শিরোনাম :
ঝিনাইগাতী গজনী অবকাশ কেন্দ্র বাসের চাপায় প্রাণ গেলো আইসক্রীম বিক্রেতার বর্ণাঢ্য আয়োজনে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন গাজীপুর জেলার পিকনিক ২০২৪  অনুষ্ঠিত সবসময়ই কালোকে কালো এবং সাদাকে সাদা বলে দৈনিক  যুগান্তর ভান্ডারিয়ায় স্মার্ট আই ডি  বিতরণ  মোরেলগঞ্জ ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে বসতঘর ভস্মিভূত, ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি খুলনায় আতাই নদী থেকে উদ্ধারকৃত মাহফুজকে বৈবাহিক কারণে স্ত্রীর স্বজনদের হাতে জীবন দিতে হয়েছে নওগাঁর মান্দায় নিভৃত পল্লী গ্রাম মশিদপুরে দিনব্যাপী বইমেলা বড়াইগ্রামে বর্ণিল আয়োজনে পিঠা উৎসব ও বসন্ত বরণ বাঘায় সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন  সীমান্তে হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতীকী লাশের মিছিল
রংপুরের বাজারে লাগামহীন পেঁয়াজের দাম!

রংপুরের বাজারে লাগামহীন পেঁয়াজের দাম!

জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের সাথে ব্যবসায়ীদের বৈঠক

অজয় সরকার দুলু : রংপুরের পাইকারী বাজারে পেঁয়াজের প্রতি কেজিতে ১শ’ টাকা হলেও খুচরা বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে ১শ’২০ টাকা। লাগামহীনভাবে বেড়ে চলছে পেঁয়াজের দাম। গেলো তিন থেকে চার মাসের ব্যবধানে নিত্যপণ্যটির দাম বেড়ে দ্বিগুণেরও বেশি হয়েছে। পাইকারী পর্যায়ে দেশী পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজিতে ১শ’টাকা পর্যন্ত, যেটি মুদির দোকানে গিয়ে ঠেকছে ১শ’২০ টাকায়।
পেঁয়াজের পাইকারী ব্যবসায়িরা বলছেন, এ বছর পেঁয়াজের উৎপাদনে ঘাটতি এবং ভারতীয় সরকার পেঁয়াজ রপ্তানি বন্ধ করে দেয়ায় বাজারে এমন অস্থিরতা সৃষ্টি হয়েছে। এ অবস্থায় হিসাব মেলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে ক্রেতাদের। পেঁয়াজের ঝাঁজ খাবারের স্বাদ বাড়ালেও, আতঙ্ক বাড়িয়ে চলছে বাজারে। অনেক ক্রেতা পেঁয়াজের দাম বেশি হওয়ার আশঙ্কায় বেশি করে ক্রয় করছেন। লাগামহীন দামে জনজীবনে অস্থিরতার নতুন মাত্রা যোগ করে চলছে পেঁয়াজের এই ঝাঁজ।

রংপুর সিটি বাজারের বড় আড়ৎ ঘুরে দেখাগেছে, দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে কেজিতে ১শ’ টাকা আর আমদানি করা পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৯০ টাকা থেকে ৯৫ টাকায়। এই পরিস্থিতির জন্য ব্যবসায়ীরা দায় চাপান ভারতীয় রপ্তানিকারদের উপর। সিটি বাজার থেকে পণ্যটি যখন অন্যান্য বাজারে আসছে তখন কেজিতে আরো বাড়ছে পাঁচ থেকে ১০ টাকা। আর মুদি দোকানে পেয়াঁজের দাম ধরাছোঁয়ার বাইরে।
তবে ব্যবসায়ীরা বলছেন, দেশের পেঁয়াজের বাজার ভারত থেকে আমদানির ওপর অনেকাংশে নিভর্রশীল। ভারতের বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে। তাই দেশেও এর প্রভাব পড়েছে। এছাড়া ভারতীয় পেঁয়াজের আমদানিও বন্ধ রয়েছে। এ কারণে দেশে বাজারে পেঁয়াজের দাম বাড়তি হয়েছে।
রংপুর সিটি বাজার ব্যবসায়ী সমিতির সভাপতি আলহাজ্ব মোস্তফা কামাল জানান, দেশের অধিকাংশ বাজার ভারতীয় পণ্যের ওপর নির্ভশীল। এছাড়াও দেশি পেঁয়াজের পর্যাপ্ত সরবরাহ নেই, তাই দাম বেশি। পাশাপাশি দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে বন্ধ করে দেয়া হয়েছে পেঁয়াজের আমদানি। এতে করে শত শত পেঁয়াজ ভর্তি ট্রাক আটকা পড়ে আছে। পেঁয়াজের এই দাম বেশিদিন থাকবে না। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে পেঁয়াজের দাম স্বাভাবিক হবে। তিনি আরও বলেন, সকালে রংপুর ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তাদের সাথে ঘন্টাব্যাপি বৈঠক হয়েছে। বৈঠকে কর্মকর্তারা প্রতিকেজি পেঁয়াজ ৭০টাকা ধরে বিক্রির পরামর্শ দিয়েছেন। এছাড়াও প্রতিটি দোকানে পণ্যের মূল্য তালিকা টানানের জন্য বলা হয়েছে।
নজিরের হাট এলাকার ব্যবসায়ী সাদেকুল ইসলাম জানান, মোকামের ব্যবসায়ীরা চাহিদা মতো পেঁয়াজ দিচ্ছে না। তারা ভারতীয় পেঁয়াজ বন্ধের অজুহাত দেখিয়ে চাহিদার তুলনায় অর্ধেক পেঁয়াজ দিচ্ছে। ফলে পেঁয়াজের সংকট দেখা দিয়েছে। বাজারে ক্রেতাদের কাছে ১শ’২০ টাকার কম দামে পেঁয়াজ বিক্রি করা সম্ভব হচ্ছে না।
সিটি বাজারে বাজার করতে আসা সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘হঠাৎ পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি হওয়ায় চরম বিপাকে পড়েছি। চাহিদা এক কেজি থাকলেও ২শ’৫০ গ্রাম, পেঁয়াজ নিলাম।
আমদানিকারক সিরাজুল ইসলাম জানান, ভারতীয় পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা জানিয়েছেন বন্যার কারণে সে দেশের পাটনা, বিহার, কানপুর, ইন্দর, গুজরাট, রাজস্থান রাজ্য থেকে বাংলাদেশে পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ রয়েছে। শুধু নাসিক ও বেঙ্গালোর থেকেই পেঁয়াজ আমদানি করা হচ্ছে। তবে আমদানি না বাড়ালে দাম আরও বাড়তে পারে।
এ বিষয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের রংপুর বিভাগীয় উপপরিচালক মো. জাহাঙ্গীর আলম জানান, বাজারে হঠাৎ করে পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি পাওয়ায় আমরা ব্যবসায়ী নেতাদের সাথে আলোচনা করছি। ব্যবসায়ীদের ৭০ টাকা ধরে পেঁয়াজ বিক্রি নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। তারা বলেছেন, এক সপ্তাহের মধ্যে বাজার পেঁয়াজের মূল্য স্বাভাবিক হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত