শিরোনাম :
শ্রীবরদীতে গ্রাম আদালত কার্যক্রম অগ্রগতি বিষয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত নরেন্দ্র মোদি পূণরায় ক্ষমতায় এলে ৬ মাসের মধ্যে কাশ্মিরকে ভারতের অংশ করা হবে সিরাজগঞ্জে চলতি বছরই সেতু দিয়ে চলবে ট্রেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত দিঘলিয়ায় মহি মল্লিকের নির্বাচনী নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে পুলিশী হয়রানীর অভিযোগ  নওগাঁয় গ্রামীন ব্যাংকের মত বিনিময় সভা-অনুষ্ঠিত  আশুলিয়ার শিমুলিয়ায় ভূমিদস্যুদের দখলে অসহায় মাসুদের জমি  আপনি বাংলাদেশ ব্যাংকে ঢুকবেন কেন সাংবাদিকেদের প্রশ্ন ওবায়দুল কাদেরের ইসরাইল হেরে যাচ্ছে: সাবেক গোয়েন্দা উপ-প্রধান শ্রীবরদীতে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
তাপদাহের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বিদ্যুতের ভয়াবহ লোডশেডিং, দক্ষিণাঞ্চলের জনজীবন অষ্ঠাগত

তাপদাহের সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বিদ্যুতের ভয়াবহ লোডশেডিং, দক্ষিণাঞ্চলের জনজীবন অষ্ঠাগত

সৈয়দ জাহিদুজ্জামানঃ
খুলনা অঞ্চলে তাপমাত্রা বাড়ছে। ৪২ ডিগ্রী ছুঁই ছুঁই তাপমাত্রায় পুড়ছে মানুষ, সবুজ প্রকৃতি, ফসল ও ইরিধান। ঝরে পড়ছে আমের গুটি, নষ্ট হচ্ছে লিচুসহ শাকসবজির ক্ষেত। রুক্ষ আবহাওয়ায় গাছের পাতাও যেন নড়ছে না। সে সাথে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে বিদ্যুতের লোডশেডিং।
বিদ্যুৎ যাওয়ার পর আসার নাম নেই। রোজা মানুষ বিদ্যুৎবিহীন অবস্থায় কাহিল হয়ে পড়েছে। ২৫ রমজান, ২৬ রমজান ও রমজানে রাত্রী জাগারণ করতে আশা মুসাল্লীগণ সবচেয়ে বেশী সমস্যায় পড়েছেন। বিদ্যুৎ যাওয়ার পর ১ ঘন্টা/ দেড় ঘন্টা পর আসে কিছুক্ষণ থাকার পর আবার চলে যায়। মানুষের জামা, পাঞ্জাবীসহ পরিধানের সকল বস্ত্র ভিজে যায়। নফল নামাজ, কুরআর পড়তে পারছেনা। দিঘলিয়া উপজেলার ফরমাইশখানা মোল্যা বাড়ি মসজিদ কমিটির সদস্য মোল্লা কামরুল ইসলাম রাত্রী জাগারণ করতে এসে বিদ্যুৎ না থাকায় মসজিদ থেকে বেরিয়ে বেশ কয়েকজনকে নিয়ে রাস্তায় দাঁডিয়ে ছিলেন। তিনি এ প্রতিবেদককে জানান, বিদ্যুৎ আসে ফের চলে যায় ঘন্টার পর ঘন্টা বিদ্যুৎ আসার নাম কথা নেই। অন্তত রাত জাগার দিন বিদ্যুৎ ঠিকভাবে দিলে মানুষ ভালভাবে আল্লাহর প্রার্থনা করতে পারেন। তারাবি, ফরজ নামাজের সময় লোডশেডিং নিয়মে পরিনত হয়েছে। এখান থেকে মানুষ পরিত্রাণ পেতে চাই। এ বিদ্যুৎ বিভাগসহ সরকারের উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করি। একই মন্তব্য করেন মুসল্লী কামাল হোসেন, মুন্সী রবিউল ইসলাম, মোঃ মুজিবর রহমান ও মনিরুল ইসলাম। সকালের সূর্য উদয় হচ্ছে আগুনের ফুলকা নিয়ে। দশটার মধ্যেই উত্তপ্ত হচ্ছে আবহাওয়া। সময় যত গড়ায় তাপদাহ ততই বাড়তে থাকে।
বেশী সমস্যায় পড়েছে টিনের চালার ঘরে বসবাসকারী মানুষ। তাপ যেন টিন চুইয়ে নীচে নামছে। ফলে ঘরে থাকাও যেন দায় হয়ে পড়েছে। তাপদাহের কারণে ফুটপাত ব্যবসায়ীরা ঘরে ফিরলেও সেখানেও স্বস্তি নেই। বড় বড় দালানকোঠা ছাদের উপরের পানির ট্যাঙ্কিও ফুটন্ত পানির আদলে পরিণত হচ্ছে। রাস্তার পিচ গরমে গলে হালকা ভারী যানবাহনে চাকা পিচে দেবে যাচ্ছে। প্রচন্ড গরমে হাঁ-হুতাস করছে মানুষ, পশু পাখি। একটু স্বস্তি মিলছে না কোথাও। সবাই চেয়ে আছে আল্লাহর রহমতের বৃষ্টির দিকে।
এদিকে তীব্র তাপদাহের কারণে খুলনা মেডিক্যাল কলেজ হাসাপাতালে বেড়েছে ডায়রিয়াসহ নানা রোগ-বালাইয়ে আক্রান্ত রোগীদের সংখ্যা। বিশেষ করে হাসপাতালের শিশু ওয়ার্ডে যেন পা ফেলার জায়গা নেই। বেডে ফ্লোরে সবখানেই গরমজনিত কারণে রোগী আর রোগী। একদিকে স্বাভাবিক রোগী অন্যদিকে গরমজনিত রোগীর চিকিৎসা দিতেও হিমশিম খেতে হচ্ছে চিকিৎসকদের।
নাম না প্রকাশ না করা শর্তে একজন এমবিবিএস ডাক্তার জানান, খুলনার তাপমাত্রা কেবলই বাড়ছে। এতে ঘরে ঘরে আবার ডায়রিয়া, হিটস্ট্রোক, হিস্টিরিয়া, জ্বর, সর্দি-কাশিসহ বিভিন্ন উপসর্গে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। এসব রোগে বৃদ্ধলোক ও শিশুরাই বেশি আক্রান্ত হচ্ছে। পাশাপাশি উচ্চ রক্তচাপে আক্রান্তদের দুর্ভোগ বেড়েছে এ তীব্র গরমে। তাই এ সময় বয়বৃদ্ধ ও শিশুদের রোদে না বের হয়ে ঠান্ডা পরিবেশের মধ্যে থাকার জন্য বলেন। এছাড়া বিশুদ্ধ পানি, ডাব ও দেশি ফলমূল বেশি খাওয়ার পরামর্শ দেন এই চিকিৎসক। দিঘলিয়ার ফরমাইশখানার রিকশা চালক মোঃ সিরাজুল ইসলাম বলেন, রেলীগেট থেকে যাত্রী নিয়ে বেলা ১১টার দিকে খালিশপুর চিত্রালী বাজারের সামনে পৌঁছান তখন তার মাথা শরীর ঘেঁমে যাচ্ছিল, রিকশাচালক বড় টায়ার্ড । তিনি এবার গরমের কষ্টটা একেবারেই মাত্রাছাড়া, অসহনীয়। তিনি বলেন, ‘একবার খ্যাপ টানলেই গরমে কাহিল হয়ে পড়ি। গরমে রিকশা টানতে গেলেই কলিজা শুকাইয়া যায়। এত গরম আমার জন্মে দেখি নি। আগে দিনে ৭শ থেকে ১ হাজার টাকা কামাই করতে পারতাম। এখন ৫ শ থেকে ৭শ’ টাকার বেশি হয় না। ভ্যান চালক সলেমান একবার ভাড়া নিয়ে গিয়ে আর একবার খালি ভ্যান নিয়ে আসতে হয়। গরমের কারণে মানুষ রাস্তায় বের হয় না। শুধু রিকশাচালক সিরাজ ভ্যানচালক সলেমান নয়, প্রচন্ড এই গরমে এমন আরো অনেকেরই আয় কমে গেছে। কৃষি শ্রমিক গোলাম মোস্তফা বলেন, কাজ নেই একদিন কাজ পেলে অন্যদিন বসে থাকতে হয়। জমানো টাকাগুলোও শেষ হয়ে গেল। ফলের দোকান নিয়ে বসে আছেন শাহ আলম। তিনি বলেন, তাপদাহে লোকজন রাস্তা ঘাটে অনেক কম। বেচা-বিক্রি আগের অর্ধেকে নেমে এসেছে। রোজার দিন বলে বিকেলের দিকে কিছুটা বিক্রি হয়। গরমের মধ্যে সারাদিন বসে থেকেও সে রকম ব্যবসা হয় না।
সৈয়দ জাহিদুজ্জামান ০১৭২১০৪৭৬৮০।। খুলনা শহীদ হাদিস পার্কে বৃষ্টির জন্য ইসতেখার নামাজ আদায় করছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত