শিরোনাম :
কৃষি সচিবের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বদলে যাচ্ছে উপকূলীয় অঞ্চলের কৃষি অর্থনীতি

কৃষি সচিবের ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় বদলে যাচ্ছে উপকূলীয় অঞ্চলের কৃষি অর্থনীতি

সৈয়দ জাহিদুজ্জামানঃ
কৃষি মন্ত্রণালয়ের সচিব ওয়াহিদা আক্তার শীলার ঐকান্তিক প্রচেষ্টার ফলে বদলে যাচ্ছে উপকূলীয় অঞ্চলের কৃষি অর্থনীতি। থাকছেনা কোনো পতিত জমি। চাষের আওতায় আনা হচ্ছে সকল জমি। তিনি শত ব্যস্ততার মাঝে ছুটে চলেছেন খুলনা অঞ্চলের কৃষকদের মাঝে। কৃষি মেলা, কৃষক মেলা, কৃষক প্রশিক্ষণ কর্মসূচিসহ নানা কর্মসূচি নিয়ে ছুটছেন বিভিন্ন জেলা ও উপজেলায়। তিনি কর্মহীন শ্রমিকদের পেশা পরিবর্তনে আগ্রহী ও উপযোগী করে কর্মক্ষেত্রে ফিরিয়ে আনার প্রত্যয়ে এ অঞ্চলের কৃষক সমিতির আওতায় এনে প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করছেন। তাছাড়া এা অঞ্চলকে সেচ প্রকল্পের আওতায় এনে বহুমূখী ফসল উৎপাদনে এক ঝাক প্রশিক্ষিত ও দক্ষ কৃষি কর্মকর্তাদের সাথে নিয়ে ছুটছেন চূড়ান্ত গন্তব্যের দিকে।
তারই আন্তরিক প্রচেষ্টায় কৃষকের পুনর্বাসন ও প্রণোদনা, ফসল উৎপাদন এবং তদারকি বাড়ায় বর্তমানে চাহিদার অতিরিক্ত খাদ্যশস্য উৎপাদনে সক্ষম হয়েছেন খুলনার কৃষকেরা। জেলার ৯ উপজেলার উৎপাদিত শাকসবজি দেশের বিভিন্ন জেলায় শহরে শহরে সরবরাহ করছে পাইকারি সবজি ব্যবসায়ীরা।
এই অঞ্চলের কৃষি উৎপাদনকে কেন্দ্র করে খুলনা জেলার বিভিন্ন উপজেলায় গড়ে তোলা হয়েছে আধুনিক ভিলেজ মার্কেট। যেখান থেকে কৃষকের উৎপাদিত বিভিন্ন কৃষিপণ্য ইউরোপসহ মধ্যপ্রাচ্যের বিভিন্ন দেশে রপ্তানি করা হচ্ছে।
কৃষিমন্ত্রণালয় উপকূলীয় অঞ্চলের লবণাক্ত জমিতে বহুমুখী ফসল উৎপাদনের লক্ষে কৃষিভিত্তিক বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ করায় এর সুফল পাচ্ছেন প্রান্তিক কৃষকেরা। ফলে খুলনার বিভিন্ন উপজেলায় খালে-বিলে , চালে, মৎস্যঘেরের বেড়িতে শোভা পাচ্ছে লাউ, করলা, ঢেঁড়স, বরবটি, গেমিকুমড়া, উচ্ছে, ঝিঙে, কুমড়া, সিম পেঁপে, শসা, পুঁইশাক, ক্ষিরাই, লালশাকসহ নানা ধরনের সবজি।
কৃষি প্রকল্পের নানা মৌসুমভিত্তিক প্রশিক্ষণ ও বিনা মূল্যে সার ও বীজ বিতরণ করে কৃষকদের প্রশিক্ষিত করা হয়েছে। ফলে রবি মৌসুমে আলু, মিষ্টি আলু, গম, ভুট্টা, মসুর, মুগ, খেসারী, মটর, অড়হর, মাসকলাই, সরিষা, আখ, পেঁয়াজ, রসুন, ধনে, মরিচ, তরমুজসহ শীতকালীন শাকসবজির উৎপাদন গত বছরের তুলনায় প্রায় দ্বিগুণ বেড়েছে।
খুলনার পাটকলগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ায় কর্মহীন হয়ে পড়েছে এ অঞ্চলের মানুষগুলো। এখন দীর্ঘদিনের খাদ্য সংকট কাটিয়ে উঠে নিজেরাই নিজেদের পুষ্টি ও খাদ্য তৈরি করার পাশাপাশি বিদেশেও রপ্তানি করছেন।
উল্লেখ্য খুলনার বটিয়াঘাটা, দিঘলিয়া, রূপসা, কয়রা, পাইকগাছা ও তালা উপজেলার কৃষকরা কৃষিবিপ্লব ঘটিয়েছেন। তারা এক ফসলি জমিকে এখন বহু ফসলি জমিতে রূপান্তরিত করেছেন। ফলে স্বাবলম্বী হয়ে উঠছেন খুলনাঞ্চলের কৃষকরা।
খুলনা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের দেওয়া তথ্যমতে, গত পাঁচ বছর ধরে খুলনায় রেকর্ড পরিমাণ খাদ্যশস্য উৎপাদন হচ্ছে। বারবার প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও কীটপতঙ্গের আঘাতে বিপর্যয় কাটিয়েও খুলনার কৃষক খাদ্যশস্য উৎপাদনে উল্লেখযোগ্যভাবে সফল হয়েছেন।
নানা খাদ্য শস্যের পাশাপাশি শাকসবজি উৎপাদনেও রেকর্ড সৃষ্টি হয়েছে খুলনায়। গত পাঁচ বছরে গড়ে সাড়ে তিন লাখ টন শাকসবজি উৎপাদন হয়েছে।
গত দেড় দশকে কৃষিতে খুলনায় উন্নয়ন হয়েছে আগের তুলনায় প্রায় তিন গুণের বেশি। উপকূলীয় জেলা হওয়ায় ঘূর্ণিঝড়, জলোচ্ছ্বাস, জলাবদ্ধতা, লবণাক্ততা, সেচের পানির দুষ্প্রাপ্যতাসহ বিভিন্ন সমস্যা কৃষি উন্নয়নের ক্ষেত্রে ব্যাপক বাধা। এ সকল প্রতিকূলতা কাটিয়ে সামনে এগিয়ে চলেছেন দক্ষিণাঞ্চলের কৃষকেরা।
২০০৭ সালে সিডর ও ২০০৯ সালে আইলার আঘাতে উপকূলীয় অঞ্চলের কৃষিকার্যক্রম মারাত্মকভাবে ক্ষতির সন্মুখিন হয়। এরপরেই নেমে আসে আম্পান ও করোনা। এ অঞ্চলের মানুষকে করে ফেলে কর্মহীন। তার প্রভাব সামগ্রিক কৃষি খাতকে বিপর্যস্ত করে ফেলে।
খুলনা অঞ্চলের কৃষি কর্মকর্তারা বলেছেন, দুই যুগ আগেও উপকূলীয় এলাকায় একটি বা দুটি ফসল হতো। বছরের অধিকাংশ সময় কৃষি জমি পতিত অবস্থায় থাকত। এখন সেসব জমিতে তিন থেকে চারটি ফসল উৎপাদন হচ্ছে। আবার একই জমিতে মাল্টিলেয়ার পদ্ধতিতে একসঙ্গে একাধিক ফসলও চাষ হচ্ছে। এভাবে জমির বহুমুখী ব্যবহার বদলে যাচ্ছে কৃষকের ভাগ্য।
এ অঞ্চলের বন্ধ জুট মিলগুলোর পতিত জমিতে এখন একাধিক ফসল উৎপাদন হচ্ছে। উল্লেখ করা যায়, দিঘলিয়া উপজেলার রাষ্ট্রায়াত্ব স্টার জুট মিল ও খুলনা অঞ্চলের বিজেএমসি নিয়ন্ত্রিত জমিগুলো।
পাশাপাশি দিঘলিয়ার সুগন্ধীতে গড়ে তোলা হচ্ছে কৃষি কর্মকান্ডের সাব ইউনিট। সুগন্ধী, সেনহাটি ও ফরমাইশখানার কৃষকদের নিয়ে গড়ে তোলা হয়েছে কৃষিভিত্তিক আঞ্চলিক সমবায় সমিতি। সমিতির মাধ্যমে সেচ প্রকল্পের আওতায় আনা হয়েছে কৃষকের জমি। কৃষকদের উন্নত প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। কৃষকেরা তাদের প্রশিক্ষণাব্দ জ্ঞানকে বাস্তব জীবনে খাটাতে শুরু করেছে। এ ব্যাপারে দিঘলিয়া উপজেলা কৃষি দপ্তরের পক্ষ থেকে কিছু প্রকল্প গ্রহণ করে তা কৃষি মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। প্রকল্পগুলো অনুমোদন হয়ে এলে এ এলাকার কৃষি ও কৃষককে একটা মডেল জায়গায় নেওয়া সম্ভব এমনটাই জানিয়েছেন এ প্রতিবেদককে দিঘলিয়া উপজেলা কৃষি অফিসার মোঃ কিশোর আহমেদ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত