শিরোনাম :
ঝিনাইগাতী গজনী অবকাশ কেন্দ্র বাসের চাপায় প্রাণ গেলো আইসক্রীম বিক্রেতার বর্ণাঢ্য আয়োজনে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন গাজীপুর জেলার পিকনিক ২০২৪  অনুষ্ঠিত সবসময়ই কালোকে কালো এবং সাদাকে সাদা বলে দৈনিক  যুগান্তর ভান্ডারিয়ায় স্মার্ট আই ডি  বিতরণ  মোরেলগঞ্জ ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে বসতঘর ভস্মিভূত, ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি খুলনায় আতাই নদী থেকে উদ্ধারকৃত মাহফুজকে বৈবাহিক কারণে স্ত্রীর স্বজনদের হাতে জীবন দিতে হয়েছে নওগাঁর মান্দায় নিভৃত পল্লী গ্রাম মশিদপুরে দিনব্যাপী বইমেলা বড়াইগ্রামে বর্ণিল আয়োজনে পিঠা উৎসব ও বসন্ত বরণ বাঘায় সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন  সীমান্তে হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতীকী লাশের মিছিল
প্রযুক্তির ভিড়ে লোকসঙ্গীতকে হারাতে দেবো না -পৌষালী ব্যানার্জী

প্রযুক্তির ভিড়ে লোকসঙ্গীতকে হারাতে দেবো না -পৌষালী ব্যানার্জী

অনলাইন ডেস্ক : লোকসঙ্গীতের প্রতি এই মানুষটির টান আসলে নিখাদ। অন্যদিকে সঙ্গীতপ্রেমী মানুষের পৌষালী ব্যানার্জীর প্রতি আকর্ষণ যথেষ্টই। তাই কৌতূহল বশতঃ আমরাও আমাদের প্রশ্নের জবাব পেতে সটান হাজির হলাম গায়িকার বাড়িতে।

একজন সফল গায়িকা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে গেলে প্রতিভাটুকুই কি যথেষ্ট?
প্রতিভা তো সহজাত, তা জন্মাবার পরেই আসে। ভগবান কিছু একটা দিয়ে পাঠান। তারপর সেটিকে ঘষামাজার মাধ্যমে সঠিক পথে চালনা করে সফল গায়িকা হওয়া যায়। আরেকটি জিনিস, আমি এই পথে এসে দেখলাম, বেশ কিছুটা হলেও ভাগ্যের ব্যাপার থাকে। আমার মনে হয় কেউ যদি প্রতিভাবান হয়, ঠিক গন্তব্যে পৌঁছে যাবে।

গানের সঙ্গে রিলেশনশিপ কীভাবে শুরু হল? আপনার গুরুই বা কারা ছিলেন?
আমার গানের সঙ্গে রিলেশনশিপ একদম ছোটবেলা থেকেই যখন হয়তো আমার বোধ-বুদ্ধিও ছিল না। তখন থেকেই আমি নিজের মতো করে কিছু না কিছু করছি, এটা আমি বড়দের থেকে শুনেছি পরবর্তীকালে। আমার প্রথম গুরু ছিলেন মা। আমি সবাইকে বলি আমার মা সঙ্গীতের শব্দকোষ(এনসাইক্লোপিডিয়া)। বিশেষ করে রবীন্দ্রসঙ্গীতের ক্ষেত্রে। আমি আজ পর্যন্ত কোনও দিন গীতবিতান খুলে মা-কে গান গাইতে শুনিনি। বাড়িতে সঙ্গীতের মহল সবসময়ই ছিল। যথারীতি সেটা শুনে শুনেই আমার বড় হওয়া। কাজেই গানটা আমার বাড়ি থেকেই।

২০১৬-১৭ মরসুমে এক জনপ্রিয় রিয়্যালিটি শো’র পর্দায় মানুষ আপনাকে দেখেছিলেন। কেমন ছিল সেই অনুভূতি?
ভীষণ সুন্দর অনুভূতি। সেটি জীবনের প্রথম রিয়্যালিটি শো ছিল, এর আগে কোনও রিয়্যালিটি শো’তে অংশ নিই নি। রিয়্যালিটি শো শুধু টিভিতেই দেখে এসেছি। অংশগ্রহণ করতে গিয়েছিলাম, অনেকগুলো অডিশন দিয়ে পাশ করেছি। অসম্ভব সুন্দর অনুভূতির মধ্যেও একটি অন্ধকার মুহূর্তও রয়েছে। সেই রিয়্যালিটি শো চলাকালীনই আমি একজনকে হারিয়েছি। তিনি হলেন কালিকাপ্রসাদ ভট্টাচার্য্য। আগের দিনই রিহার্সাল করলাম ওনার কাছে। তার পরের দিনই উনি মারা গেলেন। এই অভিজ্ঞতাটি বাদ দিলে বলবো বুদ্ধি, প্রতিভা এবং মনের জোরে আমি সেখানে এগিয়েছি।

এখনও পর্যন্ত কী কী উল্লেখযোগ্য কাজ করেছেন?
আপাততঃ কিছু সিরিয়ালে গেয়েছি। দেশে এবং বিদেশে বিভিন্ন জায়গায় শো করার অভিজ্ঞতা হয়েছে।

আগামী কোন কোন কাজ মুক্তির অপেক্ষায় প্রহর গুনছে?
একটি সিনেমায় আমার গানের কাজ চলছে। বাংলাদেশের এক ডিরেক্টর আমাকে সেখানে গান গাওয়ার সুযোগ দিয়েছেন। একটি বড় ব্যানারের মিউজিক ভিডিওতে কিছু গান গাইবো। এই কাজগুলির সঙ্গে সম্পর্কিত কিছু নিয়মনীতি মেনে চলতে হচ্ছে। তাই আগামী কাজগুলির ব্যাপারে এর বেশি বলা সম্ভব নয়।

স্বপ্ননগরী মুম্বই যাওয়ার ইচ্ছে কি রয়েছে?
এই মুহূর্তে তো একদমই না। গানের যে ধারাটি নিয়ে কাজ করছি তা হল বাংলা লোকসঙ্গীত। আমার ইচ্ছে আগে বাংলায় নিজেকে সমৃদ্ধ করা। তারপর স্বপ্ননগরী যাওয়া যেতেই পারে।

সঙ্গীতকে নিয়ে আপনার স্বপ্ন কী?
ব্যাক্তিগত স্বপ্ন যদি বলি। শুধু গান গেয়ে যাবো, মানুষকে আনন্দ দিয়ে যাবো। ঠিক পথে, কোনও ফিউশন না করে নিজস্বতাকে মানুষের কাছে তুলে ধরা। এভাবে গাইতে গাইতেই এমন একটা জায়গায় পৌঁছব যে, হ্যাঁ, পৌষালী গান গাইছে এবং হাজার মানুষ তা শুনছেন। আমার খুব একটি পছন্দের জায়গা আছে। নিউইয়র্ক ম্যাডিসন স্কোয়ার গার্ডেন। সেই ঐতিহ্যপূর্ণ জায়গায় আমি পারফর্ম করতে চাই। সেখানে অনেক ভারতীয় গান গেয়ে এসেছেন। আমার ইচ্ছা আমি লোকসঙ্গীতের ডালি নিয়ে ম্যাডিসন স্কোয়ারে গান গাইবো। যেদিন গাইবো, তার পরের দিন যদি মরেও যাই, কোনও আফসোস থাকবেনা।

আমার মনে হচ্ছে, খুব অ্যাপস এবং প্রযুক্তির ভিড়ে লোকসঙ্গীত হারিয়ে যাচ্ছে। যতদিন গলায় সুর থাকবে, মনে জোর থাকবে, আমি এই লোকসঙ্গীতকে ঠিক জায়গায়, ঠিক ভাবে নিয়ে যাবোই। এটা আমার নিজের কাছে প্রতিশ্রুতি, এটা কালিকাদার কাছেও প্রতিশ্রুতি ছিল। আমি সেটাই চেষ্টা করবো।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত