শিরোনাম :
দিঘলিয়া উপজেলা শেখ রাসেল মিনি স্টেডিয়ামের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপনে ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী  নওগাঁয় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এর অভিযানে ৬কেজি গাঁজাসহ আটক-১ নাহিদুজ্জামান বাবুর স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি  সিরাজগঞ্জে গরু চুরিতে বাধা দেওয়ায় পিকআপের চাপায় গৃহবধু হত্যা,ডাকাত দলের ৪ পলাতক আসামী গ্রেফতার বড়াইগ্রামে পাটোয়ারী কোয়ালিটি এডুকেয়ার ইনস্টিটিউটে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতা অনুষ্টিত পূর্বধলায় সরকারী চাকুরীজীবী হওয়া সত্বেও করেন সাংবাদিকতা খুলনায় মাসব্যাপী একুশে বইমেলা শুরু ,বই ছাড়া জ্ঞান অর্জন করা যায় না -সিটি মেয়র বিভাগীয় সমাবেশ উপলক্ষে ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপির বর্ধিত সভা পাতাল রেল নির্মাণ কাজের উদ্বোধন রোহিঙ্গা প্রসঙ্গে ‘বিশ্ব হাত গুটিয়ে বসে থাকলে আবারো ২০১৭ সালের পুনরাবৃত্তি হবে :জাতিসংঘ
মধুপুরে কাজের খোঁজে শতশত দিনমজুরের ভীড় 

মধুপুরে কাজের খোঁজে শতশত দিনমজুরের ভীড় 

মধুপুর ( টাঙ্গাইল) প্রতিনিধিঃ
ভোর হতে না হতেই কনকনে শীত উপেক্ষা করে প্রতিদিন কাজের সন্ধানে শতশত দিনমজুর ছুটে আসেন টাঙ্গাইলের  মধুপুর বাসস্ট্যান্ডের আনারস চত্বরে। তাদের কারো ভাগ্যে কাজ জোটে আবার অনেকেরই নিরাশ হয়ে ফিরে যেতে হয় নিজ নিজ গন্তব্যে। এ যেন  এক ভাগ্যের নির্মম পরিহাস।
সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, প্রায় একশো জনের উপরে দিনমজুর কাজের সন্ধানে দাঁড়িয়ে আছে মধুপুর বাসস্ট্যান্ডের আনারস চত্বরে।
তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদে জানা যায়, কাজের খোঁজে দলবেঁধে কেউ এসেছেন প্বার্শবর্তী ফুলবাড়িয়া, মুক্তাগাছা, ধনবাড়ি, ঘাটাইল ও গোপালপুর উপজেলা থেকে আবার অনেকে এসেছেন রংপুর, দিনাজপুর, রাজশাহী ও পঞ্চগর থেকে।  এই হতদরিদ্র মানুষগুলোর কষ্টের কথা আমরা কেউ কি জানি?
যারা দিন এনে দিন খায়, একদিন কাজ না পেলে যাদের চুলায় আগুন জ্বলেনা, যাদের সংসার প্রতিদিনের আয় উর্পাজনের উপর নির্ভরশীল। সেই মানুষগুলোর কথা আজকাল আর কেউ ভাবেনা। এদের কেউ কেউ ছেলে মেয়েদের পড়াশোনার খরচ যোগাতে এই কনকনে শীতের মধ্যে ভোর বেলায় বাড়ি থেকে বেড়িয়ে পড়েন কাজের সন্ধানে আবার অনেকেরই দিন শেষে বাজার না নিয়ে বাড়ি গেলে সংসারের সবাইকে নিয়ে উপোষ থাকতে হয়। এমনই ভাবে জীবন যুদ্ধে মাথার ঘাম ঝরান খেটে খাওয়া এই হতদরিদ্র মানুষগুলো।
মধুপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকার কৃষকগন তাদের কৃষি জমিতে কাজ করানোর জন্য সকালেই ছুটে আসেন এই সকল দিনমজুরদের কাছে।
মধুপুর পৌরসভাধীন পুন্ডুরা গ্রামের কৃষক আবু্ল হোসের   জানান, বর্তমানে ৫০০ থেকে ৬০০ টাকা করে কামলা (দিনমজুর) নিয়ে কাজ করতে হচ্ছে সাথে দুই বেলা খাবারও দিতে হয়। দিন ছোট হওয়ার কারণে তুলনামূলক ভাবে কাজ করানো সম্ভব হয় না।
পঞ্চগড় জেলার দেবীগঞ্জের দিনমজুর মজিবুল ইসলাম(১৮)জানান, অভাবের সংসার, টাকা পয়সা না থাকার কারণে ছোট ভাই বোনদের লেখাপড়া করাতে পারতেছি না। আমিও লেখাপড়া করতাম, সংসারে অভাব অনটনের কারণে স্কুল ছেড়ে কাজের খোঁজে এই মধুপুরে এসেছি। আমার সাথে আরও ৪জন এসেছে যতদিন পারি কাজ করে বাড়ি ফিরে যাবো।
মুক্তাগাছা উপজেলার কাদের মিয়া জানান, এতো শীতের মধ্যে সকাল থাইকা বিকালবেলা পর্ষন্ত কাম(কাজ) কইরা ৫/৬শো টেহায় এহন আর চলেনা। সব জিনিসের দাম বাড়তি, আমাগোর দাম তো আর বাড়তাছেনা।
তার মধ্যে একদিন কাম পাইলে তিনদিন বইয়া থাহন লাগে। খাইয়া না খাইয়া খুবই কষ্টের মধ্যে দিন কাটতাছে।
এই দিনমজুরের কাজ বহুদিন থেকে মধুপুর উপজেলার বিভিন্ন অঞ্চলে প্রচলিত হয়ে আসছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত