সিরাজগঞ্জে নিরাপত্তার অভাব ও আতঙ্কে বাড়ি ছাড়ছে ২৫টি অসহায় পরিবার!

সিরাজগঞ্জে নিরাপত্তার অভাব ও আতঙ্কে বাড়ি ছাড়ছে ২৫টি অসহায় পরিবার!

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :
জানমালের নিরাপত্তার অভাব ও আগুণ তা-বের ভয়ে বাড়ি ছেড়ে অন্যত্র চলে যাচ্ছে সিরাজগঞ্জ বিএল স্কুল রোডের প্রায় ২৫টি অসহায় পরিবারের লোকজন। সোমবার (১৩ সেপ্টেম্বর) ভোর রাতে ধানবান্ধি এলাকায় হামলা চালিয়ে ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনা ঘটেছে।
সরেজমিনে এলাকা ঘুরে জানা যায়, গত ১৫ দিন পূর্বে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল)’র কার্যালয়ের সামনে রিক্সাওয়ালা হাবিব যাত্রীনামা দেওয়ার সময় ধানবান্ধি গ্রামের দুলালের পুত্র আশিক (২৫) ও শাকিল (২২) মোটরসাইকেল থেকে রিক্সাওয়ালাকে একটু অন্য জায়গায় যাত্রী নামিয়ে দিতে বলেন। কিন্তু রিক্সাওয়ালা হাবীব তাৎক্ষণিকভাবে যাত্রী নামিয়ে দেওয়ার কারণে আশিক ও শাকিল রিক্সাওয়ারাকে গালে চর থাপ্পর মারেন, স্থানীয় বুদ্দু’র পুত্র আকাশ বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে মীমাংসা করিয়ে দেন। কিন্তু আশিক ও শাকিল তার সংঘবদ্ধ দল নিয়ে এলাকায় এসে হামলায় চালায়। এতেও ক্ষ্যান্ত না হয়ে দফায় দফায় বিভিন্ন সময়ে ধানবান্ধি এলাকায় প্রবেশ করে ব্যাপকভাবে মারপিটের ঘটনা ঘটায়। পরবর্তীতে বিষয়টি নিয়ে সামাজিকভাবে সাবেক কাউন্সিলর ছাত্তার হাজীসহ দুই এলাকার মুরুব্বিগণ মীমাংসা করে দেন, বিষয়টি মীমাংসা হওয়ার পরও (১৩ সেপ্টেম্বর) ভোররাতে শহরের ধানবান্ধি এলাকার দুলালের পুত্র আশিক, ও শাকিল, বিশা পুত্র ছানু, ওহেদের পুত্র জহুরুল, হিমেল, মোস্তফা পুত্র সাবান, জেলানি, হাবিব, মৃত কুরমানের পুত্র সোহেলসহ ২৫/৩০জন লোকজন অতর্কিতভাবে হামলা করে প্রায় ২৫টি বাড়িঘর ভাংচুর ও লুটপাট করে নিয়ে যান। লুটপাটের করে নিয়ে যাওয়ার সময় উচ্চস্বরে বলে যায়, ভবিষ্যতে পেট্টোল দিয়ে দিয়ে আগুন লাগিয়ে এলাকার পুড়ে দেওয়া হবে। আগুনে পুড়ে দেওয়ার ভয়ে জীবনের নিরাপত্তা ও বাড়িঘরের আসবাবপত্র নিয়ে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে সাধারণ জনগণ।
নিরাপত্তাহীনতায় হাসেন আলী পুত্র আব্দুল হাকিম, হোসেন স্ত্রী বিউটি খাতুন, কাবেল এর পুত্র কালাম, রাজ্জাক স্ত্রী লুৎফা, মৃত আইয়ুব আলী পুত্র আজাদ অভিযোগ করেন বলেন, ছানু গং এলাকার ত্রাস। যেকোন সময় আমাদের এলাকা আগুন লাগিয়ে পুড়িয়ে দিতে পারে। তাই আমরা আমাদের পরিবার ও আসবাবপত্র অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। জীবনের নিরাপত্তা দিতে দেশের আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নিকট আকুল আবেদনও জানান অসহায় পরিবারগুলো।
সিরাজগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম বলেন, ভোর রাতে এলাকায় সংঘর্ষ হয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেছে। একজনকে আটক করা হয়েছে। তবে কোন পক্ষ থেকেই আমাদের নিকট কোন অভিযোগ দাখিল করেনি। অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সিরাজগঞ্জ সার্কেল) সোপ্তিক আহম্মেদ জানান, দীর্ঘদিন ধরে মহল্লায় মহল্লায় সংঘর্ষ চলে আসছিল। ১৩ সেপ্টেম্বর ভোর রাতে অর্তকিতভাবে হামলায় চালানো হয়। এ হামলায় ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। হামলাকারীদের চিহ্নিত করা হয়েছে। নিরাপত্তার স্বার্থে ভোর থেকেই বিএল স্কুল রোডে অতিরিক্ত স্টাইকিং ফোর্স নিয়োজিত করা হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত