শিরোনাম :
কেএমপি’র হরিণটানা থানা পুলিশের অভিযানে চোরাই অর্থ উদ্ধার, গ্রেফতার ১

কেএমপি’র হরিণটানা থানা পুলিশের অভিযানে চোরাই অর্থ উদ্ধার, গ্রেফতার ১

সৈয়দ জাহিদুজ্জামানঃ
খুলনা মহানগরী হরিণটানা পুলিশের একটা চৌকস টিমের অভিযানে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে চুরি হওয়া ৮ লাখ ৯৫ হাজার নগদ টাকাসহ চোর চক্রের ১ সদস্যকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।
ঘটনার বিবরণে জানা যায়, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফরেষ্ট্রি এন্ড উড টেকনোলজী ডিসিপ্লিন বিভাগের অধ্যাপক ড.এস.এম. ফিরোজ চলতি বছরের গত ১২ মার্চ খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের অভ্যন্তরে অবস্থিত অগ্রণী ব্যাংক, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয় শাখা হতে দুপুর সাড়ে ১২ টার সময় পাঁচটি এ্যাকাউন্ট হতে সর্বমোট ৮ লাখ ৯৫ হাজার টাকা উত্তোলন করেন। পরবর্তীতে তিনি দুপুর ১.১০ মিনিটের সময় খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ২নং একাডেমী ভবনে রুম নং-২২৬০ এ তার নিজস্ব রুমে গিয়ে উত্তোলনকৃত সমুদয় টাকা ব্যাগসহ চেয়ারের উপরে রেখে রুমের বাহিরে করিডরে ওজু করতে যান। ফিরে এসে দেখেন টাকা নাই।
তিনি তখন দ্রুত বিশ্ববিদ্যালয়ের সিসি টিভি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ দেখতে যান। তিনি সিসি টিভি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজে দেখতে পান যে অজ্ঞাতনামা একজন ব্যক্তি কিছু একটা নিয়ে দৌড়ে মেইন গেট দিয়ে দ্রুত পালিয়ে যাচ্ছে। তিনি দিশেহারা অবস্থায় আশেপাশে খোঁজ করতে থাকেন। অতঃপর কোন কূল কিনারা না পেয়ে উক্ত ঘটনার প্রেক্ষিতে হরিণটানা থানার মামলা নং-১০, তারিখ- ১৩/০৩/২০২৪, ধারা-৪৫৪/৩৮০ পেনাল কোড সংক্রান্তে অজ্ঞাতনামা আসামীর বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।
পরবর্তীতে কেএমপি’র হরিণটানা থানা পুলিশের একটা চৌকস টিম ঘটনার সাথে জড়িতদের গ্রেফতার চুরি হওয়া টাকা উদ্ধারের উদ্দেশ্যে সর্বাত্মক চেষ্টা করতে থাকেন। পরবর্তীতে হরিণটানা থানা পুলিশ সিসি টিভি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজ পর্যালোচনা করে এবং গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে অভ্যাসগত ও পেশাদার চোর চক্রের তথ্য সংগ্রহ করে সিসি টিভি ক্যামেরার ভিডিও ফুটেজের সাথে একজন ব্যক্তির মিল পেয়ে দিঘলিয়া থানাধীন পানিগাতী গ্রামে স্থানীয় থানা পুলিশের সহায়তায় বিশেষ অভিযান পরিচালনা করে আন্তঃজেলা চোর চক্রের সক্রিয় সদস্য মোঃ টিটন খান (৩৫), পিতা-মোঃ হারুন খান, সাং-পানিগাতী, পশ্চিমপাড়া, থানা-দিঘলিয়া, জেলা-খুলনা’কে চোরাই নগদ অর্থ ৮ লাখ ৯৫ হাজার টাকাসহ ৩০/০৩/২০২৪ বিকেলে গ্রেফতার করে। প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত আসামী জানায় যে, সে অভ্যাসগত চোর। সে রেগুলার বিভিন্ন ব্যাংক কম্পাউন্ডে ঘোরাফেরা করে। একাউন্ট থেকে কেউ টাকা উত্তোলন করলেই সে তাকে নিবিড়ভাবে অনুসরণ করতে থাকে। টাকা উত্তোলনকারীর অসাবধনতার সুযোগ নিয়ে সে চুরি সম্পাদন করে। এটাই তার পেশা।
খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের চুরিটিও সে নিজেই করেছে। চুরি করার পরের দিন টাকাগুলো সে তার নিজের ব্যাংক একাউন্টে জমা রেখেছিল। পরবর্তীতে ব্যবহারের উদ্দেশ্যে টাকাগুলো উত্তোলন করলে পুলিশ টের পেয়ে যায়। টাকাগুলো খরচ করার পূর্বেই নগদ অর্থসহ পুলিশ তাকে গ্রেপ্তার করে। গ্রেফতারকৃত আসামীকে যথা নিয়মে বিজ্ঞ আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।
উল্লেখ্য, গ্রেফতারকৃত আন্তঃজেলা চোর চক্রের সক্রিয় সদস্যের বিরুদ্ধে (১) খুলনা জেলার দিঘলিয়া থানার মামলা নং-১১, তারিখ-২৬/০১/২০২৪, ধারা-৪৬১/৩৮০ পেনাল কোড; (২) খুলনা জেলার দিঘলিয়া থানার মামলা নং-০৭, তারিখ-১৫/১০/২০২১, ধারা-৩৮০/৪৫৭ পেনাল কোড; (৩) খুলনা জেলার পাইকগাছা থানার মামলা নং-১৩, তারিখ-১২/০১/২০২১, ধারা-৪৫৪/৩৮০ পেনাল কোড এবং (৪) বাগেরহাট জেলার রামপাল থানার মামলা নং-৪, তারিখ-০৫/০৫/২০২১, ধারা-৪৫৪/৩৮০ পেনাল কোডে মামলা রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত