শিরোনাম :
ঝিনাইগাতী গজনী অবকাশ কেন্দ্র বাসের চাপায় প্রাণ গেলো আইসক্রীম বিক্রেতার বর্ণাঢ্য আয়োজনে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন গাজীপুর জেলার পিকনিক ২০২৪  অনুষ্ঠিত সবসময়ই কালোকে কালো এবং সাদাকে সাদা বলে দৈনিক  যুগান্তর ভান্ডারিয়ায় স্মার্ট আই ডি  বিতরণ  মোরেলগঞ্জ ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে বসতঘর ভস্মিভূত, ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি খুলনায় আতাই নদী থেকে উদ্ধারকৃত মাহফুজকে বৈবাহিক কারণে স্ত্রীর স্বজনদের হাতে জীবন দিতে হয়েছে নওগাঁর মান্দায় নিভৃত পল্লী গ্রাম মশিদপুরে দিনব্যাপী বইমেলা বড়াইগ্রামে বর্ণিল আয়োজনে পিঠা উৎসব ও বসন্ত বরণ বাঘায় সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন  সীমান্তে হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতীকী লাশের মিছিল
বেক্সিমকোর দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তা কর্তৃক সাংবাদিক কে মামলার হুমকি

বেক্সিমকোর দূর্নীতিবাজ কর্মকর্তা কর্তৃক সাংবাদিক কে মামলার হুমকি

সাঈম সরকার : ঢাকা জেলায় আশুলিয়া থানার পার্শ্ববর্তী বেক্সিমকো লিমিটেড এর সানসিটি নামে একটি  প্রজেক্টে রয়েছে ।ঐ প্রজেক্টের জমি ক্রয়ের নামে প্রতারকদের খপ্পরে পড়ে কোম্পানির আড়াই কোটি টাকাই জলে ,শিরোনামে গণকন্ঠ সহ বিভিন্ন পত্র- পত্রিকায় বেক্সিমকো লিমিটেড এর পক্ষে ধারাবাহিক ভাবে একাধিক সংবাদ প্রকাশিত হয়। উক্ত সংবাদ প্রকাশের পর বেক্সিমকো গ্রুপের জেনারেল ম্যানেজার (এ্যাডমিন) আরিফুল ইসলাম তার ব্যবহৃত মুঠোফোন দিয়ে প্রতিবেদক-দেরকে মামলা মোকদ্দমা সহ বিভিন্ন ধরনের ভয়- ভীতি ও হুমকি- ধামকি প্রদান করে আসছে । কোম্পানির পক্ষে ৫ একর জমির বাস্তবে বৈধতা কতটা আছে আরিফুল ইসলাম সাহেব, তা হয়তো তিনি নিজেও অবগত নন।

একাধিক সূত্রে জানা যায়, কোম্পানির জমির মূল দায়িত্বে থাকা এ্যাডমিন ম্যানেজার ইউনুস আলীর উপর আরিফুল ইসলাম ছিলেন অন্ধবিশ্বাসী ও নির্ভরশীল। ইউনুস আলীর কথা মতই তিনি সকল সিদ্ধান্ত ও পদক্ষেপ গ্রহন করে আসছেন ।

ইউনুস আলী ও আরিফুল ইসলাম বলেন, মোতালেব কোম্পানির পক্ষে ওসমান কায়সার চৌধুরীরকে আমমোক্তারনামা দলিলে জমি হস্তান্তর করেন। পরে তিনি বেক্সিমকো কোম্পানির নামে সাব কবালা দলিলে জমি হস্তান্তর করেন। কোম্পানি ৬১৬ নং জোতে জমি মিউটেশন করেছেন। মোতালেবের ধারাবাহিকতায় যদি কোম্পানি জমির মালিক হয়, তাহলে সিরাজ মেম্বারকে জমির মূল্য বাবদ আড়াই কোটি টাকা কেন দেওয়া হলো, এমন প্রশ্নের জবাবে কর্মকর্তাদ্বয় বলেন, মোতালেবের নাদাবী দলিল মূলে সিরাজ মেম্বার উল্লেখিত ৫ একর জমির মালিক হয়েছে। যাহার ফলে সিরাজ মেম্বারকে জমির মূল্য বাবদ টাকা প্রদান করা হয়েছে। এমতাবস্থায় স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন জাগে যে, জমির মালিক মোতালেব নাকি সিরাজ মেম্বার ? সিরাজ মেম্বার যদি জমির মালিক হয়ে থাকে তাহলে, দেড় বছর আগে টাকা নিয়ে সিরাজ মেম্বার অদ্যবধি কোম্পানিকে জমি রেজিষ্ট্রেশন করে দিতে পারছে না কেন? আর যদি মোতালেব জমির মালিক হয়ে থাকে তাহলে কোম্পানি সিরাজ মেম্বারকে আড়াই কোটি টাকা কেন দিলো? কর্মকর্তাদ্বয়ের কথা মতোই একই জমি দুইবার দুই মালিকের নিকট থেকে কেনার পরেও কোম্পানি কেন খাজনা খারিজ(নামজারি) দিতে পারছে না।

নিয়ম অনুযায়ী সিরাজ মেম্বার জমি বিক্রি করেছে, কোম্পানিকে জমি রেজিষ্ট্রেশন করে  দেওয়ার দ্বায়িত্ব সিরাজ মেম্বরের, এটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আরিফুল ইসলাম ও ইউনুস আলী বেক্সিমকো কোম্পানির ক্ষমতা ও দাপট ব্যবহার করে ভূমি অফিসের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের উপর অপ-ক্ষমতার প্রভাব খাটিয়ে কোম্পানির টাকায়  সিরাজ মেম্বারের খতিয়ান সংশোধনে এত মরিয়া ও তৎপর কেন? তাদের স্বার্থ কি? তবে কি  আড়াই কোটি টাকার মধ্যেই রয়েছে আরিফুল ইসলাম ও ইউনুস আলীর স্বার্থ ?

কাশিমপুর ভূমি অফিসে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ২০৪/২০০৭ মামলার রায়ের প্রেক্ষিতে বেক্সিমকো কোম্পানির ৬১৬ নং জোত-টি আগে বাতিল করে মূল জোতে জমি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এরপর সিরাজ মেম্বারের ১৩/২০০৫ মামলার রায় ভিত্তিতে উল্লেখিত জোতের আংশিক বাতিল করা হয়েছে যার কোন ভিত্তি ও বৈধতা নাই ।

আবদুল মোতালেবের সাথে কথা বলে জানা যায়, তৎকালীন সময়ে জমিদারদের বন্দোবস্তের পাট্রা মূলে তিনি ১৫.৫৮ এর জমির মালিক। এর পর সরকার জমিটির মালিক দাবী করলে আবদুল মোতালেব সরকারের বিরুদ্ধে ১১৭৫/৮৫ মামলা দায়ের করেন এবং ১৯৯০ সালে মামালার ডিগ্রির বলে চুড়ান্তভাবে জমির মালিকানা লাভ করেন। তিনি আরো বলেন, ওসমান কায়সার চৌধুরীর আমমোক্তার-নামা দলিলটি রদ রহিত (পুন্ড) করা হয়েছে। ২০৪/২০০৭ মামলার রায়ে বেক্সিমকো কোম্পানির ৬১৬ জোত-টি বাতিল করা হয়েছে। একাধিক মামলায় রায় এবং জমিদারী পাট্টা মূলে তিনিই জমির বৈধ মালিক।

আবদুল মোতালেব জমির বৈধ মালিক রত অবস্থায় এম এ করিম ও তার স্ত্রীসহ কাজলকে সাফ কবলা দলিল মূলে এসএ,আরএস ৩২/২৩ দাগ হতে ৫ একর জমি হস্তান্তর করেন। এরপর এম এ করিম তার স্ত্রী ও কাজলের নিকট হতে জমি প্রাপ্ত একক ভাবে ৫ একর জমির মালিক হয়। তিনি মালিকানা লাভ করে নিজ নামে ১০১৪ জোত খুলে বাংলা ১৪১৮ সাল নাগাদ যথারীতি খাজনা প্রদান করেন, পরে এম এ করিম উল্লেখিত ৫ একর জমি আমমোক্তার-নামা দলিলে সর্বময় ক্ষমতা প্রদান র্পুবক মোঃ মোক্তার হোসেনকে আমমোক্তার নিয়োগ করেন। উক্তরুপে বর্তমান জমির মালিক মোঃ মোক্তার হোসেন। সিরাজ মেম্বারের নিকট জমি হস্তান্তরের বিষয়ে আবদুল মোতালেব বলেন, সিরাজ মেম্বারকে আমি কোন নাদাবী দলিল বা পাওয়ার দেই নাই । সিরাজ মেম্বার আমার স্বাক্ষর জাল-জালিয়াতি করে নাদাবী দলিল তৈরি করেছে। আমার স্বাক্ষরের সাথে নাদাবী দলিলের স্বাক্ষর পর্যালোচনা করলেই সত্যতা পাওয়া যাবে। এ্যাডমিন ম্যানেজার মোঃ ইউনুস আলীর যোগসাজশে সিরাজ মেম্বার বেক্সিমকো গ্রুপের বিরুদ্ধে ১৩/২০০৫ নং মামলা দায়ের করে। বেক্সিমকো কোম্পানির ভূমির দায়িত্ব প্রাপ্ত ম্যানেজার ইউনুছ আলী যদি নিজের স্বার্থকে প্রাধান্যতা না দিয়ে কোম্পানির স্বার্থে মামলার বিষয়ে একটু তৎপর হতো তাহলে সিরাজ মেম্বার কোন ভাবেই এই মামলায় ডিগ্রি পায় না। কারন ভূমি আইনে নাদাবী দলিলের বলে জমি হস্তান্তরের বা মালিকানা হওয়ার কোন বৈধতা বা সুযোগ নাই। এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন আইনজীবী বলেন, ভূমি আইনে নাদাবী দলিলে জমির মালিকানা হওয়ার কোন সুযোগ নাই, নাদাবীর দলিলে জমি হস্তান্তর ভুমি আইনের পরিপন্থী।

মোতালেব আরো বলেন, ম্যানেজার ইউনুস আলী সিরাজ মেম্বারের যোগসাজশে তাকে দিয়েই এই সব অপকর্ম করিয়ে মামলার সমঝোতা চুক্তির নামে কোম্পানির পক্ষে ২৭/০৪/২০১৯ তারিখে ম্যানেজার ইউনুস আলী স্বাক্ষর করে সিরাজ মেম্বারকে আড়াই কোটি টাকা প্রদান করেন। এ বিষয়ে ম্যানেজার ইউনুস আলীর নিকট জানতে চাইলে, জমি ক্রয়ের বিষয়টি তিনি স্বীকার করলেও টাকা পয়সা হস্তান্তরের বিষয়টি জেনারেল ম্যানেজার মোঃ আরিফুল ইসলামকে দোষারুপ করে তাহার উপর চাপিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেন।

এলাকার একাধিক সূত্রে জানা যায়, তৎকালীন সময়ে কোম্পানির কর্মকর্তারা এলাকার দালাল চক্রদের নিয়ে কোম্পানির জমি ক্রয়ের নামে করেছেন লুটতরাজ আর বানিজ্য। হাতিয়ে নিয়েছেন কোম্পানির কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা। জমির দায়িত্ব থাকা কোম্পানির কর্মকর্তারা নিজেদের স্বার্থকে প্রধান্যতা দিয়ে কোম্পানির স্বার্থে পুরোপুরিই উদাসীন ছিলেন। কোম্পানির কর্মকর্তারা সরেজমিনে জমি না দেখেই শুধু কাগজ কলমেই কোম্পানির নামে জমি কিনেছে । এর যোগসাজশে ছিলো এলাকার প্রতারক দালাল চক্র।

সার্বিক বিষয় জানতে কোম্পানির জেনারেল ম্যানেজার মোঃ আরিফুল ইসলাম এর সাথে যোগাযোগের চেষ্টা করলে তা আর সম্ভব হয়নি।

উল্লেখিত বিষয়গুলি বেক্সিমকো গ্রুপের কর্তৃপক্ষের নজরে আসার প্রয়োজন্ মনে করে গণকণ্ঠ ও জাতীয় দৈনিক, আজকের আলোকিত সকাল-সহ একাধিক পত্রিকায় সংবাদ গুলো ধারাবাহিক প্রকাশ করা হয়। সংবাদটি প্রকাশিত হলে কোম্পানির ম্যানেজার ইউনুস আলী কোন উপায় খুজে না পেয়ে, নিজের অপরাধ ধামাচাপা দিতে এবং  নিজের চাকুরী বাঁচানোর জন্য জেনারেল ম্যানেজার আরিফুল ইসলামেকে তার নিজের মতো করে বুঝিয়ে সাংবাদিকদের বিরুদ্ধে খেপিয়ে তুলেন । নিজের অপরাধ ধামাচাপা দিয়ে কোম্পানির নিকট সাধু সেজে চাকুরী বাঁচানোর জন্য সিরাজ মেম্বারের নামে যে কোন ভাবে রেকর্ড সংশোধন করে জমির মালিকানা টিকানোর জন্য অপচেষ্টা  চালিয়ে যাচ্ছেন।

আমমোক্তার-নামা দললি সূত্রে বর্তমান মালিক মুক্তার হোসেনের সাথে কথা বললে তিনি জানানঃ সিরাজ মেম্বারকে জমির টাকা প্রদানের আগেই একাধিক বার আমি ম্যানেজার ইউনুস আলীর নিকট জমির বৈধ মালিকানার কাগজপত্রসহ গিয়েছিলাম । কিন্তু ঐ অসাধু দূষ্কৃতি ম্যানেজার আমাকে পাত্তা না দিয়ে বরং দূর্ব্যবহার করে আমাকে তারিয়ে দিয়েছে। সিরাজ মেম্বারের সাথে জড়িত সকল দূষ্কৃতিদের বিরুদ্ধে জাল জালিয়াতি, প্রতারণাসহ চিটিং মামলা দায়েরের প্রস্তুতি নিচ্ছি।বেক্সিমকো গ্রুপের মালিক কর্তৃপক্ষের কাছে আকুল আাবেদন এই যে, উল্লেখিত বিষয়গুলো খতিয়ে দেখে অসাধু দূষ্কৃতিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য জোর দাবি জানাচ্ছি । অন্যাথয় একদিকে কোম্পানির যেমন ভাবমূর্তি নষ্ট হচ্ছে অন্য দিকে কোম্পানির ও জমির মূল মালিকদের আর্থিক ভাবে অপূর্ণীয় ক্ষতি হচ্ছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত