শিরোনাম :
তজুমদ্দিনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর উপর হামলা,আটক ৩ সাগরে তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, দশ নম্বর মহাবিপদ সংকেত  নাটোর ০৪ আসনের সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের মানববন্ধন কেন্দুয়ায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে একজনের মৃত্যু  ফরিদপুরে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‌ ১২৫ তম  জন্মবার্ষিকী পালিত  পূর্ব তিমুরের মতো খ্রিষ্টান দেশ বানানোর চক্রান্ত চলছে এমপি আনার হত্যায় জিহাদের লোমহর্ষক বর্ণনা সাগরে তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, সাত নম্বর বিপদ সংকেত  বড়াইগ্রামে সাংবাদিকদের নিয়ে এমপি’র আপত্তিকর বক্তব্য, সর্বত্র ক্ষোভ   সাতক্ষীরায় পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় এক কলেজ ছাত্রসহ দুই জনের মৃত্যু
নওগাঁ বলিহার শরির মোড়ে গৃহবধুকে হত্যা করে গলায় ওরনা দিয়ে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ

নওগাঁ বলিহার শরির মোড়ে গৃহবধুকে হত্যা করে গলায় ওরনা দিয়ে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ

ভ্রাম্যমান প্রতিনিধিঃ নওগাঁ সদর উপজেলার বলিহার ইউনিয়নের শরির মোড়ে সাদেকুল ইসলামের দিত্বীয় স্ত্রী সালমা খাতুনকে গত ০৬/০২/২০২০ ইং তারিখে রাত্রী অনুমান ১টার পরে নির্যাতন করে মেরে ফেলে, গালায় ওরনা পিচিয়ে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ বিষয়ে নওগাঁ সদর মডেল থানায় মৃতঃ ছালমার বাবা, বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ ছাত্তার বাদী হয়ে ৪ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন।বাদী, এলাকাবাসী ও মামলা সুত্রে জানা যায়, প্রায় ১ বছর পুর্বে শরির মোড়ের মৃত- কফির উদ্দীনের বখাটে ছেলে মোঃ সাদেকুলের সাথে দক্ষিন মৈনম ( খলিশাকুড়ী) বীর মুক্তিযোদ্ধা আঃ ছাত্তারের মেয়ে ছালমা খাতুনের বিয়ে হয়। বিয়ের কিছুদিন পর থেকে সাদেকুল যৌতুক হিসেবে ৮০,০০০ (আশি হাজার) টাকা দাবী করে প্রায়ই মার-পিট নির্যাতন করতো। সালমা স্বামীর সংসার করার জন্য তার অত্যাচার নির্যাতন সহ্য করে যেত। দিন দিন অত্যাচারের মাত্রা বাড়িয়ে দিয়ে সাদেকুল বড় স্ত্রী মোছাঃ সাবানাকে সঙ্গে নিয়ে মারপিট নির্যাতন করতো। এরপর হত্যার সপ্তাহ দুই আগে ছালমা খাতুন স্বামী সাদেকুল ও তার বড় বউ সাবানা ও তার ভাই সাইফুলকে আসামী করে, মারপিট, নির্যাতন করার কারনে নওগাঁ সদর মডেল থানায় গত ১৮/০১/২০২০ ইং তারিখে একটি অভিযোগ করেছিলো। শালিশী ও আইনী সহায়তা মানবাধিকারেও একটি দরখ্যাস্ত করে ছিলো। দরখ্যাস্ত পেয়ে, মানবাধীকার অফিসার মোঃ শফিকুল ইসলাম সহকর্মী সহ সাদেকুলের বাড়ীতে গিয়ে ছিলো এবং তাদের সবার কথা বার্তা শুনে, আপোষের লক্ষে চেষ্টা করে ছিলেন। এর পর সাংবাদিকদেরও বিষয়টি জানানো হয়, জাতীয় দৈনিক স্বাধীন সংবাদ ও জাতীয় দৈনিক আজকের আলোকিত সকাল পত্রিকার সাংবাদিক হাবিব তাদের কাছে গিয়ে তাদের কথাবর্তা শুনে। সালমা খাতুন, স্বামী সাদেকুল এবং সত্বীন সাবানার বিরুদ্ধে বহু কথা বলে এবং তারা আপোষ হয়েছে বলেও জানায়। মামলার বাদী সালমার বাবা জানায়, হত্যা হওয়ার কিছু দিন আগে সালমা তার কাছে জানায়, আসামী ১/ সাদেকুল (৩৬) পিতা- মৃতঃ কফির উদ্দীন মন্ডল, ২/ মোঃ ফারুক হোসেন (৩৩) পিতা-মৃতঃ মজিবর মন্ডল, ৩/ মোছাঃ সাবানা (২৬) স্বামী- সাদেকুল ইসলাম, ৪/ মোঃ নজরুল ইসলাম শাহানা (৬০) সালমাকে আবারও আশি হাজার টাকা, বাবার বাড়ী থেকে নিয়ে আসার জন্য মারপিট, নির্যাতন করেছে। এরপর ঘটনার রাতে গত ০৬/০২/২০২০ ইং তারিখে রাত্রী অনুমান ১ঃ০৩ ঘটিকায় সালমা ০১৩০৮-৪৪৮৭৭৯ নং থেকে তার বাবার ব্যবহৃত ০১৭৪৩-৮৬৯০৪৩ ফোন দিয়ে উক্ত আসামী ৪ জনের নাম উল্লেখ্য করে, তার বাবাকে জানায়, ওরা আমাকে মারপিট করেছে এবং আমাকে মেরে ফেলে ঝুলিয়ে রাখবে বলে কথাবার্তা বলছে। এমন সময় ২নং আসামী ফারুক হোসেন সাদেকুলকে ফোন কেড়ে নিতে বলায়,  সাদেকুল সালমার হাত থেকে ফোনটি কেড়ে নিয়ে বন্ধ করে দেয়। পরবর্তীতে তিনি বার বার ফোন করেও মেয়ের সাথে ঐ রাতে যোগাযোগ করতে পারেন না এবং তিনি গুরুত্ব অসুস্থ ও শীতের তিব্রতায় ঐ রাতে মেয়ের বাড়ীতে যেতে পারেন নাই। পরের দিন সকালে জালাল নামের একজন এসে খবর দেয় যে,তার মেয়ে আত্নহত্যা করেছে। সঙ্গে সঙ্গে তিনি মেয়ে জামায়ের বাড়ীতে যায় এবং বহু লোকজন উপস্থিত সহ তার মেয়ের লাশ ঝুলন্ত অবস্থায় দেখিতে পায়। এরপর তিনি আরো অসুস্থ হয়ে যান। এরপর বীর মুক্তি যোদ্ধা আঃ ছাত্তার বাদী হয়ে নওগাঁ সদর মডেল থানায় ৪ জনকে আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। জিআর নং ৯৪/২০ নওগাঁ,মামলা নং ১৫ তাং ৬/২/২০২০ ধার্য্য তারিখ ২৫/৩/২০২০ ইং। ফৌঃ মিস ২৪১/২০ ইং, তাং ২/৩/২০২০ ইং। সকল আসামী পলাতক ছিলো, নওগাঁর অন্তরগত ভীমপুর পুলিশ ফাড়ীর (তদন্ত কেন্দ্রের) আই সি জামান ১ নং আসামীর প্রথম স্ত্রী সাবানাকে গ্রেফতার করেন, এবং একদিন পর ২নং আসামী ফারুক হোসেনকেও গ্রেফতার করতে সক্ষম হন। বর্তমানে এই হত্যা বিষয়ে বাদী আরো দু,জনের নাম উল্লেখ্য করে বলেন, আমি আরো দু,জনের নাম পাচ্ছি, যারা আমার মেয়ে হত্যার সাথে জড়িত ছিলো, শরির মোড়ের মৃতঃ গোড়া মন্ডলের দুই ছেলে জালাল মন্ডল ও জাহেদ মন্ডল। এ বিষয়ে শরির মোড়ে স্থানীয় ভাবে খোঁজ ও অনুসন্ধান করে জানা যায়, সাদেকুলের ছোট বউ ছালমা সর্ব প্রথম দিন, এই জালালের বাড়ীতেই উঠে ছিলোসাদেকুলের বড় বউ সাবানার সাথে জালালের খুব ভালো সখ্যতাও ছিলো দীর্ঘদিন থেকে। স্থানীয় বাসীরা আরো জানায়, এই জালাল ইতিপুর্বে একটি মার্ডার মামলার সাথে জড়িত ছিলো। তখন যদি তার সঠিক বিচার হতো, তাহলে আজ এই হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত হতো না। একাধিক ব্যাক্তিই এই হত্যাকান্ডের সাথে জালাল এবং জাহেদ জড়িত আছে বলে মনে করছেন এবং এই হত্যা কান্ডের বিষয়ে বহু কিছু তথ্য জালাল ও জাহেদের জানা আছে বলে, মনে করছেন স্থানীয় সচেতন মহল। এ বিষয়ে নওগাঁ সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ সোহরাওয়ার্দী জানান, উক্ত মামলার ২ জন আসামী গ্রেফতার হয়েছে, বাঁকী আসামীদেরও গ্রেফতারের জন্য চেষ্টা চলছে। আশা করছি খুব শীগ্রই ধরতে সক্ষম হবো। 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত