শিরোনাম :
নরেন্দ্র মোদি পূণরায় ক্ষমতায় এলে ৬ মাসের মধ্যে কাশ্মিরকে ভারতের অংশ করা হবে সিরাজগঞ্জে চলতি বছরই সেতু দিয়ে চলবে ট্রেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত দিঘলিয়ায় মহি মল্লিকের নির্বাচনী নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে পুলিশী হয়রানীর অভিযোগ  নওগাঁয় গ্রামীন ব্যাংকের মত বিনিময় সভা-অনুষ্ঠিত  আশুলিয়ার শিমুলিয়ায় ভূমিদস্যুদের দখলে অসহায় মাসুদের জমি  আপনি বাংলাদেশ ব্যাংকে ঢুকবেন কেন সাংবাদিকেদের প্রশ্ন ওবায়দুল কাদেরের ইসরাইল হেরে যাচ্ছে: সাবেক গোয়েন্দা উপ-প্রধান শ্রীবরদীতে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার আশুলিয়ায় চায়না আদিবাসী নারী পাচার চক্রের বিরুদ্ধে মানববন্ধন
পর্ব-১: আশুলিয়ায় মহাসড়কে ফুটপাতগুলো হকার্সদের দখলে: নেই আইনি ব্যবস্থা

পর্ব-১: আশুলিয়ায় মহাসড়কে ফুটপাতগুলো হকার্সদের দখলে: নেই আইনি ব্যবস্থা

সাঈম সরকার: শিল্প এলাকায় আশুলিয়া মহাসড়কে ফুটপাতগুলো হকার্সদের দখলে জোড়ালো ভাবে নেই কোন আইনি ব্যবস্থা প্রয়োগ। যার কারণে, এক শ্রেণীর অসাধু ও অসৎ ক্ষমতাশীল ব্যক্তিগন ফুটপাতকে অবৈধ ভাবে ইজারা ও ভাড়া দিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে প্রায় কোটি কোটি টাকা। হচ্ছে আঙ্গুল ফুলে কলাগাছ। মাঝে মাঝে উচ্ছেদ অভিযান চললেও তাহা শুধু ক্ষনিকের জন্য লোক দেখানো। বছরের বিশেষ কোন দিন যেমন, ১৬ই ডিসেম্বর, ২১ শে ফেব্রুয়ারী, ২৬ মার্চ ও ভি আই পি চলাচলের কয়েক ঘন্টা মাত্র।
সড়েজমিনে দেখা যায়, কালিয়াকৈর-নবীনগর মহাসড়কের দুইপাশে ফুটপাতগুলো হকার্সদের দখলে রয়েছে। গড়ে উঠেছে বহুমুখী রমরমা ব্যবসা প্রতিষ্ঠান। রেডি গার্মেন্টস মার্কেট সহ মাচ বাজার, কাঁচা বাজার এবং সকল প্রকার নিত্য প্রয়োজনিয় পণ্যের সমাহার। বিশেষ করে ডিইপিজেড এলাকা, আশুলিয়া থানার প্রধান গেইট এর উত্তর পাশ হইতে শুরু করে শ্রীপুর পর্যন্ত মহাসড়কের একাংশ সহ হকার্সদের দখলে। ফলে পায়ে হেঠে চলা বিভিন্ন শিল্প প্রতিষ্ঠানের কয়েক লাখ পথচারী নারী-পুরুষ শ্রমিক ও সাধারণ মানুসকে বাধ্য হয়ে মহাসড়কের মাঝখান দিয়ে চলাচল করতে দেখা যায়। ঢাকা থেকে উত্তর বঙ্গে প্রায় ২২টি জেলায় চলা-চলের একমাত্র এই মহাসড়কটি দিয়ে প্রতিদিন লাখ লাখ যানবাহন চলাচল করে থাকে। ট্রাপিক পুলিশকেও সকাল সন্ধা পার হয়ে রাত্র ১১টা পর্যন্ত যানজন নিরসনে দাপিয়ে বেড়াতে দেখা যায়। ঘন্টার পর ঘন্টা দাড়িয়ে তেকে ধুলা-বালি আর রোদ্রে পূড়ে একবোরে ক্লান্ত হয়ে পরা, ট্রাফিক পুলিশদের মুখের দিকে তাকালে বড় অসহায় মনে হয়। মহাসড়কের একাংশ সহ সবটাই ফুটপাত দখল করে রাখা হকার্সগনই যানজট প্রধান কারন বলে মনে করেন যানজট নিরাসনে দাপিয়ে বেড়ানো দুইজন ট্রাফিক পুলিশ। গার্মেন্টস শ্রমিক সংগঠনের কয়েকজন শ্রমিক নেতা গনমাধ্যমকে জানায়ঃ এলাকার প্রভাবশালী কিছু অসাদু ব্যক্তিদের নিয়োন্ত্রনে মহাসড়কের ফুটপাতগুলো হকার্সদের দখলে থাকায় সাধারণ জনগণ ও শ্রমিকদেরকে বাধ্য হয়ে মহাসড়কের মাঝাকান দিয়ে চলতে হয়। যার কারনে ঘনবসতিপূর্ন এই শিল্প এলাকায় সড়ক দূর্ঘটনার মত ঘটনা প্রায়ই ঘটে চলছে। ফুটপাগুলো চলাচলের যোগ্য হইলে সড়ক দূর্ঘটনা প্রায় ৮০% কমে যাবে বলে ধারনা করেন শ্রমিক নেতারা।
এদিকে গোপন তথ্যে খোজ নিয়ে জানা যায়ঃ ডিইপিজেড পুরাতন জোনের প্রথম গেইট সংলগ্ন ফুট অভার ব্রীজের নিচ হইতে বলিভদ্র বাজারের মুখ পর্যন্ত মহাসড়কের একাংশ সহ ফুটপাতটি মন্ডল মার্কেটের মালিক মোঃ লতিফ মন্ডলের নিয়োন্ত্রানাধীন রয়েছে। ঐ ফুটপাতে রয়েছে প্রায় ৭/৮ শত দোকানের একটি সু-বিশাল রেডি গার্মেন্টস্ ও জুতার মার্কেট। দীর্ঘ ১০ বছর যাবৎ লতিফ মন্ডলের নামে ঐ দোকান গুলো থেকে প্রতিদিন প্রতিটি দোকান থেকে তার নিজস্ব লোকজন ১৫০ টাকা হারে অবৈধ ভাবে ভাড়া আদায় করে আছসে বলে জানায় ঐ ফুটপাতের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক হকার্সগণ। ওরা আরো জানায় দোকানের পজিশন অনুযায়ী প্রতিটি দোকান হইতে লতিফ মন্ডলকে তার ম্যানেজারের মাধ্যমে অগ্রীম দিতে হয়েছে ৩০/৪০ হাজার টাকা। এ ব্যাপারে মুটোফোনে সংবাদ কর্মীগন জানতে চাইলে তিনি দায়সারা জবাব দেন। গত ১১-০২-২০২০ইং ভিআইপি চলাচলে এবং ১৪-০২-২০১৪ ইং মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নন্দনপার্কে আগমনার্থে ফুটপাত উচ্ছেদ ও ভেঙ্গে দেওয়ায় হকার্সদের মনভাব সম্পর্কে জানতে চাইলে হকার্সগন জানায় তেমন কোন প্রভাব পরেনি। কারন বছরে মাত্র কয়েকবার এবং তাহা কয়েক ঘন্টার জন্য মাত্র। তাছাড়া সকাল বেলা বেঙ্গে দিলে আবার বিকাল বেলাতেই মার্কেট গুছিয়ে নেওয়ার সম্ভব হয়। তারা আরো বলেন বিকাল ২টা পর্যন্ত দোকান পাটে কোন মালামাল থাকে না। বিকাল ৩টার পরে মার্কেটের প্রতিটা দোকান বিক্রয় পন্য মালামাল তোলা হয় এবং রাত্র ১১ টা পর্যন্ত বেচা কেনা চলে। বেচা-কেনা বন্ধ করে যাওয়ার সময় সকল পন্য মন্ডল মার্কেটের গুডাউনে মজুত করে রেখে দেওয়া হয়। ফুটপাতের হকার্সদের নিকট থেকে টাকা উত্তলন কারি নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ব্যক্তি জানায় এই টাকার ভাগ অনেককেই দিতে হয়। এদের মধ্যে রয়েছে নাম ধারী সাংবাদিক নেতা, পুলিশ ও রাজনৈতিক অসাধু কিছু নেতৃ বৃন্ধ এবং রোডচেঞ্জ হাইওয়ে কর্মকর্তা গণ। এ বিষয়ে জানতে চাইলেঃ রোডচেঞ্জ হাইওয়ে উপ-সহকারী প্রকৌশলী জনাব নাঈমুল ইসলাম নাঈম জানান ওখান থেকে আমরা কোন সুবিধা ভোগ করি না। সরকারী নির্দেশনা অনুজায়ী মহাসড়কের ফুটপাতে হকার্স বসানো জাবেনা মর্মে প্রতিটা মূহুর্তে নজরদারী করে আসছি। আমাদের চোখে পড়তেই হকার্স উচ্ছেদের যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করে থাকি। কিন্তু আইনানুগ ভাবে কঠোর কোন প্রদক্ষেপ না নেওয়ায় বা শাস্তির কোন বিধান না থাকায় এলাকার প্রভারশালীগণ তাদের আখের গোছাতেই বার বারই হকার্সদের দ্বারা ফুটপাদ দখল করে আসছেন…………..চলমান

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত