শিরোনাম :
কিশোর গ্যাং মোকাবেলায় প্রধানমন্ত্রী বিশেষ নির্দেশনা দিঘলিয়ার গাজীরহাট থেকে অজ্ঞাত ব্যক্তির লাশ উদ্ধার  নওগাঁ জেলা সাংবাদিক বন্ধু ফোরামের উদ্যোগে ইফতারী বিতরণ পূর্বাচল মানব কল্যাণ সংস্থা,র উদ্যোগে ৫ শতাধিক দুস্থদের মাঝে ঈদ উপহার  ভিসানীতি কঠোর করছে নিউজিল্যান্ড দিঘলিয়ায় বোরো ধানের বাম্পার ফলনের আশা কৃষকের আশুলিয়ায় ট্যুরিস্ট পুলিশের অফিস উদ্বোধন ও মতবিনিময় সভা নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করলে প্র্রয়োজনে প্রার্থিতা বাতিল:ইসি আহসান হাবিব আশুলিয়ায় ট্যুরিস্ট পুলিশের অফিস উদ্বোধন ও মতবিনিময় সভা খুলনা মহানগরীর তেলিগাতীতে গ্রীলের তালা ভেঙ্গে দিনে-দুপুরে চুরি 
জেরুজালেমে জোরপূর্বক ইহুদিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা: প্রেক্ষাপট ও বাস্তবতা

জেরুজালেমে জোরপূর্বক ইহুদিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা: প্রেক্ষাপট ও বাস্তবতা

রেজুয়ানুল হক:
বর্তমান বিশ্বের দীর্ঘস্থায়ী সঙ্কটগুলোর মধ্যে ফিলিস্তিন সঙ্কট অন্যতম। ১৯৪৮ সালের ১৪ই মে ফিলিস্তিনে আরবদেরকে বঞ্চিত করে জোরপূর্বক অবৈধ ইহুদি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে এই সঙ্কটের সূচনা হয়। বিশ্বমোড়লদের প্রত্যক্ষ সামরিক-কূটনৈতিক সহযোগিতায় এই সঙ্কট সৃষ্টি করা হলেও চতুর ইহুদি সম্প্রদায় এর সঙ্গে কল্পিত ধর্মীয় আবেগ মিশিয়ে দিয়েছে এবং এখন পর্যন্ত সফলভাবেই অগ্রসর হচ্ছে। তাদের দাবি হলো, তারা হিব্রু বাইবেল বা ওল্ড টেস্টামেন্টে বর্ণিত সেই জাতির সরাসরি উত্তরাধিকারী যারা মিশর থেকে সিনাই উপত্যকা হয়ে কেনান অঞ্চলে ফিরে এসেছিল। স্রষ্টা তাদেরকে ফিলিস্তিনে পুনর্বাসিত করবেন বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন। তাই তাদের ভাষ্যমতে ফিলিস্তিন তাদের জন্য ‘প্রমিজড ল্যান্ড’ বা ‘প্রতিশ্রুত ভূমি’। আর এই মিথ্যা ও সম্পূর্ণ রাজনৈতিক দাবির মাধ্যমেই সকল ইহুদির নিকট ফিলিস্তিনে একটি ইহুদি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার যৌক্তিকতা তুলে ধরা হয়। ইহদিদের কথিত এই ‘প্রমিজড ল্যান্ড’ এর দাবিটা কতটুকু যৌক্তিক তা দেখানোই সংক্ষিপ্ত এই আলোচনার উদ্যেশ্য।
ইহুদিদের উপর্যুক্ত দাবিটা দুইভাবে নিরীক্ষা করা যেতে পারে। ঐতিহাসিক ও ধর্মীয়ভাবে।
প্রথমত ঐতিহাসিকভাবে নিরীক্ষা করা হলো:
প্রফেসর এম এ কাউসার তার ‘মধ্যপ্রাচ্যের ইতিহাস’ গ্রন্থে বলেন যে, ‘ যীশু খ্রিষ্টের জন্মের প্রায় ৪০০০ বছর পূর্বে কেনানাইটরা ফিলিস্তিনে প্রথম বসতি স্থাপন করে। কেনানাইটরা ছিল নোয়ার (ইসলাম ধর্মাবলম্বীদের নিকট নূহ আ:) পৌত্র কেনানের বংশধর। কেনানের নামানুসারেই ফিলিস্তিনের প্রাচীন নাম হয় কেনান। খ্রিস্টপূর্ব উনিশ শতকে ইহুদিদের পূর্বপূরুষ আব্রাহাম (ইব্রাহীম আ:) ফিলিস্তিনে এসে বসতি স্থাপন করেন’। (পৃষ্ঠা: ১০২)।
হজরত ইব্রাহীম আ. ইরাক থেকে ৭৫ বছর বয়সে ফিলিস্তিনে হিজরত করেছিলেন। তাঁর ঔরসেই জন্মগ্রহণ করেন ইহুদিদের জাতির পিতা হজরত ইসহাক আ. (ইহুদিদে ভাষ্যমতে আইজাক)। হজরত ইসহাকের বয়স যখন ৬০ বছর তখন তার পুত্র ইয়াকুব আ. (ইহুদিদের ভাষ্যমতে জ্যাকব) জন্মগ্রহণ করেন। ইয়কুবের অপর নাম ইসরাইল। তার নামানুসারেই ইহুদিরাষ্ট্রটির নামকরণ করা হয় ইসরাইল।
ডক্টর ইউসুফ আল কারজাভী তার ‘জেরুজালেম: বিশ্ব মুসলিম সমস্যা’ গ্রন্থে দেখিয়েছেন যে, ইব্রাহীম ,তার পুত্র ইসহাক ও পৌত্র ইয়াকুব মিলে ২৩০ বছর ফিলিস্তিনে বসবাস করেছেন। তবে তারা এখানে ছিলেন বিদেশি । একখণ্ড ভূমির মালিকও ছিলেন না। এমনকি হজরত ইব্রাহীমের স্ত্রী হজরত সারা ইন্তেকাল করলে তাকে দাফন করার জন্য ফিলিস্তিনিদের নিকট অনুমতি প্রার্থনা করেছিলেন।
হজরত ইব্রাহীমের মৃত্যুর দুই থেকে আড়াইশো বছরের মধ্যে ফিলিস্তিনের ইহুদিরা মিশরীয়দের নিকট হয়ত পরাজিত অথবা দুর্ভিক্ষের শিকার হয়ে মিশরে চলে গিয়েছিল। এসময় তারা মিশরে ৪৩০ বছর বসবাস করেছিল।হজরত মুসা আ. তাদেরকে মিশরে দাসত্বের শিকল থেকে মুক্ত করে ফিলিস্তিনে নিয়ে আসার উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন কিন্তু তা ফলপ্রসু হয় নি। এ বিষয়ে পবিত্র কুরাআনে বিশদ বিবরণ আছে। হজরত মুসা আ. এর পর ইহুদিরা একদিন ফিলিস্তিনে ফিরে এসেছিল কিন্তু স্থানীয়দের সঙ্গে লড়াইয়ে টিকে নি। কখনো বসবাস করেছে আবার কখনো বিতাড়িত হয়েছে। ইহুদি রাজা সল, হজরত দাউদ আ. ও হজরত সুলাইমান আ. এর সময় ইহুদিরা ফিলিস্তিনে শান্তিতে বসবাস করেছিল বলে ঐতিহাসিকগণ উল্লেখ করেছেন। কিন্তু হজরত সুলাইমানের ইন্তেকালের পর ইহুদি জাতি বিভক্ত হয়ে যায়। এসময় ব্যবিলনের (বর্তমান ইরাক) রাজা নেবুচাদ নেজার জেরুজালেমে আক্রমণ করে ও ব্যাপক ধ্বংসযজ্ঞ চালায়। তিনি এখানকার অধিবাসীদের বন্দী করে ব্যবিলনে নিয়ে যান। এরপর এই অঞ্চল পর্যায়ক্রমে পারসিক,গ্রিক ও রোমানদের দ্বারা শাসিত হয়। খোলাফায়ে রাশেদার শাসনামলে হজরত ওমর রা. রোমানদের নিকট থেকে জেরুজালেম খেলাফতভূক্ত করেন। কট্টর রোমানদের শাসনামলে জেরুজালেম ছিল ইহুদিশূন্য। এখানে তাদের বসবাস নিষিদ্ধ ছিল। এমনকি রোমান ধর্মযাজক বেতরিকুল হজরত ওমরের নিকট জেরূজালেম হস্তান্তরের সময় শর্তারোপ করেন তিনি যেন এখানে ইহুদিদের বসবাসের অনুমতি না দেন। হজরত ওমর এই শর্ত মেনে নিয়েছিলেন এবং যুগ যুগ ধরে তা রক্ষা করা হয়েছে। আব্বাসীয় খেলাফতের সময় (৭৫০-১২৫৮) কথিত ক্রুসেডের (১০৯৫-১২৯১) মাধ্যমে একাদশ শতাব্দীর শেষে ইউরোপের সম্মিলিত খ্রিস্টান জোট জেরুজালেম দখল করেছিল। দীর্ঘ ৯০ বছর পর ১১৮৭ সালে সুলতান সালাহ উদ্দীন আইয়ুবি খ্রিষ্টানদের নিকট থেকে তা মুসলিম সাম্রাজ্যভূক্ত করেন।
উপর্যুক্ত আলোচনা থেকে এটি স্পষ্ট হয়ে যায় যে, ১৯৪৮ সালে জোরপূর্বক ইহুদিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পূর্ব পর্যন্ত ইহুদিরা কখোনোই ফিলিস্তিনে স্থায়ী মর্যাদা লাভ করে নি। বরং তারা ছিল বহিরাগত।ডক্টর ইউসফ আল কারজাভী শায়খ আব্দুল মুয়িজ আব্দুস সাত্তারের বরাত দিয়ে উল্লেখ করেছেন যে, ফিলিস্তিনে যতদিন তারা বিধ্বস্তকারী, লুটেরা ও যোদ্ধা হিসেবে বসবাস করেছে তা যদি যোগ করা হয় তবুও তা ইংরেজরা ভারতে এবং হল্যান্ডের অধিবাসী বা ডাচরা ইন্দোনেশিয়ায় যতদিন রাজত্ব করেছে তার সমান হবে না। এরফলে যদি কারও ঐতিহাসিক অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয় তাহলে ইংরেজরা ভারতে ডাচরা ইন্দোনেশিয়ায় তাদের মত দাবি করতে পারে।
ফিলিস্তিন ভূখণ্ডকে কেন্দ্র করে ইহুদিদের প্রমিজড ল্যান্ডের দাবিটা এসেছে অনেক পরে। ইহুদি রাষ্ট্রের স্বপ্নদ্রষ্টা থিওডোর হার্জেল (১৮৬০-১৯০৪) এই টার্মটি ব্যবহার করেছিলেন বিশ্বে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ইহুদিদের একটি কমন দাবিতে ঐক্যবদ্ধ করার কৌশলগত কারণে। আর এ ব্যাপারে তিনি শতভাগ সফল হয়েছেন। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে ইহুদিদের মানবেতর ও চরম বৈষম্যপূর্ণ জীবনযাপনে শঙ্কিত হয়ে তিনি একটি ইহুদিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার স্বপ্ন দেখেন।কিন্তু সেই রাষ্ট্র কোথায় হবে তা ঠিক করা ছিল না। প্রথমে তিনি মোজাম্বিকে একখণ্ড ভূমি পাওয়ার চেষ্টা করেন। এরপর ১৮৭৯ সাল থেকে ১৯০৪ সাল পর্যন্ত কঙ্গে, উগান্ডা, সাইপ্রাস ও আর্জেন্টিনায় ভূমি পাওয়ার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। এরপরেই তিনি কল্পিত ধর্মীয় আবেগ মিশিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন। উপর্যুক্ত ব্যর্থতা ছাড়াও এর একটি বিশেষ কারণ ছিল যে সমস্ত ইহুদিরা ইহুদিরাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পক্ষে ছিল না তাদেরকে কাছে টানা। এভাবেই মুসলমানদের প্রথম কেবলা জেরুজালেম নিয়ে ষড়যন্ত্র শুরু হয়।
এবার ধর্মীভাবে দাবিটির অসারতা প্রমাণ করা যাক।
বর্তমান ইহুদিরা দাবি করে যে, তাদের পূর্বপুরুষ আব্রাহাম ( হজরত ইব্রাহীম), আইজাক (হজরত ইসহাক), জ্যাকবকে (হজরত ইয়াকুব) স্রষ্টা প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন যে, তিনি তাদেরকে প্রতিশ্রুত ভূমি ফিরিয়ে দিবেন।তর্কের খাতিরে তাদের এই অযৌক্তিক দাবি মেনে নিলাম। তারপরও আরবরাই ফিলিস্তিন ভূখণ্ডের মালিক হওয়াটা সবচেয়ে যৌক্তিক। বংশধরের দুটো অর্থ হতে পারে। ১.ঔরসজাত সন্তান ও ২. নবীর উম্মত যারা তার উপর অর্পিত নবুওতে বিশ্বাসী। এখানে একটি বিষয় প্রণিধানযোগ্য যে, সাধারণ ব্যক্তির বংশধর ও কোন নবীর বংশধরে বিস্তর পার্থক্য আছে‌।একজন নবীর বংশধর সে কখনোই হতে পারবে না যে তার নবুওয়তকে স্বীকৃতি দেয় না। যেমন পবিত্র কুরআনে হজরত নুহ আ. স্বীয় পুত্র কেনানকে (যে হজরত নুহের উপর ঈমান আনে নি) স্বীয় পরিবারভূক্ত দাবি করলে আল্লাহ তায়ালা বলেছিলেন যে সে আপনার পরিবারভূক্ত নয়,কেননা সে দূরাচারী (সুরা হুদ)।
আল্লাহ তায়ালা বলেন যে, ‘মানুষের মধ্যে ইব্রাহীমের সাথে ঘনিষ্ঠতম সম্পর্কের অধিকারীতো তারাই যারা তাঁর অনুসরণ করেছে এবং এই নবী ও তাঁর উপর ঈমান আনয়নকারী ( সুরা আল ইমরান: ৬৮)।
আর ইহুদিরা যুগে যুগে তাদের প্রতি নবী-রাসুলদের অবাধ্য হয়েছে ও তাদের হত্যাও করেছে‌। হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে মাসুদ রা. থেকে বর্ণিত এক হাদিসে বলা হয়েছে তে, ইহুদিরা ৩০০ নবীকে হত্যা করেছে।হজরত মুসা আ. মিশর থেকে তাদেরকে ফিরিয়ে আনার সময় তুর পাহাড়ে আল্লাহর সঙ্গে সাক্ষাৎ করতে গেলে তারা নবীর কথা অমান্য করে একটি গোবৎসের পূজো শুরু করেছিল। পক্ষান্তরে আরব মুসলমানগণ হজরত ইব্রাহীম, হজরত ইসমাইল ও হজরত মুহাম্মদ সা. এর অনুসরণের মাধ্যমে হজরত ইব্রাহীম আ. কে প্রকৃত পূর্বপুরুষ হিসেবে মানার গৌরব অর্জন করেছে।পবিত্র কুরআনে হজরত ইব্রাহীমকে মুসলিম জাতির পিতা হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে। সুতরাং বংশধর দ্বারা যদি উম্মত অর্থ নেওয়া হয় তাহলে আরব মুসলমানগণই হবে হজরত ইব্রাহীমের প্রকৃত বংশধর।
আর বশধর দ্বারা যদি ঔরসজাত সন্তান অর্থ বোঝানো হয় তবুও আরব মুসলমিনগণই হবেন হজরত ইব্রাহীমের উত্তরাধিকার। হজরত ইব্রাহীমের দুই সন্তান ছিলেন। হজরত সারার গর্ভে হজরত ইসহাক ( ইহুদিরা যাকে জ্যাকব নামে জাতির পিতা মনে করে)। আর হজরত হাজেরার গর্ভে হজরত ইসমাইল। ইসহাকের উত্তরাধিকার ইহুদিরা যদি ফিলিস্তিনে বসতি স্থাপন করতে পারে তবে তার ভাই ইসমাইলের বংশধর আরবগণ কেন বঞ্চিত হবেন। স্রষ্টা ইসহাকের বংশধরদেরকে ইসমাইলের বংশধরদের ভূমিতে পুনর্বাসিত করার মত অন্যায় প্রতিশ্রুতি কি দিতে পারেন?
স্রষ্টা এই অন্যায় প্রতিশ্রুতি দিতে পারেন না। সুতরাং তাদের এই দাবিটা রাজনৈতিক ও কল্পিত যা মিথ্যা ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত।
ফিলিস্তিনে আরবদের বঞ্চিত করার নীলনকশা শুরু হয়েছে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন । ১৯১৭ সালে বৃটিশদের একতরফা ও চরম অন্যায়মূলক ‘বেলফুর ঘোষণা’ ছিল এর চূড়ান্ত পদক্ষেপ। উসমানীয় সাম্রাজ্যের প্রথম বিশ্বযুদ্ধে যোগদান ও অক্ষশক্তির পক্ষে যোগদান এবং যুদ্ধে তাদের নাজুক অবস্থা এই ঘোষণার পটভূমি তৈরি করেছিল। তবে এখানে বৃটিশদের পাশাপাশি একজন স্বদেশী মীর জাফরের ভূমিকা ছিল। তুরস্ক-কেন্দ্রিক উসমানীয় খিলাফত (১২৯৯-১৯২৪ খ্রি.) ছিল তখনকার বিশ্বের এক সুপার পাওয়ার। এশিয়া, ইউরোপ ও আফ্রিকার বিস্তীর্ণ অঞ্চলে এর শাসন ছিল কয়েক শতাব্দী ধরে। হিজাজ (মক্কা,মদিনা ও তায়েফ),শাম(সিরিয়া), ফিলিস্তিন, বায়তুল মাকদিস ও জর্ডান ছিল এই খিলাফতের অধীন। উসমানীয় খলিফা ১৯০৮ সালে হোসাইন ইবনু আলী নামক এক উচ্চাকাঙ্ক্ষী ব্যক্তিকে ‘শরীফে মক্কা’ উপাধি দিয়ে এই অঞ্চলের শাসক নিযুক্ত করেছিলেন। ১৯১৪ সালে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হলে চতুর বৃটিশ জাতি পশ্চিমা বিশ্বের ইহুদিদের সমর্থন লাভের আশায় ফিলিস্তিনে একটি ইহুদি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার প্রতিশ্রুতি দেয়। বৃটিশরা আরব অঞ্চলের শাসক বানানোর স্বপ্ন দেখিয়ে শরীফে মক্কাকে বিদ্রোহী হতে উস্কানি দেয়। বাদশা হবার স্বপ্নে বিভোর হয়ে তিনি ১০ জুন ১৯১৬ মক্কাস্থ মহল থেকে বন্দুকের গুলি চালিয়ে বিদ্রোহের সূচনা করে। তাকে সহযোগিতা করে বৃটিশরা। আরব অঞ্চল উসমানীয়দের হাতছাড়া হয়ে যায়।
প্রথম বিশ্বযুদ্ধ সমাপ্তির আগেই যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্স উসমানীয়দের সাম্রাজ্যের ভূমি বণ্টন বিষয়ক একটি চুক্তি করে যাতে রাশিয়ারও সম্মতি ছিল।এই চুক্তির নাম ‘সাইকস-পিকো চুক্তি’ সরকারিভাবে যা এশিয়া মাইনর চুক্তি বলে পরিচিত। এটি ছিল যুক্তরাজ্য ও ফ্রান্সের মধ্যকার একটি গোপন চুক্তি । প্রথম বিশ্বযুদ্ধে উসমানীয় সাম্রাজ্যের পরাজয়ের পর মধ্যপ্রাচ্যের নিয়ন্ত্রণ নিয়ে ত্রিপক্ষীয় আতাতের উদ্দেশ্য এতে বিবৃত হয়। ১৯১৫ সালের নভেম্বর থেকে ১৯১৬ সালের মার্চের মধ্যে এই চুক্তির আলোচনা চলে। ১৯১৬ সালের ১৬ মে এটির উপসংহারে পৌছায়।এরপরেই আসে বেলফুর ঘোষণা।
প্রথম বিশ্বযুদ্ধের পর একসময়ের তিন মহাদেশ ব্যাপী বিস্তৃত উসমানীয় সাম্রাজ্য আনাতুলিয়াতে (বর্তমান তুরস্ক) সীমাবদ্ধ হয়ে যায়। বিশ্বশান্তি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত হয় লীগ অব নেশনস বা জাতীপুঞ্জ। পশ্চিমা মদদপুষ্ট ও স্বার্থ রক্ষায় প্রতিষ্ঠিত এই প্রতিষ্ঠান মূলত বেলফুর ঘোষণা বাস্তবায়ন করতে ফিলিস্তিন অঞ্চলের ম্যান্ডেড দেয় বৃটিশদের। ???? (শিয়ালের) কাছে মুরগী বাগীর নামান্তর। প্রথম বিশ্বযুদ্ধ-উত্তর ফিলিস্তিনে বৃটিশ ম্যান্ডেড শাসন আরবদের সব খুইয়ে দিয়েছে।
১৯৩৯ সালে শুরু হলো দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ। ফিলিস্তিনে ইহুদি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার বিষয় নিয়ে আরব-ইহুদি বৈরিতা বেড়ে যায়। বৃটিশরা এই সুযোগে ম্যান্ডেড শাসন ছেড়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। ইতোমধ্যেই অবশ্য ইহুদিদের সামরিকভাবে শক্তিশালী করার কাজটিও বৃটিশরা করেছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলাকালীন প্রতিষ্ঠিত হয় জাতিসংঘ নামক এক নখদন্তহীন বাঘের। এর কাজ শুধু গভীরভাবে ঘটনা পর্যবেক্ষণ ও বিবৃতি প্রদান। বৃটিশ সরকার ফিলিস্তিনের উপর ম্যান্ডেড ছেড়ে দেয় ও জাতিসংঘকে এই ভূখণ্ডের ভাগ্য নির্ধারণের ভার দেয়। জাতিসংঘ ১৯৪৭ সালের ২৯ নভেম্বর আরবদের নাড়িপোঁতা ভূমি দুইভাগে বিভক্ত করে ইহুদি ও আরব রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব দেয়। আরবদের তীব্র বিরোধিতার পরও এই প্রস্তাব এগিয়ে যায়। উড়ে এসে জুড়ে বসা ইহুদি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার প্রস্তাব পেয়ে ইহুদিরা আনন্দে আত্মহারা হয়ে যায়। ১৪ মে ১৯৪৮ সালে বৃটিশরা আনুষ্ঠানিকভাবে ম্যান্ডেড শাসন তুলে নেয়। ঐদিনই ইহুদিরা ইসরাইল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ঘোষণা দেয়। ঘোষণা দেওয়ার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই প্রথম দেশ হিসেবে যুক্তরাষ্ট্র ইসরায়েলকে স্বীকৃতি দেয়। মনে হয় এরা স্বীকৃতি দেওয়ার অপেক্ষায় ছিল।
ইজরায়েল রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার পেছনে ইঙ্গ-মার্কিন ষড়যন্ত্র প্রধান ভূমিকা পালন করলেও শরীফ হোসাইনের মত কতিপয় মীর জাফরের বিশ্বাসঘাতকতা ও আরবদের অনৈক্য এর পেছনে কম দায়ী নয়।
আজ সেই ঐতিহাসিক ১৪ই মে। ফিলিস্তিনিরা আজ ‘নাকবা’ বা ‘বিপর্যয় দিবস’ পালন করবে। হাজার হাজার মাইল দূরে থেকে আমরা সমবেদনা জানাই। ফিলিস্তিনিদের হত্যার প্রতিবাদ জানাই, বিশ্বমোড়লদের জানাই ধিক্কার।
সূত্র:
১.মধ্যপ্রাচ্যের ইতিহাস – এম এ কাউসার
২.জেরুজালেম:বিশ্ব মুসলিম সমস্যা – ডক্টর ইউসুফ আল কারজাভি
৩.ইসলামের ইতিহাস – ডক্টর ইব্রাহিম আশ শারিকি
৪. বিশ্বাসঘাতকদের ইতিহাস – ইসমাইল রেহান
ইত্যাদি
লেখক:
প্রভাষক, শ্রীবরদী সরকারি কলেজ
শ্রীবরদী, শেরপুর

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত