনসিডিল ব্যবসা। নরসিংদী সদর বৌয়াকুড় এলাকাবাসী এক নামে তাকে ফেনসি ব্যবসায়ী ওরফে ফেনসি খোর সোহেল হিসেবে চিনে। একটি বিশেষ সূত্রে সাংবাদিক মোঃ ফরহাদ জাহান বি এম সোহেল ভূইয়ার স্ত্রী রুনিয়া আক্তারের কাছে জানতে পারেন যে এখনও তার স্বামী তাকে নেশার করার টাকা যোগাড়ের জন্য রুনিয়াকে শারীরিক ও মানসিক ভাবে অত্যাচার করে, এমত অবস্থায় রুনিয়া মানসিক ভাবে ভেঙে পরেছেন এবং বাবার বাড়ির কাছেও লজ্জায় মুখ দেখাতে পারে না। রুনিয়ার বড় ভাই জাকির, মুছা, সোহেল ও অন্যান্য ভাই বোনেরা অতিষ্ঠ হয়ে রুনিয়াকে তার স্বামী বি এম সোহেল ভূইয়াকে সহ তার বাবার বাড়ি আসতে নিষেধ করে। সাংবাদিক মোঃ ফরহাদ জাহান এর কাছে রুনিয়া আক্তার কান্নাকাটি করে বলে যে আমি এখন ধৈর্যের বাঁধের শেষ সীমানায় চলে এসেছি এমনকি তার দুটি দুধের বাচ্চা সুমাইয়া (৪) ও সুহানা(১১) কে নিয়ে খুব কষ্টে দিন কাটাচ্ছে কারন বি এম সোহেল ভূইয়া অধিকাংশ সময় ফেনসিডিল খেয়ে নেশার ঘোরে থাকে।রুনিয়া বলেন এমনকি তার বিয়ের সময় যে সমস্ত ফার্নিচার দেওয়া হয়েছিলো সেগুলোও তাঁর স্বামী বি এম সোহেল ভূইয়া নেশারঝোঁক ওঠলে এক এক করে বিক্রি করে ফেলে এবং বি এম সোহেলের মা যাত্রাপালার নায়িকা মনিরা জালাল ওরফে সুফিয়া তাঁর ছেলেকে এই অবৈধ ব্যবসায় উৎসাহ দিয়ে যাচ্ছেন ও তাঁর ছেলের এই কালোটাকা লুটেপুটে খাচ্ছেন শুধু তাই নয় বি এম সোহেল ভূইয়া এর স্ত্রী রুনিয়া আক্তার এই সব অবৈধ কাজে বাধা দিলে তাঁর স্বামী ও শাশুড়ী মনিরা জালাল ওরফে সুফিয়া তাঁর ওপর অমানবিক জুলুম, শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন করে বলে জানিয়েছেন সাংবাদিক মোঃ ফরহাদ জাহানকে। ২০১১ সালে বি এম সোহেল ভূইয়া ৩০০ টাকার স্ট্যাম্পে সই করে নরসিংদির বিখ্যাত সুদ ব্যবসায়ী স্বপনের কাছ থেকে সাউন্ড ও লাইটিং এর ব্যবসার নাম করে তিন লক্ষ টাকা নিয়ে এই ফেনসিডিলের ব্যবসা শুরু করে। এক পর্যায়ে সময় অনুযায়ী সুদে আসলে টাকা ফেরত দিতে না পারায় সুদ ব্যবসায়ী স্বপন নরসিংদী লঞ্চ ঘাট পুলিশ ফাড়িতে উর্ধ্বতন কর্মকর্তার নিকট বি এম সোহেল ভূইয়া এর নামে মামলা দায়ের করেন। সাংবাদিক মোঃ ফরহাদ জাহান দীর্ঘদিন যাবত অভিযান চালিয়ে বি এম সোহেল ভূইয়া এর এই সব কুকির্তী গুলো জানতে সক্ষম হন ও একই সাথে সুদখোর স্বপন কে ও সাংবাদিক মোঃ ফরহাদ জাহান প্রশাসনের হাতে তুলে দিয়ে তিন বছর কারাদণ্ডে দন্ডিত করতে সক্ষম হন।সেই মামলার আইও ছিলেন এস.আই কাছিফ।মাদক ব্যবসায়ী ও নেশাখোর সোহেল কে ধরিয়ে দিতে জনগনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি ও প্রসাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত