শিরোনাম :
নরেন্দ্র মোদি পূণরায় ক্ষমতায় এলে ৬ মাসের মধ্যে কাশ্মিরকে ভারতের অংশ করা হবে সিরাজগঞ্জে চলতি বছরই সেতু দিয়ে চলবে ট্রেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত দিঘলিয়ায় মহি মল্লিকের নির্বাচনী নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে পুলিশী হয়রানীর অভিযোগ  নওগাঁয় গ্রামীন ব্যাংকের মত বিনিময় সভা-অনুষ্ঠিত  আশুলিয়ার শিমুলিয়ায় ভূমিদস্যুদের দখলে অসহায় মাসুদের জমি  আপনি বাংলাদেশ ব্যাংকে ঢুকবেন কেন সাংবাদিকেদের প্রশ্ন ওবায়দুল কাদেরের ইসরাইল হেরে যাচ্ছে: সাবেক গোয়েন্দা উপ-প্রধান শ্রীবরদীতে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার আশুলিয়ায় চায়না আদিবাসী নারী পাচার চক্রের বিরুদ্ধে মানববন্ধন
জেলার সরকারি-বেসরকারি প্রায় ৭০ ভাগ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নেই শহীদ মিনার

জেলার সরকারি-বেসরকারি প্রায় ৭০ ভাগ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নেই শহীদ মিনার

অজয় সরকার দুলু:
শহীদ মিনার। ভাষা আন্দোলনের প্রতিচ্ছবি। মাতৃভাষার জন্য জীবন উৎস্বর্গের প্রতীক। মায়ের ভাষায় কথা বলার অধিকার প্রতিষ্ঠাতার সাহসী চেতনা। যেই শহীদ মিনার দেখলে বিনম্র শ্রদ্ধায় মন জাগ্রত হয় রফিক, শফিক, সালাম, রবকত, জব্বারদের মতো ভাষাপ্রেমির রক্তমাখা দরদ, মমত্ত্ব আর ভালোবাসার দিকে।

গৌরবময় সেই ভাষা আন্দোলনের ৬৮ বছর পার হলেও এখনো রংপুর জেলার বেশিরভাগ প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে নেই স্থায়ী শহীদ মিনার। অন্তত জেলার সরকারি-বেসরকারি প্রায় ৭০ ভাগ প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নেই। একারণে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কলার গাছ, বাঁশ, কাঠ, আর কাগজ-কাপড়ে তৈরি করা অস্থায়ী শহীদ মিনারেই শ্রদ্ধা নিবেদন করতে হবে শিক্ষার্থীদের।

রংপুর জেলা প্রাথমিক শিক্ষা দপ্তর সূত্রে জানা গেছে, রংপুর জেলার ১ হাজার ৪শ’ ৫৮টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে মাত্র ৪শ’ ৯৫টিতে স্থায়ী শহীদ মিনার রয়েছে। বাকি ৯৬৩টি বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নেই।

এই পরিসংখ্যান সরকারি বিদ্যালয়ের ক্ষেত্রে হলেও জেলার বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও কিন্ডার গার্টেন স্কুলগুলোর বেশির ভাগই শহীদ মিনারহীন। তবে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস বলছে, আগামী বছরের মধ্যেই বাদ পড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শহীদ মিনার নিমার্ণ কাজ শেষ হবে।

পীরগাছার পরাণ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণরি ছাত্র মুনতাসির বলেন, আমাদের স্কুলে শহীদ মিনার নেই। প্রতিবছর টাউন হল চত্বরে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে গিয়ে শ্রদ্ধা নিবেদন করি। স্কুলে শহীদ মিনার থাকলে আমরা এখানে দিবস পালন করতে পারতাম।

একই কথা বলেন নগরীর আলমনগর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, কামারপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পীরগাছার ব্রাহ্মনি কুন্ডা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, তারাগঞ্জের ইকরচালী মাঝাপাড়া বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এদের অনেকেই কয়েক কিলোমিটার দূর থেকে পায়ে হেটে গিয়ে শহীদ মিনারে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন।  

তারাগঞ্জ ইকরচালী মাঝাপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস এলে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে অস্থায়ীভাবে শহীদ মিনার বানিয়ে শ্রদ্ধাঞ্জলি দেয়া হয়। এছাড়াও ক্ষুদে শিক্ষার্থীরা কলাগাছের শহীদ মিনার তৈরি সেখানে ফুল দিয়ে থাকেন।

এদিকে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার না থাকা প্রসঙ্গে বাংলার চোখ এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান তানবীর হোসেন আশরাফী বলেন, শিশুদের সামনে ভাষা আন্দোলনের ইতিহাস তুলে ধরতে শহীদ মিনার প্রথম সিড়ি। আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে সহ বায়ান্ন থেকে একাত্তরের আন্দোলন সংগ্রামের সঠিক ইতিহাস জানানোর ক্ষেত্রে শহীদ মিনার একটা গুরুত্বপূর্ণ চেতনার বাহক।

অন্যদিকে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. তুহিন ওয়াদুদ বলেন, স্বাধীনতার দীর্ঘ সময় পার হলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোতে শহীদ মিনার নির্মিত না হওয়া দুঃখজনক। অথচ শহীদ মিনার আমাদের গৌবর গাঁথার প্রতিক। নব প্রজন্মের মনে ভাষা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বীজ ছড়িয়ে দিতে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার  নির্মাণ করা জরুরি।

এসময় তিনি আরও বলেন, শুধু প্রাথমিকে নয়, দেশের প্রত্যেকটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শহীদ মিনার থাকা দরকার। আজকের প্রজন্মই যেহেতু আমাদের ভবিষ্যৎ এদেশের ইতিহাস জানাতে শহীদ মিনারের প্রয়োজন রয়েছে।

 এ প্রসঙ্গে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা শাহজাহান সিদ্দিকী এই প্রতিনিধিকে জানান, যেসব বিদ্যালয়ে শহীদ মিনার নেই, তার একটা তালিকা করা হয়েছে। অনেক জায়গাতে শহীদ মিনার নির্মাণ কাজও চরছে। আগামী বছরের মধ্যেই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে শতভাগ স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হবে বলেও তিনি জানান।  

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত