শিরোনাম :
ঝিনাইগাতী গজনী অবকাশ কেন্দ্র বাসের চাপায় প্রাণ গেলো আইসক্রীম বিক্রেতার বর্ণাঢ্য আয়োজনে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন গাজীপুর জেলার পিকনিক ২০২৪  অনুষ্ঠিত সবসময়ই কালোকে কালো এবং সাদাকে সাদা বলে দৈনিক  যুগান্তর ভান্ডারিয়ায় স্মার্ট আই ডি  বিতরণ  মোরেলগঞ্জ ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে বসতঘর ভস্মিভূত, ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি খুলনায় আতাই নদী থেকে উদ্ধারকৃত মাহফুজকে বৈবাহিক কারণে স্ত্রীর স্বজনদের হাতে জীবন দিতে হয়েছে নওগাঁর মান্দায় নিভৃত পল্লী গ্রাম মশিদপুরে দিনব্যাপী বইমেলা বড়াইগ্রামে বর্ণিল আয়োজনে পিঠা উৎসব ও বসন্ত বরণ বাঘায় সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন  সীমান্তে হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতীকী লাশের মিছিল
গাজীপুরে স্বামী-স্ত্রী খুনের ঘটনায় ভাগ্নির জামাই এক বছর পর গ্রেফতার

গাজীপুরে স্বামী-স্ত্রী খুনের ঘটনায় ভাগ্নির জামাই এক বছর পর গ্রেফতার

নিজস্ব প্রতিনিধি : গাজীপুরে স্বামী-স্ত্রী খুনের ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে এক বছর পর তাদের ভাগ্নি জামাই মোঃ পলাশকে গ্রেফতার করেছে গাজীপুর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই’র) সদস্যরা। পলাশ গাজীপুর মহানগরের পূবাইল থানার সাপমারা এলাকার ইদ্রীস আলীর ছেলে এবং নিহত আবুল কালামের আপন ভাগ্নি জামাই। বৃহস্পতিবার (১ অক্টোবর) রাতে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে।নিহতরা হলেন, গাজীপুর মহানগর পূবাইল থানার বসুগাঁও এলাকার আবুল কালাম ও তার স্ত্রী পুতুল। এ ব্যাপারে নিহতের বোন হেলেনা আক্তার বাদী হয়ে গত বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর অজ্ঞাত আসামিদের অভিযুক্ত করে মামলা দায়ের করেন। জমি বিক্রির বায়নার জেরে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।
গাজীপুর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই’র) পরিদর্শক হাফিজুর রহমান জানান, আবুল কালামরা এক ভাই ও দুই বোন-সুফিয়া বেগম এবং হেলেনা বেগম। সুফিয়া বেগম স্বামী মানিক মিয়াকে নিয়ে বাবার বাড়িতেই বসবাস করতেন। ১০ বছর আগে সুফিয়া তার স্বামী, মেয়ে মুন্নি ও মনিকাকে রেখে মারা যান। সুফিয়া মারা যাওয়ার কয়েক বছর পর তার স্বামী মানিক মিয়া দ্বিতীয় বিয়ে করেন এবং স্ত্রীর রেখে যাওয়া ঘরেই দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে বসবাস করতে থাকেন। গত বছর আবুল কালাম ও তার বোন হেলেনা তাদের মৃত বোন সুফিয়ার রেখে যাওয়া ঘরটি জমিসহ (যে ঘরে মৃত সুফিয়ার স্বামী মানিক মিয়া দ্বিতীয় স্ত্রীকে নিয়ে থাকেন) বিক্রি করার জন্য বায়না করেন। এ নিয়ে মামা আবুল কালামের সঙ্গে শত্রুতা সৃষ্টি হয় তার ভাগ্নি ও ভাগ্নি জামাই পলাশদের সঙ্গে। পরে ওই ঘরটি যাতে বিক্রি করতে না পরে তার জন্য আবুল কালামকে খুনের পরিকল্পনা করেন ভাগ্নি জামাই পলাশ।গত বছরের ২৬ সেপ্টেম্বর ভোর রাতে পরিকল্পনা অনুযায়ী পলাশ তার সহযোগিদের নিয়ে কৌশলে রাতের বেলায় আবুল কালাম ও তার স্ত্রী পুতুলকে ঘুমন্ত অবস্থায় ডাক দেয়। তারা ঘুম থেকে উঠে দরজা খোলে। এরপর চোখে মরিচের গুঁড়া ছিটিয়ে দুই বছরের শিশু সন্তানের সামনে ধারালো চাপাতি দিয়ে মাথা ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে হত্যা করে। প্রতিবেশীরা ভিকটিমদের শিশু সন্তান সাফওয়ানের ডাক-চিৎকার শুনে ভোর ৫টায় আবুল কালামের ঘরে গিয়ে আবুল কালাম ও তার স্ত্রী পুতুলের মৃতদেহ মেঝেতে পরে থাকতে দেখে পুলিশে খবর দেয়।ঘটনার ২ মাস পর পুলিশ হেডকোয়ার্টারের নির্দেশে মামলাটির তদন্তভার গাজীপুর পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই’র) ওপর দেওয়া হয়। দীর্ঘ তদন্তের পর সাপমারা এলাকা থেকে পলাশকে আটক করা হয়। তাকে পিবিআই জেলা কার্যালয়ে নিবিড়ভাবে জিজ্ঞাসাবাদ করলে খুনের ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে এবং সহযোগিদের পরিচয় বলে দেয়। পরে তাকেসহ সহযোগিদের মামলায় অভিযুক্ত করা হয়। পলাশকে গাজীপুর মহানগরের সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে পাঠানো হলে সে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়। পরে আদালতের নির্দেশে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত