শ্রীপুুুুরে সরকারি বনের জমিতে গড়ে উঠেছে বসতবাড়ি 

শ্রীপুুুুরে সরকারি বনের জমিতে গড়ে উঠেছে বসতবাড়ি 

শ্রীপুর গাজীপুর প্রতিনিধি :
গাজীপুরের শ্রীপুর রেঞ্জের সংরক্ষিত বনের জায়গা দখল করে তোলা হচ্ছে বসতবাড়ি। বনের ভেতর গজারি ও শালবনের গাছ কেটে ফেলা হয়েছে, জঙ্গল সাফ করে অবাধে গড়ে তোলা হচ্ছে এসব ঘরবাড়ি। এতে করে দিন দিন ছোট হয়ে আসছে বিভিন্ন বিটের বনভূমি। অসাধু বন কর্মকর্তাদের যোগসাজশে দখলদারদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে এসব ঘরবাড়ি নির্মাণ করা হচ্ছে বলে অভিযোগ করেন স্থানীয়রা। শ্রীপুরের বনভূমি তদারকিতে বন বিভাগের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের দেখা যায় না। বনভূমি দখল উৎসব বন্ধে স্থানীয় বন বিভাগের কর্মকর্তাদের ভূমিকাও প্রশ্নবিদ্ধ। বনে অবৈধ স্থাপনা উচ্ছেদ হচ্ছে নামমাত্র এমন অভিযোগ স্থানীয় সচেতন মহলের। এসব বনের জায়গা দখল করছে সেখানকার প্রভাবশালী মহল ও ব্যক্তিগণ।
শ্রীপুর রেঞ্জের অধীনে ৭টি বিট অফিস রয়েছে। এলাকাবাসীর অভিযোগ, বনের জমি দখল করতে কোটি কোটি টাকার বিপুলসংখ্যক মূল্যবান গাছ আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়েছে। রেঞ্জের সদর বিটের বিন্দুবাড়ি গ্ৰামের মৃত ছহিদের ছেলে মোঃ দেলোয়ার হোসেন। কামাল জামাই সহ আরও অনেকেই এলাকায় বনভূমি উজাড় করে টাকার বিনিময়ে গড়ে তুলছে বসতবাড়ি এলাকাবাসী একাধিক বার খবর দিলেও কোনো ধরনের ফলাফল পাওয়া যায়নি। বিন্দুবাড়ি মৌজায় এক সময় ছিল শাল, গজারিসহ বিভিন্ন প্রজাতির ভেষজ, বনজ উদ্ভিদ। বন কর্মচারীদের সহায়তায় সেই বাগান পরিষ্কার করে বসতবাড়ি নির্মাণ করছেন স্থানীয়রা।
স্থানীয় বন প্রহরী (গার্ড) স্থানীয় স্বল্প আয়ের মানুষের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা নিয়ে বসতবাড়ি নির্মাণ করার মৌখিক অনুমতি দিচ্ছেন। ৮/১০টি বাড়ির নির্মাণ কাজ চলছে। ওই এলাকাসহ আশপাশের বনের জমিতে বসতবাড়ি নির্মাণের হিড়িক পড়েছে। কেউ বনের জমিতে ঘর তোলার সুযোগ পেলে তাকে দেখে আরও অনেকেই ঘর তুলতে আগ্রহী হচ্ছেন। এমন চলতে থাকলে একটা সময় হয়তো বনই ধ্বংস হয়ে যাবে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় একজন জানান, বন কর্মকর্তাদের যোগসাজশ রয়েছে।মোটা অংকের টাকা নিয়ে ঘর নির্মাণের মৌখিক অনুমতি দেওয়া হয়।
শ্রীপুর ফরেস্ট রেঞ্জ কর্মকর্তা আনিছুল হক বলেন, বনের জমিতে বসতবাড়িসহ কোনো ধরনের স্থাপনা নির্মাণের নিয়ম নেই। বনের জমি রক্ষায় উচ্ছেদসহ দখলকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত