নীতির ঘাড়ে ভূত ও গণমাধ্যমের দায়িত্ববোধ

নীতির ঘাড়ে ভূত ও গণমাধ্যমের দায়িত্ববোধ

মাহবুব আলম প্রিয়: আইন বলে যা আছে তা মানলে হতো দেশটা এক সোনার হরিণ। যে সোনার হরিণের জন্য বিশ্ববাসী দৌড়াচ্ছে তো হাঁপাচ্ছে। আমাদের দেশের রাজনীতিবিদরাও স্বপ্ন দেখাচ্ছেন। নীতি নেই আমার মাঝে। নীতি খুঁজি হিয়ার মাঝে। নীতি বুঝি হয়ে যাচ্ছে ছোট নদীর গামছা। যে গামছা পেতে মাছ ধরতে গিয়ে ছুটে যায় মাছ। নীতিবান মুখে মুখে চেয়ারে থাকে দূর্ণীতির অবস্থান। তাই “নীতির ঘারে ভুতের আছর” বলি দুঃখ করে। আবার যখন দেখি ভূতকে বিজ্ঞান দুর করতে পারছেনা। বিজ্ঞান ভুত লালনে এক প্রকার যন্ত্রদানব ব্যবহার করছে। কথার প্রসঙ্গ ভিন্ন। আমাদের দেশের দায়িত্বশীল গণমাধ্যমে যখন ভুত বিষয়ক প্রচারনা পায়, কুসংস্কার ছড়ায়, রাশি ফল আর জ্যোতিষি দেখাতে উৎসাহ দেয় তখন স্পষ্ট করেই বলতে পারি এ দেশের বিবেক মরে যাচ্ছে। দেশের মানুষকে বিজ্ঞান মনষ্ক ও আধুনিক নাগরিকে রূপ দিতে ব্যর্থ হচ্ছে। দায়িত্বশীল আচরন থেকে দূরে সরে যাচ্ছে । শুধুমাত্র বিজ্ঞাপন লোভে। হুম বিজ্ঞাপন একটি সংবাদ মিডিয়ার টিকে থাকার মাধ্যম। তাই বলে সব বিজ্ঞাপন প্রচার দেশ ও জন্কল্যাণের হয় না। আবার প্রতিনিধিদের বিজ্ঞাপনের দিকে ঝুঁকাতে গিয়ে দূর্ণীতিবাজ কিন্তু বিজ্ঞাপন দাতা এমনদের কাছে বিজ্ঞাপন নিয়ে বিক্রি হওয়ার প্রবণতাও লক্ষনীয়। ফলে ওই দূর্ণীতিবাজ সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত বিজ্ঞাপন দিয়ে ধরেই নেয় যে, সে প্রতিষ্ঠান তার দূর্ণীতি নিয়ে লিখবে না। এটাই হলো চরম বাস্তবতা। মূলত যে প্রতিষ্ঠান এমন ব্যক্তির বিজ্ঞাপন নেয়, তার বিরুদ্ধে কলম ধরেও না। আর ধরলে বিজ্ঞাপন পাবে এমন নিশ্চয়তা কোথায়। তাই বহু দূর্ণীতিবাজ তাদের অপকর্ম ঢাকতে বিজ্ঞাপন দিয়ে কিছু সংবাদ মাধ্যমের প্রতিষ্ঠানকে পকেটে রাখার চেষ্টা করে। আমার কথা হলো তারা পকেটে রাখতে চাইবে। আমরা কেন তাদের পকেটে থাকবো। আমাদের গণমাধ্যমগুলোর দায়িত্ববোধ দেশের প্রতি ও দশের প্রতি দায়বদ্ধ মনে করলে কখনো এমনটা করতে পারবে না ।
ছোট থেকেই ভূত নামক ভয় দেখানো একটি গল্পের সাথে পরিচিত আমি। ধারনা করছি সবাই কম বেশি ভুতের গল্প শুনেছেন। তবে ভুত বিশ্বাসীর সংখ্যা আগের তুলনায় অনেক কমে গেছে। বেড়েছে শিক্ষা দীক্ষা বুঝ শক্তি ও জ্ঞানের পরিধি। কিন্তুু ভুত নামেনি এ দেশের মানবসভ্যতা থেকে। ভুত নাই বলে যে একটা ধারনা জ্ঞানীদের দরজায় পাওয়া যায় তাও যেন মিছে। সম্প্রতি ভুত বিশ্বাস আবারে জনমনে দাবড়ে বেড়াতে দেখা যাচ্ছে। ভৌতিক নানা রূপকল্প দিয়ে সাজানো জ্যোতিষির পাথর,তাবিজ,কবজ ও ভন্ড ঝাড়ফুঁক কবিরাজের সংখ্যা দিন দিন বেড়েই চলছে। বাড়ছে পড়া পানি, সূতা বাঁধার মতো কাল্পনিক নানা পথ্য ও পাথেয় দানকারীর সংখ্যা। তারা  ভুতের আছরের কথা বলে মানুষকে মানষিকভাবে আঘাত করে হাতিয়ে নিচ্ছে কোথাও সর্বস্ব, কোথাও ধোঁকাবাজি দিয়ে মগজ ধোলাই দিয়ে রেখে যাচ্ছে পরের বছরের জন্য।
আশ্চর্য্য ও হতাশার খবর এই যে, দেশের কিছু ইলেক্ট্রিক ও প্রিন্ট মিডিয়ায় যৌন উত্তেজক নানা বটিকার বিজ্ঞাপন,নানা শ্রেণির পাথর ,তাবিজ কবজের ব্যবসা সম্প্রসারনের বিজ্ঞাপন প্রচার করে বিভ্রান্ত করছে জনসাধারনকে। আতঙ্কিত করতেও দেখা যায় । ভৌতিক চিকিৎসা নেবার জন্য মানুষকে উৎসাহিত করা হচ্ছে। কিছু ধর্ম ব্যবসায়ীরা ইসলাম ধর্মে জ্যোতিষির স্থান না থাকা স্বত্ত্বেও ইসলামী চিন্তাবিদ নামে পরিচিত জনরাও চলচ্চিত্র অভিনেতাদের সাথে সুর মিলিয়ে ভৌতিক বিজ্ঞাপন প্রচারে অংশ নিয়েছেন। এই ভূত ছাড়াতে যতই বিজ্ঞানীরা আমাদের উৎসাহিত করেন তার চেয়ে বেশি প্রচার করেন বিজ্ঞান যন্ত্রের মাধ্যম দু একটি চ্যানেল ও পত্রিকা মাধ্যমে।
এখন প্রশ্ন হলো ধূমপানের বিজ্ঞাপনের মতো এ ভৌতিক বিজ্ঞাপন কি আদৌ বন্ধ হবে ? নাকি বিজ্ঞপনের কয়েকটি টাকার কাছে ঘারে ভুত নিয়েই নীতির বিসর্জন দিতে হবে ? মিডিয়ার জন্য নীতিবানদের অবস্থান যে কত জরুরী তা দেশের সাংবাদিক সমাজের চেয়ে মালিক পক্ষের জন্য জানা ও মানা গুরু দায়িত্ব। না জেনে শুনে কোন মিডিয়ার মালিক হওয়া যায় অর্থের জোরে। রাজনৈতিক ছত্রছায়ায়। দেশের স্বার্থ দেশের ও দশের দিক বিবেচনাবোধ থাকার পাশাপাশি জাতীয়তাবাদ,মূল্যবোধ,দেশপ্রেম,সদিচ্ছা,ন্যায় পরায়ণতা ইত্যাদি সদগুণাবলি থাকা প্রয়োজন। মালিকের মধ্যে ভালোগুন ও আইনের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ থাকার পাশাপাশি মিডিয়ায় আগত সংবাদকর্মীর উক্ত গুনাবলী না থাকলে উপরোক্ত গুনাবলির বিপরিত হতেই পারে।
গ্রাম বাংলায় একটা কথা আছে-আগের হাল যেমনে চলে পেছনের হাল তেমনি…. মালিক অনৈতিক উপদেশ দিলে সংবাদকর্মী তাতে জড়াতেই পারেন। তাই সমাজে বিরুপ প্রভাব পড়ে বা ভৌতিক শিক্ষা দীক্ষা বেড়ে যায় এমন দিক থেকে দূরে থাকাই উচিত। তথাপিও নীতির ঘাড়ে ভূতেরা চেপে বসে আছেন । কোন ভূমিকাই কাজে আসছে না। ভালো মানুষগুলো যেমন রাজনীতি ছেড়েছেন বা ছাড়তে শুরু করেছেন তেমনি ভালো ও প্রকৃত সাংবাদিকরা কিছু অনৈতিকতার গ্রহণকারী অসভ্য সংবাদকর্মীর কর্মকান্ডে প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে ওঠেছেন। সাংবাদিকতার পাঠ না চুকিয়ে সংবাদপত্র ও ইলেক্ট্রিক মিডিয়ায় যুক্ত হয়ে যাচ্ছে অশিক্ষিত,অর্ধশিক্ষিত ও ভীন্ন পেশাদারীরা। দেশের স্বার্থ কি , দেশের জন্য কোন বিষয়টা উপকারী আর কোন দিকটা বর্জনীয় এমন হিতাহিত জ্ঞান না থাকলেও এক শ্রেণির মানবাধিকার নামধারী কতিপয় সংবাদকর্মী পরিচয়ে চাঁদাবাজি,প্রতিষ্ঠিত সাংবাদিকদের নাম বিক্রি করে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান থেকে চাঁদা আদায় করেই যাচ্ছে। এসব সংবাদকর্মীরা চাকুরী দেবার নাম করে ঘুষের অংকে ভাগ বসাচ্ছেন। নিজস্ব দরবার শালিস কেন্দ্রও খুলেছেন কেউ কেউ।
প্রবিণ গুনী সাংবাদিকদের তাদের প্রতি বিরক্ত হয়ে বলতে শুনা যায় এরা নামধারী ফেও ফেও। সব কিছুই রহস্য মনে হয়। সাংবাদিক সমাজ জাতির বিবেক, সমাজের দর্পন। সাংবাদিকতা একটি নিঃসন্দেহে মহান ও মর্যাদা সম্মন্ন পেশা। কেবল চোরেরাই ভয় পায়;পেছনে গালি গালাজ করে । মেরে ফেলার হুমকী দেয়। নীতির প্রশ্নে সাংবাদিক সমাজ এক ও অভিন্ন। সাংবাদিকরা সব সময় থাকবেন সত্যের পক্ষে ভন্ডামির বিপক্ষে। এসব বিষয়ে কি বলার অপেক্ষা রাখে যেখানে সাংবাদিক ও সংবাদ মাধ্যমের জন্য গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের পক্ষ থেকে আলাদা একটি তথ্য মন্ত্রণালয় রয়েছে। রয়েছে ডি এফপি,পি আইডি,পিআইবি,তথ্য কমিশন। রয়েছে সাংবাদিকদের সংগঠন জাতীয় প্রেস ক্লাব,বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নসহ অসংখ্য সাংবাদিক সংগঠন। জাতীয় সংগঠন নেতৃবৃন্দ  ছাড়াও মফস্বল সাংবাদিকতায় ঐক্যের জন্য এসব জাতীয় সংগঠনের রয়েছে শাখা কার্য্যক্রম। জেলা ও উপজেলা ব্যাপি রয়েছে সাংবাদিক ঐক্য। এত সংগঠন থাকার পরও ভুয়া,অশিক্ষিত,অর্ধ শিক্ষিতরা কিভাবে সাংবাদিকতায় যুক্ত হয় তা আমার বোধগম্য নয় । খবর রয়েছে কেবল মাত্র এস এসসি পাশ করেই দেশের কয়েকটি জাতীয় দৈনিক ও সাপ্তাহিক পত্রিকায় সম্পাদনাও করছেন। এসব লোকেদের নীতির ঘাড়ে ভুত চাপিয়ে এই জনেরাই বাঁচিয়ে রেখেছেন পুরানো দিনের সেই কথা- বটগাছের ভূতের ছাঁতা। লেখনির মূল ভাষ্য এই যে,সম্মক জ্ঞান অর্জন ব্যতিত সুশিক্ষার অভাব নিয়ে প্রেস মিডিয়া জগতে পা রাখা দেশের ক্ষতি বৈ কিছু নয়। বানরের গলায় যেমন মুক্তার মালা বেমানান বা কাকের মুখে কমলা যেমন সংবাদপত্র জগতে নামধারী ও ভূয়াদের কিংবা অশিক্ষিতদের অংশগ্রহণ ঠিক তেমন। তথ্য প্রবাহের স্বাধীনতার নামে প্রকৃত সংবাদকর্মীদের বিতর্কিত করতে দেয়া ,ধর্ম কর্ম বিষয়ে না জানা লোক দিয়ে অধর্মকে সাফাই গাওয়া নীতির ঘাড়ে ভুত বৈকি ? তাই ভুত দূর করতে প্রয়োজন এ দেশের কর্র্তাদের সচেতন হওয়া। সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন এ দেশের জনগণকে সুশিক্ষিত করে তোলা। ধর্মীয় শিক্ষা ও বিজ্ঞানমনস্ক হওয়াও অত্যন্ত জরুরী। নয়তো বুঝতেই পারবে না কোনটা ধর্ম আর কোনটা ধর্মের নামে ব্যবসা। তেমনি মিডিয়ার মালিকদের শুধুমাত্র বিজ্ঞাপন নির্ভর বা বিজ্ঞাপন থেকে আয় করার সুযোগ আছে এমন লোভে পড়ে মানহীন পন্য, কুসংস্কার জন্ম দেয় এমন সব চিন্তা চেতনা ও মতবাদ প্রচার থেকে বিরত থাকা সময়ের দাবী।

লেখক:সাংবাদিক

 

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত