লিটনের সেঞ্চুরির পরেও পরাজয় টাইগারদের

লিটনের সেঞ্চুরির পরেও পরাজয় টাইগারদের

খেলার ডেস্ক: গত সিরিজেই পাকিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট ক্যারিয়ারের প্রথম শতক হাঁকান লিটন দাস। মাউন্ট মঙ্গানুইয়েও দাপট দেখিয়েছেন, এক ইনিংসে করেন ৮৬ রান। ক্রাইস্টচার্চে ধুঁকতে থাকা বাংলাদেশের হাল ধরে ক্যারিয়ারের দ্বিতীয় সেঞ্চুরি হাঁকালেন। তবে লিটনের ওয়ানডে মেজাজে খেলা রাজসিক শতক কাজে আসেনি দলের, এক ইনিংস ও ১১৭  রানের ব্যবধানে পরাজয় বরণ করলো টাইগার বাহিনী।
প্রথম ইনিংসে ১২৬ রানে অলআউট হয়ে ফলোঅনে পড়ে বাংলাদেশ। দ্বিতীয় ইনিংসেও টপ-মিডল অর্ডারদের ব্যর্থতায় মুখ থুবড়ে পড়ে টাইগাররা। ১২৮ রানে ৫ উইকেট হারানো দলের হাল ধরেন লিটন দাস ও নুরুল হাসান সোহান। দুই ব্যাটার মিলে গড়েন ১০১ রানের জুটি। সোহান ৩৬ রানে আউট হলে ভাঙে জুটিটি।

মেহেদী হাসান মিরাজ ও তাসকিন আহমেদকে সঙ্গে নিয়ে ওয়ানডে মেজাজে শতকের দিকে এগিয়ে যান লিটন। ১০৬ বলে ১৪ চার ও ১ ছক্কায় সেঞ্চুরি করার পর কাইল জেমিসনের বলে লেগবিফোরের ফাঁদে পড়েন তিনি।
দ্বিতীয় দিন দুই সেশনেরও কম সময় ব্যাট করে অলআউট হয়ে যায় বাংলাদেশ। বড় লিড থাকায় দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে না নেমে বাংলাদেশকে ফলোঅনে ব্যাট করার জন্য তৃতীয় দিন সকালে আমন্ত্রণ জানায় স্বাগতিকরা।
ফলোঅনে ব্যাট করতে নেমেও ব্যর্থ হন বাংলাদেশের টপ-মিডল অর্ডার ব্যাটাররা। উদ্বোধনী জুটিতে সাদমান ইসলাম ও নাঈম শেখ যোগ করেন ২৭ রান। ৪৮ বলে ২১ রান করে কাইল জেমিসনের শিকার হন সাদমান। নাজমুল হোসেন শান্ত নেমেই ওয়ানডে মেজাজে ব্যাট করতে থাকেন। তবে বেশি দূর যেতে পারেননি। ৩৬ বলে ২৯ রান করে তিনি ফেরেন নেইল ওয়াগনারের বলে।
প্রথম ইনিংসে ডাক মারা নাঈম মাঠে থিতু হওয়ার চেষ্টায় ৯৮ বলে ২৪ রান করেন। অধিনায়ক মুমিনুল হক ভালো শুরু পেলেও ইনিংস বড় করতে ব্যর্থ হন। তিনি ৬৩ বলে করেন ৩৭ রান। ওয়াগনারের বলে রস টেলরের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন মুমিনুল।
২ রান করে ফেরেন ইয়াসির আলী রাব্বী। ৩০ বল খেলে মাত্র ৩ রান করেন মেহেদী হাসান মিরাজ। ডাক মারেন পেসার শরীফুল ইসলাম। ৪ রান করেন ইবাদত হোসেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত