শিরোনাম :
সাইবার বুলিং বাড়ছে, বিপদ বলয়ে শিশু-কিশোররা জন্ম ও মৃত্যুবরণ করলে ৪৫ দিনের মধ্যে নিবন্ধন করার আহবান :স্থানীয় সরকার বিভাগের উপসচিব ইন্দোশিয়ার রাজধানী জাকার্তা থেকে  নুসানতারা কমলগঞ্জে জলাশয়ে পাওয়া গেল এক নারীর মরদেহ দেশে ওমিক্রন শনাক্তের হার ঊর্ধ্বগামী, নতুন ঢেউ আছড়ে পড়ার শঙ্কা কমনওয়েলথ গেমস বাছাইয়ে বিজয়ী টাইগ্রেসরা পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের প্রস্তার নাকচ করে দিয়েছে তালেবান সরকার শিমুর হত্যার দায় স্বীকার করলো স্বামী নোবেল খুলনা দাকোপ স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নার্সের অশোভন আচরণ , রোগীদের অভিযোগ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দেওয়ার মতো পরিস্থিতি এখনও তৈরি হয়নি : দীপু মনি
হেমন্তের শুরুতে জমে উঠেছে শীতবস্ত্রের পাইকারী বাজার

হেমন্তের শুরুতে জমে উঠেছে শীতবস্ত্রের পাইকারী বাজার

অদ্রি আলাউদ্দিন :

শরৎ রাণীর বিদায়ের মধ্যে দিয়ে হেমন্তের আগমন আর হেমন্ত আগমনের মধ্যে দিয়েই শীতের আগমন বার্তা জানান দিয়েছে শহর কিংবা গ্রামে। জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে আমাদের এই ষড় ঋতুরও পরিবর্তন ঘটেছে ব্যপকভাবে তারপরও প্রকৃতির নিয়মে কুয়াশার আদরের চাঁদরে ঢাকা পড়েছে ভোরের অবারিত সবুজ ফসলের মাঠ, ও গ্রামীণ জনপদ। ধীরে-ধীরে প্রকৃতি শীতল হয়ে আসছে। শীত মানেই গরম কাপড় আর এই চলতি মৌসুমকে সামনে রেখে গরম কাপড় তৈরীতে ব্যস্ত দেশের ছোট বড় গার্মেন্টস শিল্প। দিন-রাত ক্লান্তিহীন কর্মে ব্যস্ত আছেন পোষাক শ্রমিকরা। কার্তিকের প্রথম সপ্তাহে জমে উঠেছে শীতবস্ত্রের পাইকারী বাজার। দেশের বৃহত্তর পাইকারী বাজারের মধ্যে রয়েছে ঢাকার গুলিস্থান, কেরানীগঞ্জ, নারায়নগঞ্জ, গাউছিয়া, ভৈরব ও টাঙ্গাইলের করটিয়া। প্রতিদিন এখান থেকে বিপুল পরিমাণ শীতবস্ত্র রাজধানী সহ দেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলে সরবরাহ করা হয়। গত বছর গরম কাপড় যথেষ্ট মজুদ থাকার পরও করোনা কালীন সময়ে দীর্ঘ লগডাউনের কারণে সময়মত বাজারে উঠাতে পারেননি বিক্রেতারা। এবার সেই ক্ষতি পুষিয়ে নিবে এই আশাই ব্যক্ত করছেন পাইকারী ব্যবসায়ীরা। বিগত বছরের তুলনায় লোডশেডিং কম হওয়ার কারণে পোষাক শ্রমিকরা সময়মত তৈরী করতে পারায় তারা যেমন খুশি আবার মালিক পক্ষও সময়মত বাজারে উঠাতে পেরে নেই কোন অভিযোগ। গত সপ্তাহে টঙ্গী ও গাউছিয়ার সাপ্তাহিক বাজারে বেশ ভীড় দেখা গেছে। এখানে ছোট বড় মিলে প্রায় ১০০০ দোকান বসে। অত্যাধুনিক ডিজাইন আর দাম কম হওয়ায় সব শ্রেণীর ক্রেতা বিক্রেতার সমাগম লক্ষ্য করা যায়। পাইকারী ব্যবসায়ীরা দোকান থেকে শুরু করে ফুটপাতে বিভিন্ন শীতবস্ত্রের পসরা সাজিয়ে বসেছিল। সব বয়সীদের সোয়েটার, জ্যাকেট, হুডি ব্লেজার, হাইনেকসহ অনেক পোষাকের সমাহার ছিল প্রায় সব দোকানে। ফুটপাতেও নতুন ও পুরাতন শীত বস্ত্র বিক্রি করতে দেখা গেছে। ৪০ টাকা থেকে ৫০ টাকায় পুরাতন সোয়েটার, ৩০ টাকায় মাফলার এবং ১০০ টাকায় জ্যাকেট বিক্রি করতে দেখা যায়। তবে অল্পমূল্যে আধুনিক ডিজাইন, বাহারী রং ও রুচীসম্মত ভালো পোষাক তৈরীতে দেশীয় ক্ষুদ্র্র গার্মেন্টস যেভাবে সাধারণ ও নিম্ন মধ্যবিত্তদের চাহিদা পূরণ করছে এ নিয়ে আমাদের কোন সন্দেহ নেই। একজন তরুণ উদ্যোক্তা বলেন, বর্তমান সময়ে যেভাবে নিত্য পণ্যের দাম বেড়েছে সেই তুলনায় তৈরী পোষাকের উপর এর কোন প্রভাব পড়েনি। সরকার যদি আরো আন্তরীক হয়ে ছোট ছোট গার্মেন্টস শিল্পকে অল্প সুদে ঋণ প্রদানের মাধ্যমে সাহায্য করেন তাহলে একদিকে যেমন ছোট ছোট শিল্প প্রতিষ্ঠান গড়ে উঠবে অন্য দিকে দেশের অনেক বেকার ও শিক্ষিত যুবকরা ক্ষুদ্র্র শিল্প প্রতিষ্ঠানের প্রতি আগ্রহী হবে। বগুরা থেকে আসা হানিফ হোসিয়ারীর স্বত্ত্বাধিকারী মতিয়ার রহমান বলেন,¬ ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা আমাদের থেকে পাইকারী দরে পোষাক কিনে স্থানীয় বাজারে খুচরা দরে বিক্রি করে, এতে লাভ হয় অনেক বেশী। শিশু থেকে বৃদ্ধ সব শ্রেণীর পোষাক অল্পদামে পাওয়া যায় তাই এখানে সব শ্রেণীর ক্রেতা বিক্রেতা আসে। নভেম্বর থেকে মার্চ এই তিন মাস আমাদের তৈরী গরম পোষাকের চাহিদা থাকে। শীত কমতে থাকলে আমাদের গরম পোষাকের চাহিদাও কমতে থাকে। সমস্যা সম্পর্কে জানতে চাইলে তিনি বলেন, বাজারের নির্ধারিত জায়গা না থাকার কারণে পূর্বের রাত থেকেই রাস্তা দখল করে বাজার বসতে শুরু করে যার কারণে যাতায়াতের পথ বন্ধ হয়ে যায়। ধুলো বালিতে কাপড় নষ্ট হয়ে যায়। কেমন বিক্রি হচ্ছে? এ প্রশ্নের জবাবে রাজা মিয়া বলেন, শুরুতে ভালো হচ্ছে। আশা করি ভালোই হবে। শীতের তীব্রতা যত বেশী হবে আমাদের বিক্রি ততবেশী হবে। সাধারণ ক্রেতাদের ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে আছে বলেই বিক্রি ভালো হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত