শিরোনাম :
কিশোর গ্যাং মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী বিশেষ নির্দেশনা দিঘলিয়ার গাজীরহাট থেকে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার  নওগাঁ জেলা সাংবাদিক বন্ধু ফোরামের উদ্যোগে ইফতারী বিতরণ পূর্বাচল মানব কল্যাণ সংস্থা,র উদ্যোগে ৫ শতাধিক দুস্থদের মাঝে ঈদ উপহার  ভিসানীতি কঠোর করছে নিউজিল্যান্ড দিঘলিয়ায় বোরো ধানের বাম্পার ফলনের আশা কৃষকের আশুলিয়ায় ট্যুরিস্ট পুলিশের অফিস উদ্বোধন ও মতবিনিময় সভা নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে প্র্রয়োজনে প্রার্থিতা বাতিল:ইসি আহসান হাবিব আশুলিয়ায় ট্যুরিস্ট পুলিশের অফিস উদ্বোধন ও মতবিনিময় সভা খুলনা মহানগরীর তেলিগাতীতে গ্রীলের তালা ভেঙ্গে দিনে-দুপুরে চুরি 
খুলনায়  বিএনপির থানা সম্মেলন বন্ধ করতে কেন্দ্রের হস্তক্ষেপ কামনা

খুলনায়  বিএনপির থানা সম্মেলন বন্ধ করতে কেন্দ্রের হস্তক্ষেপ কামনা

সৈয়দ জাহিদুজ্জামানঃ
মহানগর বিএনপির ৫ থানা সম্মেলন বন্ধ ও দলের অচলাবস্থা নিরসনে দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া ও ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন খুলনা মহানগর বিএনপির সাবেক নেতারা। তারা এই কমিটির বিরুদ্ধে বিভিন্ন অভিযোগ তুলে ধরে তা সমাধানে উদ্যোগী হওয়ার অনুরোধ জানিয়েছেন।
গত ১ মে মহানগর, থানা, ওয়ার্ড বিএনপি ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাদের যৌথ সভা থেকে এ অনুরোধ জানানো হয়। নগর বিএনপির উপদেষ্টা জাফরউল্লাহ খান সাচ্চু’র সভাপতিত্বে সভায় বিগত কমিটির সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু, সাধারণ সম্পাদক মনিরুজ্জামান মনিসহ ৫ থানার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক, নগর কমিটির সহ-সভাপতি, সম্পাদকমন্ডলীসহ ওয়ার্ড সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকরা উপস্থিত ছিলেন।
সভা শেষে মঙ্গলবার বিকালে নেতাদের পক্ষ থেকে সংবাদ বিজ্ঞপ্তি পাঠানো হয়। বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে, ‘দলের দু:সময়ে দলের প্রাণশক্তি খুলনার রাজপথের কার্যকর নেতৃবৃন্দকে বাদ দিয়ে গঠিত খুলনা মহানগর আহবায়ক কমিটির মেয়াদ তিনমাস হলেও দেড় বছরে কোনো থানা ও ওয়ার্ড কমিটি গঠন করতে পারেনি। এমনকী তারা প্রচলিত নিয়মকানুন রীতি ভঙ্গ করে থানা আহবায়ক কমিটি গঠন না করে সরাসরি ওয়ার্ড আহ্বায়ক কমিটি গঠন করেছে।
অধিকাংশ ক্ষেত্রেই বিএনপি’র উপযুক্ত লোক না পেয়ে অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মী যুক্ত করে কমিটি করা হয়েছে। আবার সেই ওয়ার্ডের সম্মলেন না করে পূর্ণাঙ্গ ওয়ার্ড গঠন না করে কাউন্সিলর বা ভোটার নির্ধারণ না করেই থানা সম্মেলনের উদ্যোগ গঠনতন্ত্র পরিপন্থী এবং গোঁজামিলের সামিল।’
বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘নেতাকর্মীদের আস্থাহীন মেয়াদোর্ত্তীণ ব্যর্থ বর্তমান আহ্বায়ক কমিটির নেতৃত্বে খুলনা বিএনপি আগামী আন্দোলন ও নির্বাচনের জন্য ঐক্যবদ্ধ বিএনপি গঠন সম্ভব নয়। দল গঠনে শুরু থেকে শত পরীক্ষায় উত্তীর্ন ত্যাগী, সৎ ও সাহসীদের বাদ দিয়ে বিতর্কিত, সমাজে অগ্রহণযোগ্য, অপরাধপ্রবণ, বিগত নির্বাচনগুলোতে সরকারি দলের পক্ষে সরাসরি কাজ করা ব্যক্তি ও ব্যক্তিবিশেষের আজ্ঞাবাহদের দিয়ে কমিটি গঠনের পদক্ষেপ দলের মাঠপর্যায়ের নেতাকর্মিদের মধ্যে ক্ষোভ ও হতাশার সৃষ্টি করেছে। ধার করা খুলনা বিএনপির উপর কেউ আস্থা রাখতে না পরায় দেড় বছরে কোন কমিটি গঠন করা সম্ভব হয়নি।’
সভায় দলের প্রতিষ্ঠাকালীন নেতৃবৃন্দ আরও অভিমত ব্যক্ত করেন যে, কেন্দ্রের দায়িত্ব হচ্ছে, একটি শক্তিশালী ঐক্যবদ্ধ বিএনপি গঠনে প্রয়োজনীয় ও কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করা। আমরা আশা করি কেন্দ্রীয় বিএনপি নির্বাচনের স্বার্থে আগামী আন্দোলন ও খুলনায় একটি ঐক্যবদ্ধ বিএনপি গঠন ও ব্যক্তি স্বার্থেও উর্দ্ধে দলে সৎ ও সাহসী নেতৃত্ব প্রতিষ্ঠা করবে।
সভা থেকে হাসপাতালে ভর্তি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় দোয়া করা হয়। এবং তাকে মুক্তি দিয়ে বিদেশে চিকিৎসার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থার দাবি জানানো হয়। এছাড়া বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে তার দেশে ফেরার সকল প্রতিবন্ধকতা দূর করার জোর দাবি জানানো হয়।
সভায় বক্তব্য রাখেন সাবেক সভাপতি নজরুল ইসলাম মঞ্জু, খুলনা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও বীর মুক্তিযোদ্ধা মনিরুজ্জামান মনি, মীর কায়সেদ আলী, শেখ মোশাররফ হোসেন, এড. ফজলে হালিম লিটন, শেখ ইকবাল হোসেন, শাহজালাল বাবলু, অধ্যক্ষ তারিকুল ইসলাম, অধ্যাপক আরিফুজ্জামান অপু, সিরাজুল হক নান্নু, আসাদুজ্জামান মুরাদ, এড. গোলাম মাওলা, মেহেদী হাসান দিপু, মহিবুজ্জামান কচি, ইকবাল হোসেন খোকন, আনোয়ার হোসেন, ইস্তিয়াক উদ্দিন লাবলু, নিজামুর রহমান লালু, সাদিকুর রহমান সবুজ, মো. শাহজাহান, ইউসুফ হারুন মজনু, নিয়াজ আহমেদ তুহিন, আবুল কালাম শিকদার, হাসান মেহেদী রিজভী, শরিফুল ইসলাম, তরিকুল্লাহ খান, মীর কবির হোসেন, ইশহাক তালুকদার, ওমর ফারুক, আকরাম হোসেন খোকন, রবিউল ইসলাম রবি, মহিউদ্দিন টারজান, মেজবাহ উদ্দিন মিজু, সরদার রবিউল ইসলাম, শরিফুল ইসলাম বাবু, শামসুজ্জামান চঞ্চল, রফিকুল ইসলাম শুকুর, আব্দুল জলিল, আব্দুল জব্বার, জাহিদ কামাল টিটো, মাহবুব হোসেন, এড. রফিকুল ইসলাম, নুরুল ইসলাম লিটন, আলমগীর হোসেন, রিয়াজুর রহমান, মাজেদা খাতুন, মোহাম্মদ আলী ও শাহনাজ পারভীন।
প্রসঙ্গত, গত ২৯ এপ্রিল খুলনা মহানগর বিএনপির নির্বাহী কমিটির সভায় থানা সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা করা হয়। আগামী ৮ মে থেকে ১১ মে পর্যন্ত পর্যায়ক্রমে সদর, সোনাডাঙ্গা, দৌলতপুর ও খানজাহান আলী থানা বিএপির সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত