শিরোনাম :
ঝিনাইগাতী গজনী অবকাশ কেন্দ্র বাসের চাপায় প্রাণ গেলো আইসক্রীম বিক্রেতার বর্ণাঢ্য আয়োজনে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন গাজীপুর জেলার পিকনিক ২০২৪  অনুষ্ঠিত সবসময়ই কালোকে কালো এবং সাদাকে সাদা বলে দৈনিক  যুগান্তর ভান্ডারিয়ায় স্মার্ট আই ডি  বিতরণ  মোরেলগঞ্জ ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে বসতঘর ভস্মিভূত, ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি খুলনায় আতাই নদী থেকে উদ্ধারকৃত মাহফুজকে বৈবাহিক কারণে স্ত্রীর স্বজনদের হাতে জীবন দিতে হয়েছে নওগাঁর মান্দায় নিভৃত পল্লী গ্রাম মশিদপুরে দিনব্যাপী বইমেলা বড়াইগ্রামে বর্ণিল আয়োজনে পিঠা উৎসব ও বসন্ত বরণ বাঘায় সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন  সীমান্তে হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতীকী লাশের মিছিল
নওগাঁয় ২ প্রতিবন্ধী মেয়েদের নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন অসহায়-মা

নওগাঁয় ২ প্রতিবন্ধী মেয়েদের নিয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন অসহায়-মা

হাবিব : নওগাঁ জেলার মহাদেবপুর উপজেলার ভীমপুর ইউনিয়নের ৭ নং ওয়ার্ডের গোয়ালবাড়ী গ্রামে এক দরিদ্র পরিবার ২ কন্যা সন্তানের ২ জনই শারীরিক প্র্রতিবন্ধী হওয়ায় পরিবারটি মানবেতর জীবন-যাপন করছে।উক্ত গ্রামের মৃত. ফজলুর রহমানের স্ত্রী মঞ্জুআরা হতদরিদ্র প্রতিবন্ধী ২ কন্যা, মোছা: রেনুকা বেগম(২২), মোছাঃ মিনা বানু (২০)কে নিয়ে স্বামীর রেখেযাওয়া ঐ মাটির বাড়ী বসবাস করছিলো। গত কয়েক দিনে অতি ভারী বৃষ্টির কারনে পুরনো মাটির বাড়িটি গত ২৬/০৯/২০২০ ইং তারিখে শনিবার সকালে ধ্বসে পরে তাদের মা মঞ্জুআরা আঘাত প্রাপ্ত হয়ে হাত ভাঙ্গার কারনে পরিবারটি মানবেতর জীবন যাপণ করছেন।জানা যায়, ঘরে প্রতিবন্ধী মেয়েদের নিয়ে কোন রকমে পড়ে থাকতে হয়। এখন থাকার বাড়িটিও ধ্বসে পড়ায় রাত কাটছে ভাঙ্গা বাড়িতে দেখে দেখে। সামনে ছোট পরিসরের সেঁতসেঁতে আঙিনা। বসে থাকার মত অবস্থাও নেই, প্রতিবন্ধী মেয়েরা কেউই সাভাবিক ভাবে হাঁটতে পারেন না, গড়িয়ে গড়িয়ে চলাফেরা করতে হয়। তাদের সে গাড়িও নেই। এভাবে চলতে চলতে ২ বোনের এক ছোট বোন ভালো করে কথা বলতে পারে না । জমি জমা নেই তাদের বসত ভিটাটুকুই একমাত্র সম্বল, সেটুকুও ভারী বৃষ্টির কারনে ভেঙ্গে গেছে। বৃদ্ধ মা যেন দুই প্রতিবন্ধী মেয়েকে নিয়ে অসহায় হয়ে পড়েছেন। বেশিরভাগ সময়ই সকাল থেকে রাত মেয়েদের সেবাযত্ন নিতে ব্যস্ত থাকতে হয় তার মাকে। প্রতিবন্ধী ২ কন্যার দেখভালের করতেন তাদের মা, তাদের মায়ের হাত ভেঙ্গে যাওয়ায় এখন ঠিকমতো কোন কাজেও যেতে পারছেন না। প্রতিবন্ধী মেয়েদের গোসল, খাওয়া-দাওয়া, প্রকৃতির কাজ সব কিছুই সামলাতে হতো তাদের মা’কে।  এখন সব কিছুই স্থবির হয়ে পড়েছে।প্রতিবন্ধী ভাতা ও মানুষের আর্থিক সহায়তায় অর্ধহারে অনাহারে চলে তাদের দিন। এরই মধ্যে ভারী বৃষ্টির জন্য ভেঙ্গে গেছে থাকার ঘর, তাই,,,,,বর্তমানে রাত খোলা আকাশের নিচে মানবেতর জীবন পার করছেন প্রতিবন্ধী সন্তান ২টিকে নিয়ে বৃদ্ধা অসহায় মা। প্রতিবন্ধী মোছা: রেনুকা বেগম বলেন, আমরা অসহায় ও দুঃখী মানুষ, খেয়ে না খেয়ে বেঁচে আছি। এখন অন্যের সহযোগিতা ছাড়া আমাদের বেঁচে থাকাই দায় হয়ে পড়েছে।আরো বলেন, মা’র কষ্ট সহ্য করতে পারি না। এখন মা’র বয়স হয়েছে। মা’র হাত ভেঙ্গে যাওয়ায় আমাদের টানা হেঁচড়া করতে তার কষ্ট হয়। তার এই কষ্ট দেখে মরে যেতে ইচ্ছা হয়।তার মধ্যেই কয়েক দিনের ভারী বর্ষার কারণে আমাদের থাকার বাড়িটিও ভেঙ্গে যাওয়ার অসহায় হয়ে পড়েছি। সরকার যদি আমাদের থাকার জন্য এটি বাড়ি দেখাশুনার কোন ব্যবস্থা করে দিত,তাহলে অসহায় মা’র কষ্ট কমে যেত বলে কান্নায় ভেঙ্গে পরে প্রতিবন্ধী রেনুকা।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত