শিরোনাম :
নরেন্দ্র মোদি পূণরায় ক্ষমতায় এলে ৬ মাসের মধ্যে কাশ্মিরকে ভারতের অংশ করা হবে সিরাজগঞ্জে চলতি বছরই সেতু দিয়ে চলবে ট্রেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত দিঘলিয়ায় মহি মল্লিকের নির্বাচনী নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে পুলিশী হয়রানীর অভিযোগ  নওগাঁয় গ্রামীন ব্যাংকের মত বিনিময় সভা-অনুষ্ঠিত  আশুলিয়ার শিমুলিয়ায় ভূমিদস্যুদের দখলে অসহায় মাসুদের জমি  আপনি বাংলাদেশ ব্যাংকে ঢুকবেন কেন সাংবাদিকেদের প্রশ্ন ওবায়দুল কাদেরের ইসরাইল হেরে যাচ্ছে: সাবেক গোয়েন্দা উপ-প্রধান শ্রীবরদীতে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার আশুলিয়ায় চায়না আদিবাসী নারী পাচার চক্রের বিরুদ্ধে মানববন্ধন
মহাদেবপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রহস্যজনক চুরি; এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও মামলা করা হয়নি!

মহাদেবপুরে প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রহস্যজনক চুরি; এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও মামলা করা হয়নি!

হাবিবঃ
নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলার রাইগাঁ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে রহস্যজনক চুরির ঘটনা ঘটেছে। বিদ্যালয়টি উপজেলার রাইগাঁ ইউনিয়নের মাতাজী হাট এলাকায় অবস্থিত। নিয়োগপ্রাপ্ত ‘দপ্তরী কাম প্রহরী’ থাকার পরেও কিভাবে চুরির ঘটনা ঘটেছে তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা।
তবে ঘটনার এক সপ্তাহ পেরিয়ে গেলেও কোনো মামলা দায়ের করা হয়নি। বিদ্যালয় সংশ্লিষ্ট কেউ জড়িত কিনা, সে বিষয়টিও তদন্ত করেনি কর্তৃপক্ষ।
বিদ্যালয় ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, গত ৯ জানুয়ারি বৃহস্পতিবার সকালে বিদ্যালয়ের অফিসের পাশের কক্ষের তালা ভাঙ্গা ও তছনছ অবস্থা দেখতে পেয়ে দপ্তরী কাম প্রহরী আলমগীর কবির প্রধান শিক্ষক রাশেদুল হককে বিষয়টি অবহিত করে। ওই কক্ষের দরজার তালা ভেঙ্গে একটি ল্যাপটপ, কিবোর্ড-মাউস, প্রিন্টার, দুটি প্রজেক্টর ও একটি বায়োমেট্রিক হাজিরা মেশিন চুরি করে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। এদিকে রহস্যজনক এ চুরির ঘটনায় মামলা দায়ের না করে দপ্তরী কাম প্রহরী উল্টো চুরি হয়ে যওয়া মালামাল বিদ্যালয়ে কিনে দেয়ায় স্থানীয় সচেতন মহলে নানা প্রশ্নের সৃষ্টি হয়েছে। বর্তমানে তিনি (দপ্তরী কাম প্রহরী) ‘ইপসন এল-১৩০’ মডেলের একটি প্রিন্টার কিনে দিয়েছেন এবং বাঁকি মালামাল বিভিন্ন দোকান থেকে সংগ্রহ করছেন। অপরদিকে প্রধান শিক্ষক রাশেদুল হক এর বক্তব্য গ্রহণের জন্য গত সোমবার দুপুর দু’টার দিকে বিদ্যালয়ে গেলে সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে তিনি পালিয়ে যান। পরে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগের চেষ্টা করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।
দপ্তরী কাম প্রহরী আলমগীর কবির বলেন, ‘প্রতি রাতে বিদ্যালয়ে থাকার নিয়ম থাকলেও সেদিন রাতে বাড়িতে ছিলাম; এজন্য চুরি হওয়া মালামাল কিনে দিচ্ছি। বর্তমানে একটি প্রিন্টার কিনে দিয়েছি। বাঁকি মালামাল কেনা প্রায় শেষ হয়েছে। আমার বাড়িতে রয়েছে, দ্রুত তা বিদ্যালয়ে পৌঁছে দিবো।’
উপজেলা শিক্ষা অফিসার মাযহারুল ইসলাম বলেন, ‘বিদ্যালয় থেকে চুরি হয়ে যাওয়া মালামাল কিনে দেয়ার কেনো সুযোগ নেই। বিষয়টি জানার পর প্রধান শিক্ষককে দপ্তরী কাম প্রহরীর বিরুদ্ধে মামলা করতে বলা হয়েছে।’ তিনি আরো বলেন, ‘আপনার কাছ থেকে শুনলাম এখনো মামলা করা হয়নি। মামলা না করা হলে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।’
মহাদেবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নজরুল ইসলাম জুয়েল বলেন, ‘বিষয়টি আমার জানা নেই। এ ব্যাপারে কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত