শিরোনাম :
তজুমদ্দিনে মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান প্রার্থীর উপর হামলা,আটক ৩ সাগরে তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, দশ নম্বর মহাবিপদ সংকেত  নাটোর ০৪ আসনের সংসদ সদস্যের বিরুদ্ধে সাংবাদিকদের মানববন্ধন কেন্দুয়ায় দু’পক্ষের সংঘর্ষে একজনের মৃত্যু  ফরিদপুরে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ‌ ১২৫ তম  জন্মবার্ষিকী পালিত  পূর্ব তিমুরের মতো খ্রিষ্টান দেশ বানানোর চক্রান্ত চলছে এমপি আনার হত্যায় জিহাদের লোমহর্ষক বর্ণনা সাগরে তৈরি হয়েছে ঘূর্ণিঝড় রিমাল, সাত নম্বর বিপদ সংকেত  বড়াইগ্রামে সাংবাদিকদের নিয়ে এমপি’র আপত্তিকর বক্তব্য, সর্বত্র ক্ষোভ   সাতক্ষীরায় পৃথক সড়ক দূর্ঘটনায় এক কলেজ ছাত্রসহ দুই জনের মৃত্যু
পত্নীতলায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে স্থাপনা ভেঙে জমি দখল চেষ্টার অভিযোগ!

পত্নীতলায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে স্থাপনা ভেঙে জমি দখল চেষ্টার অভিযোগ!

হায়দার মটরস এর সত্ত্বাধীকারী হায়দার আলীর বিরুদ্ধে

হাবিব : নওগাঁর পত্নীতলা উপজেলায় আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে বিবাদমান জমির পাকা স্থাপনা ভেঙে ও গাছপালা কেটে জমি দখলের অভিযোগ উঠেছে হায়দার মটরস এর সত্ত্বাধীকারী হায়দার আলীর বিরুদ্ধে। ঘটনার সংবাদ পেয়ে জমির মালিকানা দাবিদার উভয় পক্ষকে শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে নিজ নিজ স্থানে থাকার নির্দেশ দিয়েছেন পুলিশ। এঘটনায় বর্তমান ঐ জমির দখলদার আলমগীর হোসেন চৌধুরী বাদী হয়ে ৯ জনকে আসামী করে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলার সূত্রে জানাযায়, পত্নীতলা উপজেলার পালশা মৌজায় ৩৬৮৫ নং দলিল মূলে শ্রী নির্মল কুমার ঘোষের নিকট হতে একই উপজেলার পরানপুর গ্রামের আলমগীর হোসেন চৌধুরী ১৯৯৭ সালে ১২ শতক জমি ক্রয় করে জমি দখল বুঝে নিয়ে খাজনা খারিজ করে সেই জমিতে বাসা নির্মান করে ভোগ দখল করে আসছিল। কিন্তু ২০১৬ সালে মোস্তাফিজুর নামে এক ব্যক্তি জমিটি তার বলে দাবী করেন। এঘটনায় ঐ জমির দখলদার আলমগীর হোসেন চৌধুরী বাদী হয়ে নির্মল কুমার ঘোষগণের উপর নওগাঁ-৩নং সাবজজ কোর্টে ০২/২০১৭ তারিখে বাটোয়ারা মামলা দায়ের ও জমির দাবীদার মোস্তাফিজুরের বিরুদ্ধে চিরস্থায়ী নিষেধাজ্ঞার জন্য আবেদন করেন। যা ইতোমধ্যে চলমান রয়েছে। মামলার পরিপ্রেক্ষিতে বিজ্ঞ আদালত জমির প্রকৃত দখলদারকে এই মর্মে তদন্ত কমিশনের মাধ্যমে তদন্ত করেন। এ উক্ত তদন্ত রিপোর্ট আলমগীর হোসেন চৌধুরীর পক্ষে আসে এবং উভয়পক্ষের শুনানি শেষে আদালত ঐ জমির উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে। পুনরায় মোস্তাফিজুর রহমান জেলা জজ আদালতে মিস আপিল করেন, যার নং ৭৩/২০১৭। বিজ্ঞ জেলা জজ আদালত দোতরফা সূত্রে ২০১৭সালের ১৭ই অক্টোবর উক্ত মিস আপিলের রায়ে “মূল মোকদ্দমা নিস্পত্তি না হওয়া পর্যন্ত নালিশী সম্পত্তিতে পক্ষদ্বয়কে কঠোরভাবে স্থিতাবস্থা বজায় রাখার জন্য নির্দেশ প্রদান করেন”।
আরো জানাগেছে, মামলা চলাকালীন সময়ে গত ১৯ সালের অক্টোবর মাসে মোস্তাফিজুর রহমান নকল দলিল মূলে নজিপুর বাজারের বিশিষ্ট ব্যবসায়ী হায়দার মটরস এর সত্ত্বাধীকারী আলহাজ্ব হায়দার আলীর কাছে ঐ জমি বিক্রয় করে সৌদি আরব চলে যান। এরই ভিত্তিতে হায়দার আলী গত ২৬ জানুয়ারী তার লোকজন দিয়ে ঐ জমির উপর আদালতের দেয়া রায়ের নোটিশ বোর্ডটি ভেঙে নিয়ে যান। এবং ঐ স্থানে থাকা ছোট ছোট কিছু গাছ উপড়ে ফেলে এবং স্থাপনা ভেঙ্গে ফেলে আদালতের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ঐ জমি দখলে নেওয়ার চেষ্ঠা করেন।
ভাঙ্গচুরের ঘটনায় থানায় সংবাদ দেয়া হলে জমির মালিকানা দাবিদার উভয় পক্ষকে শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে নিজ নিজ স্থানে থাকার নির্দেশ দেন পুলিশ। এঘটনায় গত ২৮ জানুয়ারী আলমগীর হোসেন চৌধুরী আদালতে হায়দার আলীকে ১ নং আসামী করে মোট ৯জনের নাম উল্লেখ করে আদালতে একটি মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং ০২ সি,আর/২০২০ (পত্নী) ৪নং (পত্নীতলায়) আমলী আদালত,নওগাঁ।

আলমগীর হোসেন চৌধুরীর ভাতিজা সিফাত রেজভি বলেন, গত ২৬ জানুয়ারী হায়দার আলী আমাকে ফোন করে জায়গা বুঝে দিতে বলেন। আমি আদালতের কথা বললে তিনি আমাকে হুমকি প্রদান করে বলে তুমি জায়গা বুঝাই না দিলে আমি এক বেলার মধ্যে সব ভেঙ্গে দখল করে নিবো আর তোমাদের খাজনা খারিজ বাতিল করা আমার জন্য ১ঘন্টার ব্যাপার। এই বলে আমাকে ফোনে রেখেই সে তার লোকজনকে অর্ডার দেন স্থাপনা ভেঙ্গে জায়গা দখল করার। তার লোকজন ভাঙ্গচুর করতে শুরু করলে আমি পুলিশে খবর দেই ঘটনাস্থলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে এবং তারা ঐ অবস্থায় গাড়ি ফেলে রেখে চলে যান।

ভুক্তোভোগী আলমগীর হোসেন চৌধুরীর বলেন, ১৯৯৭ সালে আমি এই জায়গা ক্রয় করে ক্লিনিক ও বাসা বানিয়ে আজ পর্যন্ত বসবাস করে আসছি। কিন্তু ২০১৬ সালে মোস্তাফিজুর নামে এক ব্যক্তি জমিটি তার বলে দাবী করেন। এ নিয়ে আদালতে মামলা রয়েছে। মামলা নিষ্পত্তি না হতেই সে একজনের কাছে কি করে জমি বিক্রয় করেন। আদালতের নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্বেও আবার হঠাৎ করে হায়দার আলী নামে একজন এলাকার প্রভাবশালী ব্যক্তি গত ২৬ তারিখে ভাঙ্গচুর চালিয়ে জমি দখলে নেওয়ার চেষ্টা করে। এতে করে আমার প্রায় ২৫ লক্ষ টাকার ক্ষতি সাধন হয়েছে। আমি এর সুষ্ট বিচার চাই।

অভিযুক্ত হায়দার মটরস এর সত্ত্বাধীকারী হায়দার আলী বলেন, আদালতের নিষেধাজ্ঞা আছে তো কি হয়েছে আমি ঐ জমি ক্রয় করেছি তো আমি দখল নিবনা। আর আমি কোন ভাঙ্গচুর করিনি ঐ জায়গা দখল করতে গিয়ে সেখানে গাড়ি রেখেছি কিন্তু গাড়ি ব্যাক দিতে গিয়ে ধাক্কা লেগে ঘরের ওয়াল ভেঙ্গে গেছে। আর আমি ঐ জায়গা ক্রয় করেছি ঐ জায়গার মালিক আমি আমার জায়গায় কেও যদি গাছ লাগায় তাহলে তো গাছ তুলে ফেলবই। অপর এক প্রশ্নে তিনি আরো বলেন, আদালতে মামলা চলতেছে মামলার রায়ে আমরা যদি সেখানে জায়গা না পাই তাহলে সেখান থেকে আমার জিনিস পত্র নিয়ে জায়গা ছেড়ে চলে আসবো। তার আগে আমি আমার জায়গা দখলে রাখবো।

পত্নীতলায় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পরিমল কুমার দেব বলেন, ভাঙ্গচুরের সংবাদ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয়পক্ষকে শান্তি-শৃঙ্খলা রক্ষার্থে নিজ নিজ অবস্থানে থাকার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক রয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত