শিরোনাম :
দিঘলিয়ার পদ্মবিলা খালের ব্রীজ এখন এ এলাকার মানুষের মরণ ফাঁদ

দিঘলিয়ার পদ্মবিলা খালের ব্রীজ এখন এ এলাকার মানুষের মরণ ফাঁদ

সৈয়দ জাহিদুজ্জামান:
দিঘলিয়া উপজেলার পদ্মবিলা গ্রামের খালের ব্রীজটা বর্তমানে এ অঞ্চলের মানুষের জন্য মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে।  এলাকার বহুকাল আগে নির্মিত এ কাঠের ব্রীজটা এতটায় জরাজীর্ণ হয়ে পড়েছে যে মানুষের পারাপারে ঝুঁকি পূর্ণ হয়ে পড়েছে।
এলাকার বিভিন্ন স্তরের লোকজন সূত্রে জানা যায়, দিঘলিয়া উপজেলার গাজীরহাট ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের একটি গ্রামের নাম পদ্মবিলা। এ গ্রামের মাঝ দিয়ে প্রবাহিত খাল। উক্ত খালের ওপর বহু বছর আগে নির্মাণ করা হয় লোহার রেলিং দিয়ে ব্রীজ। যে ব্রীজের উপর দেওয়া ছিল সিমেন্ট ঢালাই স্লিপার। যেগুলো এখন ভেঙ্গে পড়ে খাদ খাদ হয়ে পড়ছে। উক্ত ব্রীজ পার হয়ে পদ্মবিলা গ্রামের লোকজন প্রতিনিয়ত মসজিদে নামাজ পড়তে যাতায়াত করে। বিদ্যালয়ের শিশুরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিদ্যালয়ে যায়। লাশ নিয়ে ঝুঁকি নিয়ে মাঝে মাঝে ফাঁকা জায়গা পার হয়ে কবরস্থানে যেতে হয়। রাতের আঁধারে ব্রীজটা পার হওয়া আরো ঝুঁকিপূর্ণ। তবুও গ্রামবাসীর প্রয়োজনের তাগিদে নিত্যদিন উক্ত জীবনের ঝুঁকি মাথায় নিয়ে উক্ত ব্রীজটা পার হচ্ছে।
এ ব্যাপারে কথা হয় দিঘলিয়া উপজেলার ১ নং গাজীরহাট ইউনিয়নের ৪ নং ওয়ার্ডের সাবেক ইউপি সদস্য মোঃ ইরানের সাথে। তিনি পদ্মবিলা মানুষের জন্য এ ব্রীজটা মরণ ফাঁদ উল্লেখ করে এ প্রতিবেদককে জানান, ব্রীজটি খুবই জনগুরুত্বপূর্ণ। আশু ব্রীজটা মেরামতের দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ নেওয়া এলাকার জনপ্রতিনিধিসহ উপজেলা প্রশাসনের পদক্ষেপ জরুরী। নচেৎ এ ব্রীজ দিয়ে প্রতিনিয়ত লোকজন ঝুঁকি পূর্ণ পরিবেশে পারাপার হচ্ছে। আগামী দিনগুলোতে এখানে বড় কোনো দুর্ঘটনায় লোকজনের জানমালের ক্ষয়ক্ষতি হলে কোনো মহলই তার দায় এড়াতে পারবেন না এমনই অভিমত ব্যক্ত করেছেন তিনি।
উক্ত এলাকার সোহাগ মুন্সী ও আঃ হালিম সরদার বলেনসহ এলাকাবাসী এ প্রতিবেদককে জানান, তারা এ ব্যাপারে গাজীরহাট ইউনিয়নের সাবেক ও বর্তমান চেয়ারম্যানসহ সকল মহলকে ব্রীজটার বর্তমান বেহাল অবস্থা ও এলাকার মানুষের জন্য মরণ ফাঁদ উল্লেখ করে জানানো হয়েছে। কিন্তু তারা কোনো প্রতিকার  পায় নি এমনটাই জানিয়েছেন এলাকার ভুক্তভোগী মহল। তারা এ ব্যাপারে প্রতিকার চেয়ে স্থানীয় সকল স্তরের জনপ্রতিনিধিদের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত