শিরোনাম :
তজুমদ্দিনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর উপর হামলা,আটক ৩ সাগরে তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, দশ নম্বর মহাবিপদ সংকেত  নাটোর ০৪ আসনের সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের মানববন্ধন কেন্দুয়ায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে একজনের মৃত্যু  ফরিদপুরে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‌ ১২৫ তম  জন্মবার্ষিকী পালিত  পূর্ব তিমুরের মতো খ্রিষ্টান দেশ বানানোর চক্রান্ত চলছে এমপি আনার হত্যায় জিহাদের লোমহর্ষক বর্ণনা সাগরে তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, সাত নম্বর বিপদ সংকেত  বড়াইগ্রামে সাংবাদিকদের নিয়ে এমপি’র আপত্তিকর বক্তব্য, সর্বত্র ক্ষোভ   সাতক্ষীরায় পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় এক কলেজ ছাত্রসহ দুই জনের মৃত্যু
ঈর্ষণীয় জনপ্রিয়তায় ভোলা ২ আসনের সাংসদ আলী আজম মুকুল

ঈর্ষণীয় জনপ্রিয়তায় ভোলা ২ আসনের সাংসদ আলী আজম মুকুল

আলহাজ্ব আলী আজম মুকুল সংসদীয় আসন ভোলা ২ (১১৬)।  বিচক্ষন রাজনৈতিক মেধা সম্পন্ন একজন প্রভাবশালী ও সফল সাংসদ হিসেবে সুনাম কুরিয়ে চলেছেন সর্বমহলে। 
৫২’র ভাষা আন্দোলন, ৬৯’র গণ-অভ্যুত্থান ও সর্বোপরি আমাদের মহান মুক্তিযুদ্ধে তরুণদের স্বতঃস্ফূর্ত অংশগ্রহণ ও নেতৃত্বের ভূমিকা ছিল গুরুত্বপূর্ণ। যুগে যুগে তরুণেরা পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে তাদের নেতৃত্বের গুণে ইতিবাচক পরিবর্তনের সূচনা করেছে। তরুণদের চেতনায় রাজনীতিতে পরমতসহিষ্ণুতা, সহনশীলতা জাতির ভিত্তি। হোক সেটা জাতীয়, আন্তর্জাতিক, অর্থনীতি, পররাষ্ট্রনীতি কিংবা অন্য কোনো বিষয়ে।
রাজনীতিতে নীতিহীনতা, গণতান্ত্রিক চর্চার অভাব, ক্ষমতার অপব্যবহার, কালো টাকার প্রভাব, দুর্নীতিবাজদের প্রশ্রয়, সহনশীলতার অভাব ও ধ্বংসাত্মক কার্যকলাপ এসব কিছু বন্ধ বা ধ্বংস করতে পারে তরুণ নেতৃত্বগুণ। রাজনীতিতে গুণগত ও ইতিবাচক পরিবর্তনে এবং দেশের মানুষের আশা-আকাঙ্খা অর্জনে এখন তরুণ নেতৃত্ব আবশ্যক হয়ে দাঁড়িয়েছে। তরুণেরা এখন ভবিষ্যৎ নয়, তরুণেরা জাতির বর্তমান হতে চায়। এখন তারা দেশের জন্য কিছু করতে চায়।
এই তরুণদের হাত ধরে স্বৈরাচার পতনের ডাক এসেছিল। এই তরুণ-তরুণীরা শাহবাগে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় ঐক্যের সূচনা করেছিল। রাজনীতি হলো প্রবহমান নদীর মতো। ভালো মানুষ বা তরুণ নেতৃত্ব না এলে রাজনীতির জায়গা ফাঁকা থাকবে না। খারাপ নেতৃত্বের দ্বারা তা পূর্ণ হয়ে যাবে। তাই বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তরুণদের দলে টেনে সুযোগ করে দিচ্ছেন। তারা যেন মানুষের কল্যাণে দেশ নির্মাণে ভুমিকা রাখতে পারে।
রাজনীতিতে আকৃষ্ট করার মতো তরুণ-তরুণীদের জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যে ‘রোল মডেল’ তৈরি করেছেন তৃণমূল ও জনগণ তা স্বাগত জানিয়ে গ্রহণ করেছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তরুণ নেতৃত্ব সৃষ্টির মধ্য দিয়ে জাতীয় সংসদে লক্ষণীয় তরুণ সাংসদ নেতৃত্ব দিচ্ছেন, তারমধ্যে ভোলা- ২ আসনের দুইবারের সাংসদ আলী আজম মুকুল অন্যতম। তরুণ এ সংসদ সদস্য ইতিমধ্যে উক্ত এলাকায় সর্বমহলে ব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছেন। আর্থসামাজিকসহ নানা উন্নয়নমূলক কাজে তরুণ সমাজকে সম্পৃক্ত করে যুবসমাজের আইকন হিসেবে পরিচিতি লাভ করেছেন। 
আলী আজম মুকুল ১৯৭২ সালের ৩রা আগস্ট ভোলা জেলার দৌলতখান উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন। পিতা- বীর মুক্তিযোদ্ধা আশ্রাফ আলী মাতা- রহিমা বেগম। তিনি আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা মণ্ডলির সদস্য ও বরেণ্য রাজনীতিবিদ সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমদের ভাতিজা।
ছোট বেলা থেকেই চাচা দেশবরেণ্য রাজনীতিবিদ উনসত্তরের গণঅভ্যুত্থানের মহানায়ক, তোফায়েল আহমেদ এর আদর্শ ও জনপ্রিয়তায় আকৃষ্ট হয়ে পারিবারিক ভাবে রাজনীতির সাথে জড়িত হন আলী আজম মুকুল। তিনি দৌলতখান পৌরসভার তৃতীয় কনিষ্ঠ মেয়র ছিলেন। ২০১৪ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ১ম সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন। তার নির্বাচনী এলাকা ভোলা-২ (১১৬)।আলী আজম মুকুল অবহেলিত, সুবিধাবঞ্চিত মানুষের পাশে থেকে তাদের সেবা করার মাধ্যমে তরুণ বয়সেই তুমুল জনপ্রিয়তা অর্জন করেন। জনশ্রুতি রয়েছে, তরুণ এ জননেতার কাছে যেকোন পেশা শ্রেণীর মানুষই তাদের সমস্যা নিয়ে তার খুব কাছাকাছি যেতে পারেন, এবং তিনি ভুক্তভোগীদের কথা মন দিয়ে শুনে তাতক্ষনিক প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেন। এ কারণে এলাকার জনগণ তাকে “মানবতার মুকুল” নামে উপাধি দিয়েছে।
গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ভিশন-২০২১ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে, ১০ম নির্বাচনে জাতীয় সংসদকে সাজিয়েছেন তারুণ্য নির্ভর এক ঝাক এমপি ও মন্ত্রীর সমন্বয়ে। ওই সকল এমপি-মন্ত্রীদের নিরলস কাজের মাধ্যমে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার মাধ্যমে তারা বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে তুলে ধরতে সক্ষম হয়েছে উন্নয়নের একটি রোল মডেল হিসেবে। বিশ্বের স্বল্পন্নোত বিভিন্ন দেশ আজ বাংলাদেশকে উন্নয়নের মডেল হিসেবে গ্রহণ করেছে।তরুণ জনপ্রিয় সাংসদদের মধ্যে একজন হলেন ভোলা-২ (দৌলতখান-বোরহানউদ্দিন) আসনের এমপি আলী আযম মুকুল। তিনি তার মেধা, শ্রম, যোগ্যতার মাধ্যমে নিজেকে দুই উপজেলার মানুষের কাছে জনপ্রিয় করতে সক্ষম হয়েছেন। তিনি দিন-রাত তার নির্বাচনী এলাকার মানুষ নিয়ে ভাবেন। সকাল থেকে শুরু করে গভীর রাত পর্যন্ত তিনি তার নির্বাচনী এলাকা চসে বেড়ান। খুঁজে বের করেন বিভিন্ন সমস্যা। যেখানে সমস্যা, সেখানেই তিনি নিজের সাধ্যমত চেষ্টা চালিয়ে যান সমাধান দেয়ার। তার কাছে কোন রাজনৈতিক ভেদা-ভেদ নেই। তার নির্বাচনী এলাকার যে কোন দল/মতের লোক তার কাছে যেতে পারেন। সহজেই বলতে পারেন তাদের কথা। এ জন্যই এই এলাকার সাধারণ মানুষ বলছেন যে, এই আসনের সাবেক সকল সাংসদদের জনপ্রিয়তাকে ছাড়িয়ে যাচ্ছেন তরুণ সাংসদ আলী আজম মুকুল। এটা সম্ভব হয়েছে শুধুমাত্র তার নিজের যোগ্যতা ও জনগণের সাথে সরাসরি সম্পৃক্ততার কারনেই। দৌলতখান-বোরহানউদ্দিন এলাকার মাটি ও মানুষের সাথে মিশে গেছেন সাংসদ আলী আযম মুকুল। এলাকার মানুষ যেকোন সমস্যায়, যেকোন সময়ে তাকে তাদের পাশে পান।আলী আজম মুকুল এমপি তার নির্বাচনী এলাকা থেকে সকল প্রকার মাদক, জুয়া ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ড কঠোর হস্তে দমন করতে সক্ষম হয়েছেন। তিনি তার নির্বাচনী এলাকাকে নিরাপত্তার চাদরের বলয়ের মধ্যে নিয়ে আসতে সক্ষম হয়েছেন। এমনকি এই দুই উপজেলায় বাল্য বিবাহ নির্মূলে কাজ করে যাচ্ছেন তিনি, যা শতভাগের কাছাকাছি চলে এসেছে। যে কোন সময় শতভাগ বাল্য বিবাহ মুক্ত ঘোষণা করা সম্ভব হবে দৌলতখান-বোরহানউদ্দিন এই দুই উপজেলাকে। এছাড়াও তিনি তার নির্বাচনী এলাকায় ব্যাপক উন্নয়ন করছেন। রাস্তাঘাট, পুল-কালভার্ট, স্কুল-কলেজ-মাদ্রাসার ব্যাপক সংস্কার সাধন করেছেন। তার উল্লেখযোগ্য উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডের কিছু অংশ তুলে ধরা হলোঃ১) দুই উপজেলার মধ্যে বোরহানউদ্দিন উপজেলার বালক মাধ্যমিক বিদ্যালয়, আব্দুল জব্বার কলেজ এবং দৌলতখানের আবি আবদুল্লাহ কলেজ সরকারী করণ করতে সক্ষম হয়েছেন। ২) বোরহানউদ্দিন বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কাজ চলমান রয়েছে। ৩) দৌলতখান উপজেলায় ফায়ার সার্ভিস স্টেশন স্থাপন। ৪) ৯ কোটি টাকা ব্যয়ে থানায় একটি আধুনিক ভবন নির্মাণ। ৫) দুই উপজেলার মুক্তিযোদ্ধাদের জন্য নতুন অবয়বে মুক্তিযোদ্ধা কমপ্লেক্স স্থাপন। ৬) ঘুইংঘারহাট থেকে চরপাতা বেরিবাধ ও হেলিপ্যাড হয়ে দৌলতখান সড়ক প্রশস্ত করনসহ উন্নয়ন কাজ চলমান। ৭) বাংলাবাজার-দৌলতখান প্রধান সড়ক প্রশস্ত করনসহ উন্নয়ন কাজ চলমান। ৮) ভবানীপুর থেকে  চরপাতা কাজীবাড়ি পর্যন্ত সিসিব্লক নির্মাণের আরও একটি প্রকল্প অনুমোদনের অপেক্ষায়। ৯)  দেউলা- তালুকদার হাট সংযোগ ব্রীজ নির্মান করেন যার ফলে উক্ত এলাকার ৫০ হাজার মানুষের সীমাহীন দুর্ভোগ লাঘব হয়েছে। বাস্তবায়নের পথে নিম্মোক্ত প্রকল্পগুলো:১) মির্জাকালু মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণ ব্যায়- ৩ কোটি ২ লাখ। ২) ভৈরবগঞ্জ মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণ ব্যায়- ৩ কোটি ২ লাখ। ৩) কাচিয়া রতনপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণ ব্যায়-৩ কোটি ২ লাখ। ৪) পক্ষিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণ ব্যায়- ৩ কোটি ২ লাখ।৫) উদয়পুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণ ব্যায়- ৩ কোটি ২ লাখ। ৬) হাজিপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণ ব্যায়- ৩ কোটি ২ লাখ। ৭) চরখলিফা মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণ ব্যায়- ৩ কোটি ২ লাখ। ৮) গঙ্গাপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণ ব্যায়- ৩ কোটি ২ লাখ।৯) বীরশ্রেষ্ঠ মোস্তফা কামাল মাধ্যমিক বিদ্যালয় নির্মাণ ব্যায়- ৩ কোটি ২ লাখ। ১০) ভবানীপুর শেখ রাসেল ডিজিটাল পার্ক নির্মাণ ব্যায়- ৩ কোটি ৮৬ লাখ। ১১) বোরহানউদ্দিন সীমানা প্রবেশমুখে আধুনিক তোড়ন নির্মাণ ব্যায় ৭২ লাখ। 
দৌলতখান হাসপাতালে একটি সরকারী এ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা করেন, যা এর আগে কেউ করতে পারেনি। অপরদিকে তার একটি বড় অবদান হচ্ছে সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারের কাছ থেকে এই দুই উপজেলায় মেঘনা-তেঁতুলিয়ার ভাঙ্গন রোধের জন্য ৫শ’ ৫১কোটি টাকা বরাদ্দ করানো এবং তা বাস্তবায়ন করা।
সাংসদ আলী আজম মুকুলের সাংগঠনিক কর্মকান্ড অত্যন্ত চমৎকার। তিনি স্থানীয় নেতৃবৃন্দের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করেন, ওয়ার্ড পর্যায়ের নেতা-কর্মী এবং দলের বিভিন্ন অঙ্গ-সংগঠনের নেতা-কর্মীদের সাথেও যোগাযোগ রক্ষা করেন। দুই উপজেলার আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীরা বিগত দিনের চেয়ে বর্তমানে অনেক শক্তিশালী ও সুসংগঠিত। স্থানীয় নেতৃবৃন্দ তরুণ জনপ্রতিনিধি আলী আজম মুকুলকে পেয়ে তাদের মাঝে প্রাণ চাঞ্চল্য ফিরে এসেছে।একান্ত সাক্ষাৎকারে জনপ্রিয় সাংসদ আলী আজম মুকুল এ প্রতিবেদককে বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ অনুসরণ করে, ক্ষুদা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ বিনির্মাণে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন বাস্তবায়নের লক্ষ্যে, জনগণের সেবার ব্রত নিয়ে রাজনীতি করি, এলাকার অবহেলিত সুবিধাবঞ্চিত মানুষের ভাগ্যউন্নয়নে কাজ করে যেতে চাই আমৃত্যু। 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত