শিরোনাম :
গাজীপুরে শিক্ষক পরিবারের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানীর অভিযোগ গাজীপুরে সরকারি হাসপাতালে পুলিশসহ ২জনকে কামড়ে দিলো রিক্সা চালক নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলা জামনগর ডিগ্রি কলেজের নতুন ভবনের উদ্বোধন ভূমিসেবায় এখন কোন হয়রানি নাই, কেউ দালালের কাছে যাবেন না:নরসিংদীর জেলা প্রশাসক গাজীপুরে সুদের টাকা পরিশোধ করেও হয়রানির শিকার রাজবাড়ীতে ট্রেনে কাটা পড়ে মৎসজীবী নিহত মধুপুরে ভূমি সেবা সপ্তাহ  উপলক্ষে বর্ণাঢ্য র‍্যালি অনুষ্ঠিত ভূমি অধিগ্রহণ সম্পন্ন না হওয়ায় পিরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে ভৈরব সেতুর নির্মাণ কাজ ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে বিয়ের দাবিতে প্রেমিকের বাড়িতে অনশন পাচারকারীর হাত থেকে পালিয়ে দেশে ফিরলো এক যুবতী, ঘটনার সাথে জড়িত গ্রেফতার  ৩ 
কলাপাড়ায় বিশেষ বরাদ্দের টিআর, কাবিটা প্রকল্পে হরিলুট

কলাপাড়ায় বিশেষ বরাদ্দের টিআর, কাবিটা প্রকল্পে হরিলুট

মো: পারভেজ : কলাপাড়ায় এমপির বিশেষ বরাদ্দের গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষনাবক্ষেন ও সংস্কার কর্মসূচীর আওতায় গৃহীত প্রকল্পের কাজ না করেই অর্থ লোপাটের অভিযোগ উঠেছে। এছাড়া অফিসার্স ক্লাবের প্লাসাইডিং সহ মাঠ ভরাট ও সংস্কার প্রকল্পে একাধিকবার অর্থ বরাদ্দের পাশাপাশি বেশ কিছু কাগুজে প্রকল্পে অর্থ লোপাটের অভিযোগ রয়েছে। টিআর, কাবিটা প্রকল্পের এসব বরাদ্দ পিআইও, ইউএনওর তদারকিতে সম্পন্ন হওয়ার পর বরাদ্দ ছাড়ের নিয়ম থাকলেও তা মানা হয়নি। এবিষয়ে যথাযথ কর্তৃপক্ষ কোন পদক্ষেপ না নেওয়ায় জনস্বার্থে আদালতে মামলা হয়েছে, যা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশন (পিবিআই)কে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

তথ্য সূত্রে জানা যায়, গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষনাবক্ষেন (টিআর) কর্মসূচীর আওতায় ২০২০-২১ অর্থ বছরে কলাপাড়া উপজেলায় এমপির বিশেষ বরাদ্দে ৩৮,৫৭,৬৬৬ টাকা বরাদ্দ দেয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয়। এ বরাদ্দের মধ্যে ইউএনও কম্পাউন্ডে অফিসার্স ক্লাব সংস্কার প্রকল্পে ৩,৫৩,৬৬৬ টাকা অন্তর্ভূক্ত করা হয়। একই অর্থ বছরে এমপির বিশেষ বরাদ্দে গ্রামীন অবকাঠামো সংস্কার (কাবিটা) কর্মসূচীর আওতায় নন সোলার খাতে ৫১,৮৭,৫২২ টাকা বরাদ্দ দেয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয়। এ বরাদ্দের মধ্যে ইউএনও কম্পাউন্ডে অফিসার্স ক্লাব’র প্লাসাইডিং সহ মাঠ ভরাট প্রকল্পে ২,৩৭,৫২২ টাকা অন্তর্ভূক্ত করা হয়। ফের একই অর্থ বছরে গ্রামীন অবকাঠামো রক্ষনাবক্ষেন (টিআর) নগদ অর্থ কর্মসূচীর আওতায় ৩৩,৫৭,৬৬৬ টাকা বরাদ্দ দেয় দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রান মন্ত্রনালয়। এ বরাদ্দের মধ্যে ইউএনও কম্পাউন্ডে ফের অফিসার্স ক্লাব সংস্কার প্রকল্পে ৪,৭৩,৬৬৬ টাকা অন্তর্ভূক্ত করা হয়। এরপর অফিসার্স ক্লাব’র সম্পাদক ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি উপজেলা সিপিপি কর্মকর্তা মো: আসাদুজ্জামান সরকারী খালের উপর মাত্র ১০টি পিলার ও ৪টি গ্রেট ভিম তৈরী করে বরাদ্দের ১০ লক্ষ ৬৪ হাজার ৮৫৪ টাকা ব্যাংক থেকে উত্তোলন করেন। অথচ প্লাসাইডিং সহ মাঠ ভরাটের কোন চিহ্ন পাওয়া যায়নি।

এর আগে ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে পশ্চিম চাপলি শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদ সংস্কার প্রকল্পে ১,৩৫,৮১০ টাকা এবং নতুনপাড়া মমিন সিকদারের বাড়ি হইতে কালাম মৃধার বাড়ি পর্যন্ত সংস্কার প্রকল্পে ১,৩৫,৭০০ টাকা বরাদ্দ কাজ না করেই লোপাট করে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি। এছাড়া শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদেও নামে কোন সংগঠনের অফিস ঘর পশ্চিম চাপলি পাওয়া যায়নি। এবিষয়ে ধূলাসারের জনৈক জামান হোসেন ইউপি চেয়ারম্যান জলিল মাষ্টারসহ ৪জনকে আসামী করে জুডিসিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে মামলা দায়ের করেন, যা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিগেশন (পিবিআই) কে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন আদালত।

অফিসার্স ক্লাবের সম্পাদক ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি উপজেলা সিপিপি কর্মকর্তা মো: আসাদুজ্জামান বলেন,অফিসার্স ক্লাবের কমিটি রয়েছে। কমিটি এ বিষয়টি ভাল জানে।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো: হুমায়ুন কবির বলেন, অফিসার্স ক্লাব’র কাজ বরাদ্দকৃত টাকায় সম্পন্ন করা যায়নি। পিলার করার পর ৪ লক্ষ টাকা আছে। ছাদ দিতে হলে ১১-১২ লক্ষ টাকা প্রয়োজন।

কলাপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবু হাসনাত মোহাম্মদ শহিদুল হক বলেন, আমি ২০১৯ সালে কলাপাড়ায় যোগদান করেছি, ২০১৭-১৮ অর্থ বছরের কোন প্রকল্প সম্পর্কে আমি আমি অবগত নই। এছাড়া অফিসার্স ক্লাবের সংস্কার কাজ স্বচ্ছতার সাথে করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত