শিরোনাম :
জাতীয় স্মৃতিসৌধ এলাকা ২৬ মার্চকে ঘিরে নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা

জাতীয় স্মৃতিসৌধ এলাকা ২৬ মার্চকে ঘিরে নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা

রোমান হোসেন :

২৬ মার্চ,মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে জাতীয় স্মৃতিসৌধে কয়েক স্তরের নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। সেই সাথে এ বছর ড্রোন দ্বারা পুরো এলাকাটি মনিটরিং করা হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অ্যান্ড অবস) মো: আবদুল্লাহিল কাফী।

রবিবার (২৪ মার্চ) বিকেল ৪টা সময় সাভারের জাতীয় স্মৃতিসৌধের প্রধান ফটকের সামনে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ তথ্য জানান। এ সময় ঢাকা জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ক্রাইম অ্যান্ড অবস) আবদুল্লাহিল কাফী বলেন,আপনারা জানেন ২৬শে মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও মহামান্য রাষ্ট্রপতি এবং ভুটানের রাজা স্মৃতিসৌধে শ্রদ্ধা নিবেদন করতে আসবেন।

এ সময় তিনি আরও বলেন,২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবসকে ঘিরে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় সকল ধরনের ব্যবস্থা সম্পন্ন করা হয়েছে। নিরাপত্তার খাতিরে বহিরাগতদের ভেতরে ঢুকা এখন থেকে ২৬ মার্চ পর্যন্ত বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

এছাড়াও নিরাপত্তা বেষ্টিত এরিয়ায় কারা কারা অবস্থান করছেন,সেটা প্রযুক্তির মাধ্যমে চিহ্নিত করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। সিভিল পোশাকে একাধিক গোয়েন্দা সংস্থা নিরাপত্তা রক্ষায় কাজ করবেন। ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায় রাখা হয়েছে স্পেশাল ব্যবস্থা, যেন ওইদিন ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায় কোনো প্রকার অসঙ্গতি না থাকে,সে ব্যাপারে দেয়া হয়েছে ট্রাফিক বিভাগকে বিশেষ নির্দেশনা।

এছাড়াও বিভিন্ন কেন্দ্রিক আমাদের বড় একটি টিম কাজ করবে। এর বাহিরে এ বছর আমরা ড্রোন দ্বারা পুরো এলাকার পরিস্থিতি আমরা মনিটরিং করবো। আমাদের কন্ট্রোলরুম স্থাপন করা হয়েছে। সব মিলিয়ে প্রায় সাড়ে তিন হাজার পুলিশ সদস্য এই মহান স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষে নিরাপত্তায় কাজ করবে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বলেন, মহান স্বাধীনতা দিবস। এই দিবসকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন সংগঠন বিভিন্ন ধরণের অনুষ্ঠানের আয়োজন করে থাকে,তো সে রকম অনুষ্ঠান হতে পারে। তবে যেহেতু এটি রমজান মাস চলছে,তো সব কিছু আমাদের ঢাকা জেলা পুলিশ এখানে একটি ভালো সক্রিয় ভূমিকা রাখবে। কেন-না কোনো ধরণের বিশৃঙ্খলা বা নৈরাজ্য যেন কোথাও অনুষ্ঠিত না হয় সে লক্ষ্যে পুলিশ সচেষ্ট থাকবে।

এ সময় মো: আবদুল্লাহিল কাফী আরো বলেন,  মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও মহামান্য রাষ্ট্রপতি এবং ভুটানের যিনি রাজা উনারা আসবেন ভোর বেলা।  স্মৃতিসৌধের যে মেইন গেট তার আশপাশে,ওই সময় সাধারণ দর্শনার্থীরা থাকতে পারবেন না৷ তবে উনারা চলে যাওয়ার পরে সর্ব-সাধারণের জন্য এটি উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে সড়কের যে ব্যবস্থা সেটি নরমাল থাকবে। কেন না এখানে সাধারণ মানুষ শ্রদ্ধা নিবেদন করতে আসবেন। তারা যেন দ্রুত আসতে পারেন এবং দ্রুত ফিরে যেতে পারেন সে লক্ষ্যে ট্রাফিক পুলিশ কাজ করবে।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন,আশুলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এএফএম সায়েদ,ওসি ইন্টেলিজেন্ট মিজানুর রহমান,উপ-পরিদর্শক অমিতাভ চৌধুরী অমিত,উপ-পরিদর্শক বিপুল হোসেন ও ঢাকা জেলা পুলিশের বিভিন্ন কর্মকর্তাসহ প্রমুখ।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত