শিরোনাম :
গাজীপুরে ধর্ষণ চেষ্টার অভিযোগে সৎবাবা গ্রেফতার ৫ম ধাপের মনোনয়ন ফরম কাল থেকে বিক্রি করবে আ.লীগ ; জমাদানের শেষ তারিখ ১ ডিসেম্বর ফরিদপুরে মোটর সাইকেল চোর চক্রের ৫ সদস্য আটক ঝিনাইদহে কৃষককে গলা কেটে হত্যা মানুষের সেবায় রক্তের প্রয়োজনে নবপুষ্প ব্লাড ফাউন্ডেশন লালমনিরহাটের দৈখাওয়ায় মিথ্যা অভিযোগ ও সংবাদ প্রকাশের প্রতিবাদে মানববন্ধন সিরাজগঞ্জে শাহজাদপুরে নব নির্বাচিত এমপি প্রফেসর মেরিনা জাহান কবিতাকে ফুলেল শুভেচছা ঠাকুরগাঁওয়ে তাড়া খেয়ে মরলো নীলগাই লক্ষ্মীপুরে স্বেচ্ছাসেবীদের ভালোবাসায় সিক্ত হারুন-নাহার দম্পত্তি ফরিদপুরে হুমায়ূন স্মরণ উৎসব ও ক্যামেরার কবি আলোকচিত্রী নাসির আলী মামুনের সম্বর্ধনা অনুষ্ঠিত
এলসির বিপুল দেনা পরিশোধ করতে গিয়ে রিজার্ভের ওপর চাপ বাড়ছে

এলসির বিপুল দেনা পরিশোধ করতে গিয়ে রিজার্ভের ওপর চাপ বাড়ছে

করোনার কারণে এলসির বিপুল দেনা পরিশোধ করা সম্ভব হয়নি। ফলে গত দেড় বছরে বকেয়া এলসি বেড়েছে প্রায় ২২০ কোটি ডলার। স্থানীয় মুদ্রায় তার পরিমাণ ১৯ হাজার কোটি টাকা। মূলত করোনার কারণে ব্যবসা-বাণিজ্য স্থবির থাকায় ওসব এলসির দেনা পরিশোধ করা সম্ভব হয়নি। কেন্দ্রীয় ব্যাংক উদ্যোক্তাদের সক্ষমতার অভাবে ওসব দেনা পরিশোধ স্থগিত করেছিল। এখন এলসির দেনা শোধ করতে হচ্ছে। নিয়মিত এলসির পাশাপাশি বকেয়া দেনা শোধ করায় রিজার্ভে চাপ বেড়েছে। বাংলাদেশ ব্যাংক সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, ২০২০-২১ অর্থবছরে বকেয়া এলসির মধ্যে বৈদেশিক ঋণ নিয়ে যেসব এলসি খোলা হয়েছিল তার মধ্যে দেনা স্থগিতের পরিমাণ ১২৫ কোটি ডলার। আর বৈদেশিক ব্যাক টু ব্যাক এলসি ৯৪ কোটি ডলার। করোনার কারণে ওসব এলসির দেনা পরিশোধের মেয়াদ কেন্দ্রীয় ব্যাংক কয়েক দফায় বাড়িয়ে দিয়েছিল। সেগুলো গত অক্টোবর থেকে পরিশোধ করতে হচ্ছে। তার আগের ২০১৯-২০ অর্থবছরে বৈদেশিক ব্যাক টু ব্যাক এলসির কোনো দেনা অপরিশোধিত ছিল না। ওগুলো নিয়মিত পরিশোধ করা হয়েছে। বৈদেশিক ঋণ নিয়ে খোলা এলসির বিপরীতে স্থগিত দেনা ছিল ৩১ কোটি ডলার। চলতি অর্থবছরে তার পরিমাণ বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২৫ কোটি ডলার। অর্থাৎ এক বছরের ব্যবধানে তা ৪ গুণের বেশি বেড়েছে। অথচ করোনার আগে কখনোই বৈদেশিক ব্যাক টু ব্যাক এলসির দেনা বকেয়া থাকতো না। যা গত অর্থবছরে বকেয়া হয়েছে।
সূত্র জানায়, করোনার কারণে গত বছরের মার্চ থেকে সেপ্টেম্বর পর্যন্ত আন্তর্জাতিক অঙ্গনের মতো বাংলাদেশেও ব্যবসা-বাণিজ্যে স্থবিরতা ছিল। অক্টোবর থেকে পরিস্থিতি অনেকটা স্বাভাবিক হলেও মন্দার ধাক্কা কাটিয়ে ওঠা সম্ভব হয়নি। ফলে বাংলাদেশ ব্যাংক উদ্যোক্তাদের নীতি সহায়তা দিতে এলসি পরিশোধের মেয়াদ বাড়িয়ে দেয়। গত বছরের মার্চ থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত তিন দফায় সময় বাড়ানো হয়। তারপর চলতি বছরের এপ্রিল থেকে দেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আঘাত হানে। ওই কারণে এপ্রিল থেকে ব্যবসা-বাণিজ্য ফের স্থবির হয়ে তা আগস্ট পর্যন্ত চলে। ওই কারণে দুই দফায় সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এলসির দেনা পরিশোধ স্থগিত করা হয়। একই সঙ্গে বৈদেশিক ঋণ বা বিদেশি ব্যাংকের বৈদেশিক মুদ্রায় নেয়া ঋণে খোলা এলসির দেনা পরিশোধের মেয়াদ দুই দফা বাড়ানো হয়। ওসব কারণে গত জুন পর্যন্ত বৈদেশিক ঋণে খোলা এলসির দেনা পরিশোধ করতে হয়নি। সেগুলো জুলাই থেকে সীমিত আকারে পরিশোধ শুরু হয়েছে। একই সময়ে বিদেশি ব্যাংকের ঋণের খোলা এলসিসহ অন্যান্য বকেয়া এলসিও পরিশোধ শুরু হয়েছে। তার মধ্যে অনেক এলসির মেয়াদ এখনো পূর্তি হয়নি। যেগুলোর মেয়াদ পূর্তি হচ্ছে সেগুলো পরিশোধ করা হচ্ছে। আর যেগুলোর মেয়াদ শেষ হয়নি সেগুলোর মেয়াদ পূর্ণ হলে পরিশোধ করা হবে। একসঙ্গে বেশি এলসির দেনা পরিশোধের কারণে এখন দেশের বৈদেশিক মুদ্রার ওপর চাপ পড়েছে। যে কারণে ব্যাংকে ডলারের দাম বেড়ে গেছে।
সূত্র আরো জানায়, গত বছরের জানুয়ারি থেকে ডিসেম্বর পর্যন্ত বকেয়া এলসির পরিমাণ ছিল ১২৪ কোটি ডলার। আর চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত সময়ে তার পরিমাণ আরো ৯৬ কোটি ডলার বেড়ে হয়েছে ২২০ কোটি ডলার বা স্থানীয় মুদ্রায় ১৯ হাজার কোটি টাকা। বর্তমানে সারা বিশ্বে ব্যবসা-বাণিজ্য স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসতে শুরু করেছে। করোনার আর কোনো ধাক্কা না এলে পরিস্থিতি আরো স্বাভাবিক হবে। ব্যবসা-বাণিজ্য চাঙা হবে। তখন আর নতুন করে এলসির দেনা সমন্বয়ে বকেয়া পড়বে না। বকেয়ার অঙ্ক এখন ধীরে ধীরে কমে আসবে। ফলে উদ্যোক্তারা এখন যেসব এলসি খুলছে সেগুলোর বিপরীতে আর মেয়াদ বাড়ানোর সুবিধা পাবে না। ওগুলোর দেনা সমন্বয় হয়ে যাবে। নতুন করে বকেয়ার পরিমাণ আর না বাড়লে চলতি অর্থবছরের মধ্যে সব বকেয়া পরিশোধ হয়ে যাবে। সাধারণত ৩ থেকে ৪ মাস মেয়াদে এলসি খোলা হয়। বৈদেশিক ঋণে খোলা হলে তার মেয়াদ ৬ মাস হয়। কিন্তু করোনার কারণে তার মেয়াদ কয়েক দফায় বাড়ানো হয়েছে। গত সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বাড়তি মেয়াদ পাবে উদ্যোক্তারা। ফলে আগামী মার্চের মধ্যে দেনা পরিশোধ সমন্বয় হয়ে যাবে বলে কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সংশ্লিষ্টরা আশাবাদী। তার পরে শুধু বৈদেশিক ঋণের কিছু এলসির বকেয়া থাকতে পারে। বৈদেশিক ব্যাক টু ব্যাক এলসির কোনো বকেয়া থাকবে না।
এদিকে বৈদেশিক মুদ্রায় ঋণ নিয়ে খোলা ব্যাক টু ব্যাক এলসির (রপ্তানিমুখী শিল্পের কাঁচামাল আমদানির জন্য খোলা এলসি) দেনা বেড়ে দাঁড়িয়েছে প্রায় ৯৪ কোটি ডলার। ২০১৪ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত ওই খাতে কোনো এলসি বকেয়া ছিল না। এখন স্থগিত এলসির দেনা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১২৫ কোটি ডলার। গত বছর তার পরিমাণ ছিল ৩৬ কোটি ৪০ লাখ ডলার। ২০১৮ সালে ছিল ৩৯ কোটি ডলার, ২০১৭ সালে ছিল ৪৫ কোটি ডলার। গত কয়েক বছরের তুলনায় দ্বিগুণের বেশি বেড়েছে স্থগিত এলসির দেনা। সেগুলো এখন পরিশোধ করা হচ্ছে। বৈদেশিক মুদ্রার লেনদেনের নীতিমালা অনুযায়ী এলসি খোলার সময় ক্রেতা-বিক্রেতার পক্ষে ব্যাংকের মধ্যে চুক্তি হয়। তাতে এলসির দেনা কীভাবে পরিশোধ করা হবে তার শর্ত উল্লেখ থাকে। তবে নীতিমালা অনুযায়ী তা ৩ থেকে ৪ মাসের মধ্যে পরিশোধ করতে হবে। তা না করলে পরবর্তী ৩ মাসের মধ্যে উদ্যোক্তা খেলাপি হয়ে পড়বে। তখন আর নতুন এলসি খুলতে পারবে না। ওই কারণে এলসির দেনা শোধে কেউ সাধারণত পিছিয়ে থাকে না। আর কোনো কারণে উদ্যোক্তা পরিশোধ করতে না পারলেও ব্যাংক ফোর্স লোন সৃষ্টি করে এলসির দেনা শোধ করে দেয়। ওই কারণে আগে বকেয়া এলসি খুবই কম ছিল। যেগুলো বকেয়া থাকতো সেগুলোও ছয় থেকে এক বছরের মধ্যে বেশির ভাগই মিটে যেত।
এদিকে বিদ্যমান অবস্থা প্রসঙ্গে অর্থনীতিবিদদের অভিমত, করোনার কারণে এলসির দেনা পরিশোধের মেয়াদ বাড়ানো হয়েছিল। সেগুলো এখন পরিশোধ করতে হচ্ছে। একদিকে নতুন এলসি, অন্যদিকে আগের বকেয়া-দুটি একসঙ্গে হওয়ায় দেনার পরিমাণ বেড়ে গেছে। এমন পরিস্থিতি আগে হয়নি। বিদ্যমান পরিস্থিতি কেন্দ্রীয় ব্যাংককে সতর্কতার সঙ্গে এটি মোকাবেলা করতে হবে। তবে দেশের রিজার্ভ ভালো অবস্থায় থাকার কারণে দেনা পরিশোধ করা হলেও তাতে ভয়ের কিছু নেই। তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে বৈদেশিক মুদ্রা আয় বাড়ানোর দিকে নজর দিতে হবে। কেননা সাম্প্রতিক সময়ে রেমিট্যান্স প্রবাহ কমে যাচ্ছে। তা বাড়ানোর পদক্ষেপ নিতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত