বোরহানউদ্দিনে ৫৪৪ দিন পর বাজলো ঘণ্টা, প্রাণ ফিরেছে ২৩৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে

বোরহানউদ্দিনে ৫৪৪ দিন পর বাজলো ঘণ্টা, প্রাণ ফিরেছে ২৩৪টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে

মোঃ সাইফুল ইসলাম আকাশ:

করোনা পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘ ১৮ মাস বন্ধ থাকার পর আবারও প্রাণচাঞ্চল্যে মুখর হয়েছে সারা দেশের স্কুল-কলেজ। রোববার সকাল ৮টা থেকে হাজারো শিক্ষাথীর্র পদচারণায় মুখরিত হয়ে  উঠেছে  বোরহানউদ্দিন উপজেলার ১ টি পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট, ৪ টি কলেজ, ৩৯ টি মাদ্রাসা,২৬ টি মাধ্যমিক বিদ্যালয়,৮ টি নিম্ন মাধ্যমিক বিদ্যালয়,১৫৬ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহ ২৩৪ টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে।

বিদ্যালয় গুলোতে ৫৪৪ দিন পর আবার শুরু হয়েছে ঢং ঢং ঢং করে ঘন্টার আওয়াজ। সকাল থেকেই বোরহানউদ্দিনের প্রতিটি রাস্তায় ছিল শিক্ষার্থীদের আনাগোনা। স্কুলের প্রিয় পোশাকটি গায়ে জড়িয়ে তারা ছুটছিল স্কুলের পথে। স্কুল-কলেজের সামনে আবার সেই অভিভাবকদের জটলা। ফুটপাতে পত্রিকা বিছিয়ে চলছে তাঁদের খোশগল্প। প্রায় দেড় বছর পর আজ রোববার উপজেলার বিভিন্ন রাস্তায় এমন দৃশ্য চোখে পড়ল।

সকাল থেকে উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ঘুরে দেখা গেছে, প্রচণ্ড ঝড়বৃষ্টি -বাতাস উপেক্ষা করেই স্কুল-কলেজগুলোর ফটকের সামনে শিক্ষার্থী-অভিভাবকেরা সময়মতো হাজির হয়েছেন। এ সময় শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের সবাইকে মাস্ক পরে থাকতে দেখা যায়। সরজমিনে বোরহানউদ্দিন কুলসুম রহমান মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় সামাজিক দূরত্ব মেনে ষষ্ঠ এবং দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পাঠদান চলছে প্রতিটি বেঞ্চে দুইজন করে বসানো হয়েছে।

প্রধান শিক্ষক মোঃ ফখরুল আলম বলেন পুরো স্কুল পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন করা হয়েছে। এককথায়, সরকারি নিয়ম অনুযায়ী যা যা করণীয়, সেগুলো সব মানা হচ্ছে। তিনি জানান ২০২১ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ১৭১ জনের মধ্যে আজ উপস্থিতি রয়েছে ৯৭ জন এবং ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ১৭৮ জনের মধ্যে উপস্থিত রয়েছে ১০৮জন।

আপাতত দশম শ্রেণীর ক্লাস হবে সপ্তাহে ৬দিন এবং অন্যান্য শ্রেণীর ক্লাস সপ্তাহে ১ দিন করে হবে বলে জানান প্রধান শিক্ষক। সহকারী প্রধান শিক্ষক আলমগীর হোসেন বলেন স্বাস্থ্যবিধি মেনে বিদ্যালয় পাঠদান শুরু করেছি,সরকারী বিধি মোতাবেক সকল ধরনের পদক্ষেপ আমরা নিয়েছি। বোরহানউদ্দিন জ্ঞানাদা বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সোহেল হোসেন বলেন প্রথম দিন হিসেবে আজ স্কুলের উপস্থিতিও সন্তোষজনক।

তিনি জানান ২০২২ সালের এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ৬৮ জনের মধ্যে ৩৬ জন,২১ সালের ৪১ জনের মধ্যে ২৮ জন এবং ৬ষ্ঠ শ্রেণীর ৭৫ জনের মধ্যে ৫৩ জন উপস্থিত রয়েছে। সব শিক্ষার্থী না এলেও ধীরে ধীরে সবাই স্কুলে ফিরে আসবে বলে আশা করা হচ্ছে। এদিকে বোরহানউদ্দিন সরকারী আবদুল জব্বার কলেজের সামনে গিয়ে দেখা যায় শিক্ষার্থীদের শরীরের তাপমাত্রা মাপার পাশাপাশি হাত জীবাণুমুক্তকরণের ব্যবস্থা করা হয়েছে।

কলেজের অধ্যক্ষ এস এম গজনবী বলেন স্বাস্থ্যসুরক্ষা নিশ্চিত করনে আমরা সতর্ক রয়েছি। কলেজের উপাধ্যক্ষ মোফাজ্জল হোসেন বলেন কলেজের শিক্ষার্থীদের যাতে সমস্যা না হয় এজন্য হ্যান্ড স্যানিটাইজার মাক্স সহ সকল ধরনের ব্যবস্থা আমরা করেছি।

বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক মোঃ গজনবী জানান শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান দীর্ঘদিন বন্ধ থাকায় যে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তা অচিরেই আমাদের প্রচেষ্টার মাধ্যমে আবার পূর্বের রুপে ফিরে দেওয়া সম্ভব হবে।

বোরহানগঞ্জ সরকারি প্রাথমিক ৫ম শ্রেণীর আলী,খাদিজা,ইকরাসহ একাধিক শিক্ষার্থী জানান,স্কুল খুলেছে,অনেক ভালো লাগছে। স্যার ও বন্ধুদের সঙ্গে দেখা হয়েছে,খুবই ভালো লাগছে।

বেলা ১২.৫১ মিনিট এ পক্ষিয়া জ্ঞানাদা  সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় গিয়ে দেখা যায় শ্রেণী কক্ষে পাঠদান করাচ্ছেন স্কুলের প্রধান শিক্ষক সুবিধ দেবনাথ তিনি জানান দীর্ঘদিন পর ছাত্রদের পেয়েছি তাই ছুটির সময় ১২টা হলে এখন ও ওদের ছাড়তে ইচ্ছে হচ্ছে না । ৫ম শ্রেণীতে আজ উপস্থিতি ১৮জন এবং ৩য় শ্রেণীতে ১৫ জন ছিল জানান তিনি।
১০নং কুতুবা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল্লাহ আল মামুন বলেন স্যানিটাইজার, জীবানু নাশক স্প্রে, স্যাভলন ব্লিচিং পাউডার সহ সকল স্বাস্থ্য সুরক্ষা সামগ্রী সংগৃহিত হয়েছে।
খাগকাটা বড় মানিকা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক  মাহবুবুর রহমান বলেন আমাদের  স্কুলের পরিষ্কার পরিছন্নতা আমরা নির্দেশনা পাওয়ার পর পরই শুরু করেছি শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য সুরক্ষায় আমি সহ আমার শিক্ষকরা সচেতন রয়েছে ।
তবে একাধিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ে গিয়ে দেখা যায় শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয় এবং প্রধান শিক্ষকের নাম ভুলে গিয়েছে, শিক্ষকরা জানান মূলত দীর্ঘদিন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে দূরে থাকায় শিক্ষার্থীরা এগুলো ভুলে গিয়েছে।
দীর্ঘদিন পর সহপাঠীদের সঙ্গে দেখা হলেও বিধিনিষেধের কারণে শিক্ষার্থীরা একে অন্যকে জড়িয়ে ধরার সুযোগ পায়নি।
বোরহানউদ্দিন উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা সাইফুর রহমান বলেন,
সকল স্কুল-কলেজ দেড় বছর পর খোলা হয়েছে। সরকারি নির্দেশনা অনুযায়ী স্কুল কলেজ কর্তৃপক্ষকে সব ধরনের পদক্ষেপ বাস্তবায়নের জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছিল। সময়মতো তারা সেগুলো বাস্তবায়ন করেছে। আজ শিক্ষার্থী, অভিভাবক ও শিক্ষকদের উপস্থিতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোতে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত