বালু ঘাট বন্ধ থাকায় এয়ারপোর্টের ৩য় টার্মিনাল নির্মানে ঢালাইয়ের কাজ বন্ধ

বালু ঘাট বন্ধ থাকায় এয়ারপোর্টের ৩য় টার্মিনাল নির্মানে ঢালাইয়ের কাজ বন্ধ

স্টাফ রিপোর্টার:
দুর্গাপুর বালুঘাট বন্ধ থাকায় হযরত শাহজালাল ৩য় টার্মিনাল নির্মানে ঢালাইয়ের কাজ বন্ধ রয়েছে। ১নং ঘাটের বালু দিয়েই শাহজালাল ৩য় টার্মিনালের ঢালাইয়ের কাজে ব্যবহার হচ্ছে এই বালু। ফলে নির্ধারিত সময়ে নির্মানকাজ সমাপ্ত হবে না বলে বিশেষজ্ঞ ইঞ্জিনিয়ারগন অভিমত জানিয়েছেন। কেননা উক্ত টার্মিনাল নির্মান কাজে নূন্যতম ২দশমিক ৫ সিলেকশন বালু ব্যবহার করা হয়। এই বালুর একমাত্র উৎস দুর্গাপুরের ১ নং বালুমহাল।
হাইকোর্ট সূত্রে জানা যায় বিগত ১৮/০৪/২৩ তারিখ মহামান্য আদালত তিন দিনের ভিতর বালুঘাট বুঝিয়ে দেয়ার পুনরায় আদেশ দেন। সেই সাথে এপিলেন্টকে ১০/০৫/২৩ তারিখের মধ্য বাকী পরিমান টাকা জমা দিতে আদেশ দেন ।সেই আদেশে কার্যদিবসের কথা উল্লেখ ছিল না। কর্তৃপক্ষ সেই আদেশ বাস্তবায়ন না করে ২৬/০৪/২৩ তারিখ অ্যাপিলেড ডিভিশনে দ্বারস্থ হয়ে ১৮/০৪/২৩ তারিখের আদেশ স্থগিত রাখার প্রার্থনা করেন।
একাধিক সুত্রে জানা গেছে নেত্রকোনা জেলা প্রশাসক কর্তৃপক্ষ অপ্রয়োজনীয় এই আপীল দায়ের করেন । এদিকে দূর্গাপুর বালুমহালের বিভিন্ন সুত্রে জানা যায় বিগত বছরের ইজারামূল্যের চেয়ে বর্তমান ইজারাদার ৩১ কোটি টাকা বেশী ইজারামূল্য দিয়েছেন সরকারকে। বেশী ইজারামূল্য পাওয়ায় সরকারের অধিক রাজস্ব আয় স্বার্থ রক্ষিত হয়েছে ।
তথ্যে আরও জানা গেছে গত ২৬/০৪/২০২৩ তারিখ সুপ্রীম কোর্টের মহামান্য চেম্বার জজ আদালত ইজারাদারকে ১০/০৫/২০২৩ তারিখের ভিতর ১৫% ভ্যাট ও ১০% উৎসে করের বাকি পরিমান টাকা জমা দিতে আদেশ প্রদান করেন।
সেই মোতাবেক ইজারাদার নির্ধারিত সময়ের পূর্বেই ০২/০৫/২০২৩ তারিখ বাকী পরিমান টাকা চালান মূলে জমা দিয়ে ০৩/০৫/২০২৩ তারিখ আদালতকে অবহিত করেন। রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবি চালান যাচাইয়ের জন্য সময় নেন। যদিও সরকারের ডিজিটাল সিস্টেমে অনলাইন চালান ভেরিফেকশন সিস্টেম চালু রয়েছে। ফলে মামলাটি দীর্ঘসূত্রিতায় নিপতিত হয়।

উল্লেখ্য ০৩/০৫/২৩ তারিখ রাত ১১-২৪ মিনিটে নেত্রকোণা জেলা কর্তৃপক্ষ ইমেইলে ইজারাদারকে অচল পত্র প্রেরন করে নতুন জটিলতার জন্ম দেন। উক্ত ১নং বালু ঘাট এখন পর্যন্ত বন্ধ রয়েছে। অপরদিকে হাইকোর্ট বিভাগের একজন ডিএজির বিরুদ্ধে এখতিয়ার বহির্ভূত পদক্ষেপ নেয়ার নানান অভিযোগ উঠেছে।

অন্যদিকে সরকারের সকল উন্নয়ন কাজ এবং মেট্রোরেল,এলিভেটেড এক্সপ্রেস ওয়েসহ সকল মেগা প্রকল্পের ঢালাইয়ের কাজে ব্যবহার্য্য বালুর একমাত্র উৎস নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর উপজেলাধীন ১ নং বালু মহাল।
এদিকে অত্রঅঞ্চলের বালু মহালের শ্রমিকেরা বালুমহালটি যাতে দ্রুত চালু হয় এবং তারা তাদের কর্মে ফিরে যেতে পারেন, তার জন্য সরকারসহ সংশ্লিষ্ট কতৃপক্ষের নিকট উদার আহবান জানিয়েছেন। কারণ বালু মহালটি চালু না হওয়ায় এসব শ্রমিকেরা পরিবার-পরিজন নিয়ে অর্ধাহারে অনাহারে দিন কাটাচ্ছেন।
সোমেশ্বরী নদীর ১ নং বালুঘাটে এসব হাজার হাজার শ্রমিক দীর্ঘ প্রায় একমাস যাবত বালু ঘাটটি বন্ধ হওয়াতে উপার্জন আয়ের পথ বন্ধ থাকায় চরাসুদের ওপর দাদন ব্যবসায়ীদের নিকট থেকে ঋণ করে তাদের সংসার চালাতে হচ্ছে। এতে দিনে দিনে ঋণের দেনা বেড়েই চলেছে। এভাবে চলতে থাকলে নি:স্ব হয়ে যাওয়া ছাড়া কোন পথ সামনে শ্রমিকদের খোলা নেই বলে জানিয়েছেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত