শিরোনাম :
শ্রীবরদীতে গ্রাম আদালত কার্যক্রম অগ্রগতি বিষয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত নরেন্দ্র মোদি পূণরায় ক্ষমতায় এলে ৬ মাসের মধ্যে কাশ্মিরকে ভারতের অংশ করা হবে সিরাজগঞ্জে চলতি বছরই সেতু দিয়ে চলবে ট্রেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত দিঘলিয়ায় মহি মল্লিকের নির্বাচনী নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে পুলিশী হয়রানীর অভিযোগ  নওগাঁয় গ্রামীন ব্যাংকের মত বিনিময় সভা-অনুষ্ঠিত  আশুলিয়ার শিমুলিয়ায় ভূমিদস্যুদের দখলে অসহায় মাসুদের জমি  আপনি বাংলাদেশ ব্যাংকে ঢুকবেন কেন সাংবাদিকেদের প্রশ্ন ওবায়দুল কাদেরের ইসরাইল হেরে যাচ্ছে: সাবেক গোয়েন্দা উপ-প্রধান শ্রীবরদীতে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
অতিথি পাখির অভয়ারণ্য রূপগঞ্জের টিনরের বিল

অতিথি পাখির অভয়ারণ্য রূপগঞ্জের টিনরের বিল

মাহবুব আলম প্রিয়:
অতিথি পাখির কিচিরমিচির শব্দ আর বহু ডানার শো শো বাতাসে আকাশে উড়ার দৃষ্টিনন্দন কলরব মনকাড়ছে পাখি প্রেমিদের। শীত জুরে পাখি দেখার এমন বিরল সুযোগ মেলে নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের গোয়ালপাড়া টিনর বিলে। দিনভর থাকে হাজারো পাখির মিলন মেলা। বালু ভরা বিলের অবশিষ্টাংশ জলে কচুরিপানার আড়ালে আড়ালে দলবেঁধে পাখিরা বিশ্রাম নেয়। মাঝো মাঝে দুষ্টুর দল ঢিল ছুড়ে পাখি উড়ানো দেখে। তবে পাখির এমন বিচরন দেখতে পেরে খুশি স্থানীয় বাসিন্দারা।
সূত্র জানায়, শীতকালের অতিথি পাখির আগমন হয় রূপগঞ্জের টিনর বিলে।  হাজারের অধিক পাখির দলবেঁধে থাকে  বসন্ত কাল অবদি। তারা যেন ডানা মেলেছে মন-প্রাণ খুলে ভাসে জলে, মাঝে মাঝে উড়ে  প্রকৃতির আকর্ষণ বাড়াতে।পাখিদের এমন চোখ ধাঁধানো দৃশ্য দেখতে পেরে খুশি স্থানীয়রা।  অতিথি পাখিদের অভয়ারণ্য হিসেবে পরিচিত টিনর বিলে বিগত ৩০ বছর ধরে দেখা যায় এমন দৃশ্য। তবে আবাসনের বালি আর বসতঘর বৃদ্ধির প্রভাবে হারিয়ে যেতে বসেছে এ বিল।  এতোদিনে বিলের ৬০ শতাংশ ভরাট হয়ে গেছে। বাকি ৪০ ভাগ বিলের জমানো জলে প্রতিবছর অতিথি পাখির আগমন ঘটে। আর এসব পাখি দেখতে ভীর করেন  দুরান্ত থেকে আসা দর্শনার্থীরা।
গোয়ালপাড়ার বাসিন্দা শিক্ষার্থী তরিকুল ইসলাম শোভন বলেন, অতিথি পাখিগুলো দিনভর আমাদের বাড়ির পাশে বিচরন করে। কেউ কখনো বিরক্ত করে না পাখিদের। ফলে প্রতিবছর এ এলাকায় পাখিগুলো অতিথির সম্মান পায় বলেই বারবার ফিরে আসে। আমাদেরও খুব ভালো লাগে এমন দৃশ্য দেখতে। একই এলাকার বাসিন্দা তানজুমা আইজি ইকরা বলেন,  গত তিন যুগ ধরে পাখিদের নিরাপদ আশ্রয় হিসেবে এ বিলের পরিচিতি রয়েছে। তবে এখন আর আগের মত পাখি আসে না। কারন বহু গাছ পালা নিধন হচ্ছে।  বিল বালি দিয়ে ভরাট করে ফেলতেছে। যার ফলে হয়তো আগামী ২ বছর পর আর পাখিগুলো আসবে না৷  ভাবতেই খারাপ লাগে।  অপর বাসিন্দা রিপন মিয়া বলেন, কিছু দুষ্টু প্রকৃতির লোকজন  বিল থেকে ফাঁদ পেতে পাখি শিকার করে। যা কষ্টদায়ক। তবে আমরা গ্রামের লোকজন এমন কাউকে দেখলে আইনের আঁওতায় পাঠাই। তবে সচেতন মানুষজন পাখিগুলোকে যেন কেউ বিরক্ত না করে সে বিষয়ে খেয়াল রাখে।ফলে  নিরাপদ আশ্রয়ে শীতকাল জুড়ে প্রতিদিনই হাজার হাজার পাখি এখানে আসে। এবারের বসন্তেও পাখির সংখ্যা আরো বাড়বে। তবে গাছ কমে যাওয়ায় পাখি কিছুটা কম এসেছে।
সূত্র জানায়, টিনর এলাকার এ বিলে প্রতিবছর শীতকাল জুড়ে অতিথি পাখির দল ঝাঁক বেঁধে হাজির হতে থাকে।  অসংখ্য গাছে রঙ-বেরঙের হাজার হাজার পাখির ছুটোছুটি মন কেড়ে নেবে যে কারো। পাখিদের কিচির মিচির ক্ষণিকের জন্য হলেও ভুলিয়ে দেবে ইট পাথরের জীবনের কথা।
অন্যান্য বছরের মত এবারো এখানে সকাল বিকাল হাজার হাজার পাখির দেখা মিলছে। এসব পাখি আশপাশের বিলে খাবার সংগ্রহ শেষে আশ্রয় নেয় বিলের জলে ও আশপাশের গাছে৷ এসব পাখিদের মধ্যে বালিহাস, পানকৌড়ি, কানি বক উল্লেখ্য যোগ্য।
এদিকে দেশীয় পাখিদের অভয়ারন্য হিসেবে মুশুরী গ্রামের রয়েছে পরিচিতি। শত শত বছর ধরে মুশুরী ও শাহাপুর গ্রাম থাকে পাখিমুখর। সন্ধ্যা হলেই দেখা যায় গাছে গাছে নানা ধরনের পাখি। তারগাছেও আশ্রয় নিতে দেখা যায় দেশীয় প্রজাতির সব রকম পাখির। এসব পাখির কিচিরমিচির শব্দ স্থানীয়রা এক সময় বিরক্ত হলেও এখন অভ্যস্ত হয়ে গেছে। তারাও পাখিদের যত্ন করে থাকেন। এছাড়াও এখানে দিনে রাতে সব সময়ই পাখিরা অবস্থান করে।
গাছ কমে যাওয়ায় পাখিদের আশ্রয়স্থলগুলো হুমকীর মুখে। তাই পাখি রক্ষায় গাছ রক্ষাও জরুরি বলে মনে করেন স্থানীয়রা।
রূপগঞ্জ  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ফয়সাল হক বলেন, আমরা যেমন অতিথিদের বাসায় এলে আদর আপ্যায়ন করি, অতিথি পাখিরাও আমাদের দেশের অতিথি। জীব বৈচিত্র রক্ষায় এসব পাখিদের বিরক্ত না করে তাদের বিচরন স্বাধীনতা দেয়া উচিত। এছাড়া বন আইন অনুযায়ী পাখি শিকার দন্ডনীয় অপরাধ। ফলে কেউ পাখি শিকারে জড়িত থাকলে তার বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
পাখি প্রেমীদের দাবী, শীত মৌসুমে আসা অতিথি পাখিদের রক্ষায় জেলার অন্যান্য উপজেলায়ও এমন অভায়ারণ্য গড়ে তোলা জরুরি।  পাশাপাশি পাখি শিকার বন্ধে প্রশাসনের কঠোর নজরদারিরও দাবি পাখিপ্রেমীদের।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত