চরম লোডশেডিংয়ে অর্থনৈতিক ক্ষতির মুখে দিঘলিয়ার পাট শিল্প

চরম লোডশেডিংয়ে অর্থনৈতিক ক্ষতির মুখে দিঘলিয়ার পাট শিল্প

 সৈয়দ জাহিদুজ্জামান: অসহনীয় পর্যায় লোডশেডিংয়ে জনদুর্ভোগের পাশাপাশি খুলনার দিঘলিয়া উপজেলার পাট শিল্প প্রতিষ্ঠান খাতে চরম অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। এ বিরূপ প্রভাব নিয়ে শঙ্কার মধ্যে পড়েছেন এখানকার শ্রমিক ও সাধারণ মানুষ। সামগ্রিকভাবে দেশের অর্থনীতির ওপর পড়তে পারে বিরূপ প্রভাব।
সংশ্লিষ্ট সূত্র থেকে জানা যায়, দিঘলিয়া উপজেলার পাট শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোতেথে উৎপাদন হয় কাঁচা পাট থেকে বিভিন্ন প্রকার পাটজাত উপকরণ। এখানকার পাট শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোতে উৎপাদিত  পাট থেকে দামি ব্লেজারের সুতা তৈরি করা হয় যা প্রক্রিয়াজাত করে বিদেশে রপ্তানি করা হয়। অতিরিক্ত লোডশেডিংয়ের কারণে দিঘলিয়া বিদ্যুৎ সরবরাহ স্বাভাবিক না থাকায় হিমায়িত পাট প্রক্রিয়াজাতকরণ উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে।
দিঘলিয়ার ফরমাইশখানা গ্রামের কার্পেটিং মিল ব্যবসায়ী মোঃ হাবিবুর রহমান এ প্রতিবেদককে জানান, বিদ্যুতের লোডশেডিংয়ের কারণে এই খাত অর্থনৈতিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। খুচরা পাট ব্যবসায়ী মনিরুল ইসলাম এ প্রতিবেদককে জানান, লোডশেডিংয়ের অজুহাতে এ সকল পাট শিল্প প্রতিষ্ঠানগুলোতে অভ্যন্তরীনভাবে উৎপাদন বন্ধ থাকছে। ফলে ব্যবসায়িকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন ।
দেয়াড়া জুট টেক্সটাইল মিলের কর্মকর্তা (এ্যাডমিন) মোঃ শহিদুল আলম এ প্রতিবেদককে জানান, দিন-রাতে বেশ কয়েকবার বিদ্যুৎ যাওয়া-আসা করে। একবার বিদ্যুৎ গেলে অনেক সময় পরে আসে। প্রতিদিন ৪ ঘন্টা করে লোডশেডিং চলছে। লোডশেডিংয়ের কারণে মিলের উৎপাদন চালিয়ে রাখার জন্য জ্বালানি ডিজেল ব্যবহৃত হচ্ছে। ফলে উৎপাদন ব্যয় বেড়ে যাওয়ায় অর্থনৈতিক ক্ষতি সাধন হচ্ছে। ম্যান পাওয়ারেও সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে। যা বর্তমান ও আগামীতে উৎপাদিত পণ্য রপ্তানি ঘাটতি হবে, যা পরোক্ষোভাবে দেশের উপর প্রভাব ফেলবে।  যেভাবে বিদ্যুৎ যাচ্ছে তাতে কোনো ভাবেই ক্রেতাদের ঠিকমতো মাল দেওয়া যাবে না। আগামীতেও পাট জাত দ্রব্য চাহিদা পূরণ করা সম্ভব হবে না। তবে এটা রাষ্ট্রীয় সমস্যা আমাদের মেনে নিয়েই চলতে হবে।
দিঘলিয়ার আর একটি পাট শিল্প প্রতিষ্ঠান দিঘলিয়ার সেনহাটি সাগর জুট স্পিনিং মিল। এ মিলের ম্যানেজার এ্যাডমিন মোঃ রবিউল ইসলাম এ প্রতিবেদককে জানান, ঘন ঘন লোড শেডিং ও প্রতিদিন ৪ ঘন্টা লোডশেডিংয়ের কারণে শ্রমিক সমস্যা ও স্বাভাবিক উৎপাদন মারাত্নকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। যা বর্তমান ও আগামী দিনে পাটজাত পণ্যের রপ্তানি ঘাটতি দেখা দিবে।
এ এলাকার আর একটি প্রতিষ্ঠান দিঘলিয়া জামান জুট করপোরেশন। এ প্রতিষ্ঠানটির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোঃ রিপন মোল্লা এ প্রতিবেদককে জানান, দেশে প্রচণ্ড অনাবৃষ্টির কারণে দেশে কাঁচাপাট মারাত্নকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। মিলগুলো চালিয়ে রাখতে কাঁচাপাট ও জনবল সংকট দেখা দিতে পারে। স্বাভাবিক উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। আগামীতে রপ্তানি ঘাটতি হবে। যা দেশের উপর অর্থনৈতিক প্রভাব ফেলতে পারে।
  এদিকে লোডশেডিংয়ের কারণে এ জনপদের মানুষের জনজীবন দূর্বীসহ হয়ে পড়েছে। প্রচণ্ড গরম ও মশার উপদ্রবে মানুষের কাটছে নিদ্রাহীন রজনী। স্কুল-কলেজ পড়ুয়া ছাত্র-ছাত্রীদের লেখাপড়া ব্যাহত ও ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। শিক্ষার্থীরা সব ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়ছে। এ জনপদে হাটে-বাজারে, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে,সরকারি দপ্তরগুলোর দৈনন্দিন কর্মকান্ড, চিকিৎসা খাতসহ বিদ্যুৎ সরবরাহ না থাকার জন্য সকল কাজে গতি রোধ হচ্ছে। যা আগামী দিনে গোটা দেশের উপর অর্থনৈতিক বিরূপ প্রভাব ফেলতে পারে।
পিডিবির হিসাবে, গতকাল দিনের বেলায় সর্বোচ্চ লোডশেডিং হয়েছে ১ হাজার ৩৫৫ মেগাওয়াট। দুপুরের দিকে  খুলনা শহরে  ইলেকট্রিক সাপ্লাই কোম্পানির (ডেসকো) এলাকায় ঘাটতি বেড়ে যায়। গতকাল দুপুরে সর্বোচ্চ ২৩৫ মেগাওয়াট ঘাটতি পেয়েছে ডেসকো। ফলে অনেক এলাকায় ৩/৪ ঘণ্টার বেশি লোডশেডিং করতে হয়েছে। বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত আর লোডশেডিং করতে হয় রাতেও বাদ যায় না। খুলনা মহানগরী এলাকায় অনাবৃষ্টির তাপদাহ, প্রচণ্ড মশার উপদ্রব ও লোডশেডিংয়ের কারণে মানুষ ঘর থেকে বাড়ির আঙ্গিনায়, প্রধান ফটকের সামনে ও রাতে নিদ্রাহীন রজনী কাটাচ্ছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত