শ্রীপুর রেঞ্জের আওতাধীন রাস্তার দু’পাশে বন বিভাগের বৃক্ষরোপণ

শ্রীপুর রেঞ্জের আওতাধীন রাস্তার দু’পাশে বন বিভাগের বৃক্ষরোপণ

শ্রীপুর সংবাদদাতা :
গাজীপুরের শ্রীপুরে বনবিভাগের শ্রীপুর রেঞ্জের অধীনে সাতখামাইর বিটের উদ্যোগে ৩কিলোমিটার রাস্তার দু’পাশে চার হাজার গাছের চারা রোপণ করা হয়েছে। এগাছ গুলো বড় হলে আশপাশের পরিবেশ হবে সবুজের সমারোহ। এই সড়কটি হবে অনন্য এক রোল মডেল। স্থানীয় বাসিন্দাসহ সকলের সহযোগিতায় অচিরেই সবুজে সবুজে গড়ে তুলতে পারবে সড়কের দু’পাশ আশা বনবিভাগের।
মাওনা বরমী সংযোগ সড়কের তেলিহাটি ভূমি অফিসের পাশ থেকে শুরু করে সোহাদিয়া গ্রাম পর্যন্ত তিন কিলোমিটার সড়কের দু’পাশে বিভিন্ন বনজ বৃক্ষ রোপণ করা হয়। এসব বৃক্ষ পরিচর্যা জন্য মাসিক বেতনে তিনজন পরিচর্যা কর্মী নিয়োগ করেছে বনবিভাগ।চারা পরিচর্যাকারী তিনজন হলেন, নিপুন, সোহাগ ও বশির। পরিচর্যা কর্মী নিপু বলেন, সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত সড়কের দু’পাশের গাছের চালাগুলোর সার্বিক পরিচর্যা করতে হয়। গাছে খুঁটি দেয়া পানি দেয়া ও গরু ছাগল থেকে গাছকে রক্ষা করার কাজ করে থাকে।
তিনি আরও বলেন, মাঝে মধ্যে গরু ছাগলে অনেক চারাগাছ খেয়ে ফেলে। এসকল স্থানে পূনরায় চারা রোপণ করতে হয়। সাতখামাইর বিটের ফরেস্ট গার্ড মো. শহিদুল ইসলাম বলেন, গাছের চারা রক্ষার জন্য স্থানীয় এলাকাবাসীকে অনেকবার সচেতন করা হয়েছে। এরপরও আমাদের একটু কঠোর হতে হয়। মাঝে মধ্যে গরু ছাগল ধরে এনে মালিককে বুঝিয়ে বলা হয়।
শ্রীপুর রেঞ্জের অধীনে সাতখামাইর বিট কর্মকর্তা মো. নওয়াব হোসেন সিকদার বলেন, মাওনা বরমী সংযোগ সড়কের তিন কিলোমিটার সড়কের দুপাশে চার হাজার গাছের চারা রোপণ করা হয়েছে। চারা গুলোর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো জাম,মেহগনি, তিতলারাশী, আমলকী ও আকাশ মনী। গাছের সঠিক পরিচর্যার জন্য মাসিক বেতনে তিনজন লোক নিয়োগ করা হয়েছে। তাঁরা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত গাছের পরিচর্যা করে। মাঝে মধ্যে আমাদেরও তদারকি করতে হয়। তিনি আরও জানান, গাছগুলো বড় হলে রাস্তার দু’পাশে সবুজে সবুজে ভরে উঠবে।
সহকারী বনসংরক্ষক ও বর্তমানে শ্রীপুর রেঞ্জের দায়িত্বে থাকা রানা দেব বলেন, বনায়নের ফলে আমাদের সোনার বাংলা সবুজের সমারোহে ভরে উঠবে। এর ধারাবাহিকতা বনবিভাগের উদ্যোগে বিভিন্ন রাস্তার পাশে বনায়নের উদ্যোগ হাতে নিয়েছে। এই কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে জানান তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত