শিরোনাম :
“প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল (পিপিএম)- সেবা” পেলেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোঃ ফরহাদ সরদার সাভারে বিএনসিসির সেন্ট্রাল ক্যাম্পিংয়ের সম্মিলিত কুচকাওয়াজ ও ডিসপ্লে অনুষ্ঠিত এম এম আমিনুল ইসলামকে আয়ারল্যান্ড প্রতিনিধি হিসাবে নিয়োগ দান  লক্ষীপুরে ডিবির জালে যৌন কর্মীসহ ৫জন আটক রক্তবন্ধু সমাজকল্যাণ সংগঠনের ৩য় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উপলক্ষে অভিভাবক এওয়ার্ড ও গুণীজন সম্মাননা সাভার উপজেলা পরিষদ ঢাকা-১৯ এর এমপিকে সংবর্ধনা নওগাঁর পুলিশ সুপার”প্রেসিডেন্ট পুলিশ মেডেল” (পিপিএম-সেবা) প্রাপ্তি বড়াইগ্রামে জাতীয় পরিসংখ্যান দিবস পালিত  মাদক নিয়ে  ট্রেন চালক সহ গ্রেপ্তার ৫  ভোলায় রওশন আরা ও রাব্বী হত্যার বিচারের দাবীতে মানববন্ধন 
ভোলায় রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের মোস্তাক আহমেদ শাহীন

ভোলায় রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের মোস্তাক আহমেদ শাহীন

মোঃ ফরিদুল ইসলাম : ভোলায় রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রেরে মোস্তাক আহমেদ শাহীন ২০১৩ সালের মিথ্যা মামলায় বিচারাধীন আদালতকে প্ররোচিত করে সাজা দেয়ার নীল নঁকশা চালাচ্ছে,গত বৃহস্পতি বার, ০১ অক্টোবর, ২০২০ইং তারিখে ২০১৩ সালের মিথ্যা মামলায় বিচারাধীন আদালতকে প্ররোচিত করে আমাকে সাজা দেয়ার নীল নঁকশা চালাচ্ছে ভোলায়।
ভোলা জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি ও জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক মোস্তাক আহমেদ শাহিন অভিযোগ করে বলেন “২০১৩ সালে দলীয় আভ্যন্তরীণ কোন্দলের একটি মামলায় স্থানীয় ক্ষমতাসীন মহল পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এর মাধ্যমে বিচারাধীন আদালতকে প্ররোচিত করে আমাকে সাজা প্রদানের নীল নঁকশা হচ্ছে।
 ৪ মে’২০১৩ সালে স্থানীয় এক যুবলীগ নেতাকে পুলিশ কর্তৃক গ্রেপ্তার করাকে কেন্দ্র করে একদল উত্তেজিত যুবলীগ কর্মী জেলা আ’লীগ কার্যালয়ের আসবাবপত্র ভাংচুর করে।
 সেই ঘটনায় একই মামলায় ভাংচুর ও বিস্ফোরক আইনের ৩ ধারায় চার্জশীট প্রদান করে পুলিশ। ঘটনার সাথে আমার কোনো রকম সংশ্লিষ্টতা না থাকা সত্বেও কেবল রাজনৈতিক ভাবে হয়রানী করার হীন মানষে আমাকে এই মামলায় আসামী করা হয়েছে।
ভোলার আওয়ামীলীগ নেতা কর্মীগনসহ সর্বোস্তরের সাধারন মানুষ জ্ঞাত আছেন, কেবল মাত্র রাজনৈতিক মতানৈক্যের কারনে আমাকে ২০১৭ সালে সাড়ে তিন মাস কারাভোগ করতে হয়েছে। ২০১৮ সালে একবার জানাজা থেকে ২০১৯ সালে আমার বাস ভবন থেকে গ্রেপ্তার করে মিথ্যা মাদক মামলায় আসামী করে দীর্ঘদিন কারাবন্দী করে রাখা হয়।
 অর্থাৎ তিন বছরের মধ্যে প্রভাবশালী মহলের আক্রোশে পড়ে আমাকে দীর্ঘ ১১মাস ২৩ দিন কারাবন্দী থাকতে হয়েছে। এরপরেও চলছে ষড়যন্ত্র।
 আমি ওপেনহার্ট সার্জারীর প্যাশেন্ট। চলতি বছরের ফেব্রুয়ারী মাসে পুনরায় আমার হৃদযন্ত্রে দুটি রিং পড়ানো হয়েছে। শারিরীক এহেন অবস্থায় এখন আবার সেই পুরনো কুশীলবরা পাবলিক প্রসিকিউটরের মাধ্যমে বিচারাধীন আদালতকে নানা ভাবে প্ররোচিত করে আমাকে সাজা প্রদানের অপচেষ্টা করছে।
তাছাড়া বিচারাধীন মামলায় বাদী যেভাবে কনফার্ম সাজার আগাম ঘোষনা দিচ্ছে তাতে আমি ধরে নিয়েছি এই আদালতে আমি ন্যায় বিচার পাবোনা। আমার এডভোকেটের সকল আইনী সুবিধা কেড়ে নিয়ে পিপির পরামর্শ মোতাবেক আদালত তার বিচার কার্য চালিয়ে যাচ্ছে খেয়াল খুশী মতো।
তাই আমি গণমাধ্যমের সহায়তায় আমার কথা গুলো বাংলাদেশ ১৮ কোটি জনগণের অভিভাবক দেশে নেত্রী মাননীয়া প্রধান প্রধানমন্ত্রীসহ সাধারন জনগনকে জানানোর উদ্যোগ নিয়েছি।
 আমি গনতন্ত্রের মানসকন্যা মানবতার মহান নেত্রী দেশরত্ম শেখ হাসিনার সবিনয় হস্তক্ষেপ কামনা করছি। 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত