শিরোনাম :
নরেন্দ্র মোদি পূণরায় ক্ষমতায় এলে ৬ মাসের মধ্যে কাশ্মিরকে ভারতের অংশ করা হবে সিরাজগঞ্জে চলতি বছরই সেতু দিয়ে চলবে ট্রেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত দিঘলিয়ায় মহি মল্লিকের নির্বাচনী নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে পুলিশী হয়রানীর অভিযোগ  নওগাঁয় গ্রামীন ব্যাংকের মত বিনিময় সভা-অনুষ্ঠিত  আশুলিয়ার শিমুলিয়ায় ভূমিদস্যুদের দখলে অসহায় মাসুদের জমি  আপনি বাংলাদেশ ব্যাংকে ঢুকবেন কেন সাংবাদিকেদের প্রশ্ন ওবায়দুল কাদেরের ইসরাইল হেরে যাচ্ছে: সাবেক গোয়েন্দা উপ-প্রধান শ্রীবরদীতে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার আশুলিয়ায় চায়না আদিবাসী নারী পাচার চক্রের বিরুদ্ধে মানববন্ধন
একান্ত সাক্ষাতকারে মিনারা সুলতানা বলেন-

একান্ত সাক্ষাতকারে মিনারা সুলতানা বলেন-

মোঃ জাহাঙ্গীর আলম:
সদ্য অনুষ্ঠিত ঢাকা উত্তর সিটি নির্বাচনের সম্মন্ধে আওয়ামীলীগের মনোনিত সংরক্ষিত মহিলা আসন (১৬) ৪৬,৪৭,৪৮ নং ওয়ার্ডের প্রার্থী মিনারা সুলতানাকে জিজ্ঞাসা করলে, তিনি দৈনিক আলোকিত সকালকে বলেন- সম্মানিত এলাকাবাসী, আস্সালামু আলাইকুম। ধন্যবাদ ও কৃতঙ্গতা জানাই আমাকে ভোট দেয়ার জন্য, সহযোগীতা করার জন্য, পাশে থাকার জন্য।
“আমি চিৎকার করে কাঁদিতে চাহিয়া, করিতে পারিনি চিৎকার, বুকের ব্যাথা বুকে চাপায়ে নিজেকে দিয়েছি ধিক্কার”
কেন বার বার জিতে গিয়েও আমি হেরে গেছি আমার আওয়ামীলীগ পরিবারের কিছু কাছের মানুষদের বিশ্বাসঘাতকতার জন্য। আমি সর্বমোট ভোট পেয়েছি ১০.১৬৫, কিন্তু ৭৮০ ভোট ব্যবধানে ফেল করেছি।
পাশ করেছে বি এন পির প্রার্থী। কেন জিতে গিয়েও ফেল করেছি –
১) আমরা ৭ জন প্রার্থী ছিলাম, ৫ জনই আওয়ামীলীগ বিদ্রোহী প্রার্থী। আওয়ামীলীগের ভোট ভাগাভাগি হয়েছে।
২) আমার নির্বাচনী এলাকা দক্ষিণ খান ৪৮ নং ওয়ার্ড, ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামীলীগ থেকে নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক এর দায়িত্ব যাকে দেয়া হয়েছে, তিনি কাজ করেন বিদ্রোহী প্রার্থী তারই আপন বড় ভাইয়ের নাতনীর জন্য। তিনি দল নয় ব্যক্তিস্বার্থকে বড় করে দেখেছেন। তিনি ভুলে গেছেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা আমাকে দলীয় সমর্থন দিয়ে তাদের উপর বিশ্বাস রেখে পাঠিয়ে ছিলেন, কিন্তু দলীয় প্রার্থী নয়, নিজ নাতনীকে পাশ করানোর জন্য হেন কোন কাজ নেই উনি করেন নি।
৩) নির্বাচন চলাকালীন সময়ে আমার এজেন্ট কে বের করে দেয়া হয়, কর্মীদের অনেক মারদোর করা হয়েছে এখনও কয়েকজন বেডে। ভোট কারচুপি করে ৪৮ নং ওয়ার্ড থেকে তার নাতনীকে ফাস্ট করা হয়েছে। ৪৮ নং ওয়ার্ড তুলে দেয়া হয় বি এন পির হাতে, পুরুষ কাউন্সিলর, মহিলা কাউন্সিলর দুটি পদই আজ বি এন পির হাতে। কারন একটি দায়িত্বহীনতা, বিশ্বাসঘাতকতা।
৪) আমি নির্বাচন চলাকালীন সময়ে বহু জায়গায় ফোন দিয়েছি সহযোগীতা পাইনি।
৫) আমার বাবা নেই, মা মারা গিয়েছেন আজ ৪৬ দিন হয়েছে, অতি সাধারন একটি পরিবারে জন্ম আমার। অনেক লড়াই সংগ্রাম করে পড়ালেখা করেছি এবং এ পর্যন্ত এসেছি। আমার কষ্ট আমার এলাকার সাধারন জনগনের ১০১৬৫ ভোট দিয়ে আমাকে জয়ী করলেও তাদের স্বপ্ন পূরন করতে আমি পারিনি। আমি আমারি কাছের মানুষদের বিশ্বাস ঘাতকতার কারনে জিতে গিয়েও হেরে গেছি।
৬) আমি এলাকাবাসীর উদ্দেশ্যে বলতে চাই আমি আপনাদের মিনারা সুলতানা, আমি আপনাদের ভোটে কাউন্সিলর হয়েছি, যদিও ভোট কারচুপিতে ফেল দেখানো হয়েছে। আমি আপনাদের দুখে সুখে সর্বদা পাশে থাকবো ওয়াদা করে ছিলাম। আজও ওয়াদা করছি জীবনের শেষ দিন পর্যস্ত আপনাদের সেবা করে যাবো, আপনাদের দুখে সুখে পাশে থাকবো ইনশা আল্লাহ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত