দিন ভালো যাচ্ছে না তাঁত মালিক ও তাঁতকুঞ্জের সুতোয় স্বপ্নবোনা কারিগরদের

দিন ভালো যাচ্ছে না তাঁত মালিক ও তাঁতকুঞ্জের সুতোয় স্বপ্নবোনা কারিগরদের

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি :
সিরাজগঞ্জে করোনা মহামারির মধ্যে দীর্ঘ সময় ধরে তাঁতশিল্পের সাথে জড়িত মানুষেরা খারাপ সময় পার করছে। করোনার প্রভাবে তাঁতের তৈরি কাপড়ের বাজারে চলছে মন্দা অবস্থা। যার আঁচ পড়েছে সিরাজগঞ্জের তাঁতশিল্পেও, সম্প্রতি করোনা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হওয়ায় ঘুরে দাঁড়ানোর স্বপ্ন দেখছিল তারা। কিন্তু সেই আশায় গুঁড়োবালি অতিমারির সাথে যুক্ত হয়েছে অপ্রত্যাশিত বন্যা।
সিরাজগঞ্জের যমুনা নদীর পানি বৃদ্ধির ফলে বেলকুচি, সিরাজগঞ্জ সদর, এনায়েতপুর, শাহজাদপুরের তাঁত পল্লীর প্রায় আট শতাধিক তাঁত কারখানা প্লাবিত হয়। পানিতে নিমজ্জিত থাকায় তাঁত কারখানার সুতা প্রস্তুত করার ভিম, লোহার ল্যাংগোজ, মেশিনের পায়া ও ইলেকট্রনিক মোটরে মরিচা ধরছে, পচন ধরায় নষ্ট হয়ে গেছে সুতা। কারখানাগুলোতে অকেজো হয়ে পরে আছে অর্ধলাখের মতো তাঁত মেশিন। বেকার হয়ে পড়েছে এই শিল্পের সাথে জড়িত লক্ষাধিক শ্রমিক, পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করছেন তারা। নতুন করে এই শিল্পটিকে দাঁড় করাতে সরকারি প্রণোদনা ও স্বল্পসুদে ঋণের দাবি তাঁত কারখানা মালিকদের।
সংশ্লিষ্টরা জানান, সুতা প্রক্রিয়াজাতকরণ, নকশা তৈরিসহ তাঁতে শাড়ি, লুঙ্গি, গামছা তৈরিতে প্রতিদিন যেসব শ্রমিক কাজ করেন, তারা দীর্ঘদিন ধরে কর্মহীন দিন কাটাচ্ছে। কেউ কেউ পেশা পরিবর্তন করে ভিন্ন কাজের মাধ্যমে উপার্জন করে সংসার চালানোর চেষ্টা করছেন। বেলকুচির তামাই হ্যান্ডলুম এন্ড পাওয়ারলুম অনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আলহাজ্ব ফজলার রহমান তালুকদার জানান, করোনার শুরু থেকে আমাদের ব্যবসায় অবনমন শুরু হয়েছে।
সুতার দাম বেড়েই চলছে সেই সাথে রয়েছে উৎপাদন খরচ, কাঁচামাল, পরিবহন, শ্রমিক খরচ। বেলকুচির তাঁতে উৎপাদিত শাড়ী, লুঙ্গি, গামছা সঠিক দামে বিক্রি করতে পারছি না। বাজারে পাইকারদের সংখ্যা কমে গিয়েছে আশংকাজনক ভাবে। সেই সাথে বিশ্ব বাজারে আমাদের পন্য আগের মতো যাচ্ছে না ফলে এই সেক্টরটা ধুকছে। সম্প্রতি বন্যার পানিতে তাঁত ডুবে যাওয়ায় নষ্ট হয়েছে সুতা ও তাঁত মেশিনের যন্ত্রপাতি। ফলে বড় ধরনের লোকসানের মুখে পড়তে হচ্ছে আমাদের মতো তাঁতমালিকদের। তাঁত কারখানা চালু করতে আবারও নতুন করে সুতা ক্রয় ও ভিম তৈরি করতে হবে, সংস্কার ও পরিবর্তন করতে হবে পাওয়ারলুম-হ্যান্ডলুমের মুল্যবান যন্ত্রপাতি। এমতাবস্থায় সরকারি প্রণোদনা সময়ের দাবি।
বেলকুচির রান্ধুনীবাড়ী চরের হযরত আলী তার ছোট একটা তাঁতকারখানা ছিলো। তাঁতের শাড়ী ও লুঙ্গি তৈরি করতো। বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে অনেকটা আবেগ আপ্লুত হয়ে বলেন, আমার বাড়িতে তাঁতের কারিগররা আগে কাজ করতো, এখন আমি নিজেই সুতা রং করি। আমার ছেলে তাঁত বোনায়, স্ত্রী বাড়িতে চড়কায় সুতো কাটে। তিনজনের স্বল্প আয়ে কোনো রকমে চলছে আমাদের সংসার। করোনায় ব্যবসায় মন্দাভাব, সুতা সহ কাঁচামালের দাম বৃদ্ধি, আর্থিক ক্ষয়ক্ষতির ফলে এই পরিস্থিতির স্বীকার।
কারখানায় পানি উঠার পর থেকে এখন পর্যন্ত মালিক তাঁত চালু করেনি যার জন্য বেকার হয়ে রয়েছি। তাঁতমালিক নিজেও অভাবে আছে। ফলে টাকা চেয়েও পাচ্ছি না। পরিবার-পরিজন নিয়ে কষ্টে দিন যাচ্ছে। এখনো পর্যন্ত কোনো ত্রাণ ও সহযোগিতা পাইনি। এমনটা জানালেন বেলকুচির তাঁত শ্রমিক রফিকুল ইসলাম ও সোলায়মান হোসেন। এ বিষয়ে বেলকুচি উপজেলা তাঁত বোর্ডের লিয়াজো অফিসার তন্নি বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত তাঁতের সংখ্যা নির্ধারণের জন্য তালিকা তৈরি করে মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত তাঁত শ্রমিক ও মালিকদের জন্য অনুদান বরাদ্দ হলে তা বন্টন করা হবে।
বেলকুচি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. আনিসুর রহমান জানান, তাঁতশিল্প সিরাজগঞ্জের ঐতিহ্যের ধারক ও বাহক। সেই সাথে এ অঞ্চলের একটা বৃহৎ জনগোষ্ঠী তাঁতের কাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে। তাঁতশিল্পের মান উন্নয়নে সরকার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ গ্রহণ করছেন। করোনা ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত তাঁতীদের তালিকা তৈরি করে তাঁত বোর্ড ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের মাধ্যেমে ক্ষতিপূরণ প্রদানের প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে আপাতত আমরা সরকারিভাবে বরাদ্দকৃত ত্রাণের চাল ও নগদ অর্থ বিতরণ করছি তাঁত শ্রমিকদের মাঝে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত