শিরোনাম :
শ্রীবরদীতে গ্রাম আদালত কার্যক্রম অগ্রগতি বিষয়ে আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত নরেন্দ্র মোদি পূণরায় ক্ষমতায় এলে ৬ মাসের মধ্যে কাশ্মিরকে ভারতের অংশ করা হবে সিরাজগঞ্জে চলতি বছরই সেতু দিয়ে চলবে ট্রেন ইরানের প্রেসিডেন্ট হেলিকপ্টার দুর্ঘটনায় নিহত দিঘলিয়ায় মহি মল্লিকের নির্বাচনী নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ দিয়ে পুলিশী হয়রানীর অভিযোগ  নওগাঁয় গ্রামীন ব্যাংকের মত বিনিময় সভা-অনুষ্ঠিত  আশুলিয়ার শিমুলিয়ায় ভূমিদস্যুদের দখলে অসহায় মাসুদের জমি  আপনি বাংলাদেশ ব্যাংকে ঢুকবেন কেন সাংবাদিকেদের প্রশ্ন ওবায়দুল কাদেরের ইসরাইল হেরে যাচ্ছে: সাবেক গোয়েন্দা উপ-প্রধান শ্রীবরদীতে গৃহবধূর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার
রাজধানীতে প্রকাশ্য ছিনতাই করছে ভয়ঙ্কর ছিনতাইকারীরা

রাজধানীতে প্রকাশ্য ছিনতাই করছে ভয়ঙ্কর ছিনতাইকারীরা

মোঃ জাহাঙ্গীর আলমঃ রাজধানীতে প্রকাশে ছিনতাই করছে ছিনতাইকারীরা ভয়ঙ্কর হয়ে উঠেছে ছিনতাইকারী চক্র। মাদক ব্যবসায়ীদের মতো প্রতিনিয়ত নিত্য নতুন কৌশল প্রয়োগ করে নির্বিঘেœ ছিনতাই করে যাচ্ছে তারা। আগে যেখানে নিরিবিলি বা অন্ধকারাচ্ছন্ন নীরব এলাকায় ছিনতাই করা হতো, এখন ছিনতাই হচ্ছে শত শত মানুষের মধ্যেই। জনসমাগমপূর্ণ এলাকাতেও সংঘবদ্ধ ছিনতাইকারীরা ‘বন্ধু’ সেজে বা পরিচিতির ভান করে কৌশলে টার্গেটকৃত ব্যক্তিকে জিম্মি করে কেড়ে নিচ্ছে সর্বস্ব। সন্দেহ এড়াতে সুন্দরী-স্মার্ট নারী চক্র টার্গেট করে ছিনতাইয়ে নেমেছে। দিনে-দুপুরে নিরীহ মানুষদের হেনস্থা করে সব লুটে নিচ্ছে বেপরোয়া ছিনতাইকারীচক্র। সম্প্রতি উত্তরায় একজন স্কুল শিক্ষিকার দুই দফায় ছিনতাইয়ের ঘটনার ভিডিও ফুটেজ প্রকাশের পর ঘটনাটি ব্যাপক আলোচিত হলেও এখনও ধরা পড়েনি জড়িত ছিনতাইকারীরা।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, দীর্ঘদিন ধরেই রাজধানীর উত্তরা, মিরপুর প্রশিকার মোড়, খেজুরবাগান, কারওয়ান বাজার, ফার্মগেট, বাংলামোটর, মগবাজার, পান্থপথ, ঢাকা উদ্যান, দৈনিক বাংলা-মতিঝিল, আরামবাগ, সায়দাবাদ, শাহজাহানপুর, যাত্রাবাড়ী, খিলগাঁও, পুরান ঢাকার বংশাল, সদরঘাট এলাকা, ইংলিশ রোড, শ্যামপুর-গেন্ডারিয়াসহ বেশ কয়েকটি পয়েন্টে এই ছিনতাইকারী চক্র ব্যাপক তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে। পুলিশ ও র‌্যাবের কঠোর অভিযানের কারণে মাঝখানে কিছুদিন তৎপরতা কমে গেলেও সম্প্রতি ছিনতাইকারীচক্র আবারও মাথা চাড়া দিয়ে উঠছে। কিন্তু সেই তুলনায় গ্রেফতার অভিযান কম পরিচালিত হচ্ছে বলেও ভুক্তভোগীদের অভিযোগ রয়েছে।
জানা যায়, ১৮ জানুয়ারি সকালে উত্তরার ৫ নম্বর সেক্টরের ৩ নম্বর সড়কে একই ঘটনায় দুই দফায় ছিনতাইয়ের শিকার হন স্থানীয় একজন স্কুল শিক্ষিকা। আলোচিত এই ছিনতাইয়ের ভিডিও ফুটেজে দেখা গেছে, মোটরসাইকেল আরোহী দুই ছিনতাইকারী প্রথমে ভুক্তভোগী নারীর ভ্যানিটি ব্যাগ ছিনিয়ে নেয়। এরপর আবার ফিরে এসে দ্বিতীয় দফায় তাকে শারীরিকভাবে হেনস্থা করে তথা হিজাব সরিয়ে গলার চেইনসহ স্বর্ণালঙ্কার নিয়ে যায়। আর এই ঘটনাটি সম্পন্ন করতে ছিনতাইকারীরা সময় নেয় মাত্র ৩৪ সেকেন্ড। ইতোমধ্যেই ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধমে ভাইরাল হয়েছে। তবে আলোচিত এ ঘটনায় মঙ্গলবার পর্যন্ত কাউকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ।
ওই শিক্ষিকার স্বামী রুহুল আমিন দৈনিক আজকের আলোকিত সকাল প্রতিনিধিকে জানান, রিকশায় করে প্রতিদিনের ন্যায় স্কুলে যাচ্ছিলেন তার স্ত্রী। হঠাৎ করেই পেছন থেকে পালসার ব্র্যান্ডের একটি মোটরসাইকেলে হেলমেট পরিহিত দুইজন আরোহীর একজন ছুটে এসে রিকশায় বসে থাকা তার স্ত্রীর হাতে থাকা ভ্যানিটি ব্যাগ নিয়ে যায়। ভ্যানিটি ব্যাগ নেওয়ার পরে তারা কিছু সময়ের মধ্যে আবারও ফিরে আসে। দ্বিতীয় দফায় হিজাব সরিয়ে গলা থেকে স্বর্ণের চেইন ও হাতে থাকা চুড়ি ছিনিয়ে নিয়ে দ্রæত চলে যায় ছিনতাইকারীরা। রুহুল আমিন বলেন, ছিনতাইকারীরা কতটা বেপরোয়া তা এই ঘটনায় অনুমান করা যায়। দিনে-দুপুরে একই ব্যক্তির কাছ থেকে দফায় দফায় ঘুরেফিরে এসে ব্যাগ-স্বর্ণালঙ্কার ছিনিয়ে নিল, কোনো কিছু পরোয়াও করল না! এই বেপরোয়া ছিনতাইকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। থানা পুলিশ ও ডিবি পুলিশ শুনেছি এ বিষয়ে গুরুত্বের সঙ্গে কাজ করছে, কিন্তু ভিডিও ফুটেজ থাকার পরও জড়িতরা এখনও গ্রেফতার হয়নি।
ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি-উত্তর) উপকমিশনার মো. মশিউর রহমান দৈনিক আজকের আলোকিত সকাল প্রতিনিধিকে বলেন, উত্তরার ওই ছিনতাইয়ের ঘটনায় ডিবি পুলিশ কাজ করছে। জড়িতদের শনাক্ত করতে ভিডিও ফুটেজ যাচাইসহ সম্ভাব্য বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হচ্ছে। ডিসি মশিউর রহমান বলেন, ছিনতাইকারী-ডাকাতসহ পেশাদার অপরাধীদের গ্রেফতারে নিয়মিত অভিযান চালানো হচ্ছে। উল্লেখযোগ্য সংখ্যক গ্রেফতারের ঘটনাও রয়েছে। এ বিষয়ে কঠোর অবস্থানে রয়েছে ডিবি পুলিশ।
অনুসন্ধানে জানা গেছে, ছিনতাইকারীরাও এখন কৌশল পাল্টে ভয়ঙ্কর অপকর্ম চালিয়ে যাচ্ছে। তার নির্জন স্থানের চেয়ে বরং জনসমাগমপূর্ণ এলাকাতেই বেশি ছিনতাই করছে। দুই থেকে তিনজনের গ্রুপ মিলে টার্গেট ব্যক্তির কাঁধে হাত রেখে ‘বন্ধু’ বা পরিচিতজনের ভান করছে। পথচারী বা টহল পুলিশ গেলেও স্বাভাবিক দৃষ্টিতে তা ধরা পড়ছে না। এ অবস্থায় গোপনে টার্গেট ব্যক্তির শরীরে পিস্তল বা ধারালো অস্ত্র ঠেকিয়ে সর্বস্ব কেড়ে নিচ্ছে ছিনতাইকারীরা। কেউ এতে বাড়বাড়ি করলেই হতাহতের ঘটনা ঘটছে। এমন ছিনতাইকারী গ্রুপ মূলত মিরপুরের প্রশিকার মোড়ে, কারওয়ান বাজার, বাংলামোটর, হাতিরঝিল, রামপুরা, সায়দাবাদ, গুলিস্তানসহ আরও কিছু এলাকায় সক্রিয় রয়েছে বলে জানা গেছে।
জানা যায়, সোমবার (৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যার দিকে বাংলামোটর থেকে কারওয়ান বাজারের দিকে যাচ্ছিলেন তিন বন্ধু। পথে বাংলামোটর-সোনারগাঁও হোটেলের মাঝামাঝি বয়সের কয়েকজন তরুণী পেছন থেকে হুট করে সামনে আসে। ওই তরুণীরা তিন বন্ধুর সঙ্গে গায়ে পড়ে কথা বলতে আসেন। কথা শুরুর সঙ্গে সঙ্গেই তরুণীরা তাদের হাতে থাকা মোবাইলগুলো ছিনিয়ে নিয়ে যায়। আলামিন রাজু নামে একজন প্রত্যক্ষদর্শী জানান, মোবাইলগুলো ছিনিয়ে নিয়ে ওই তরুণীরা দ্রæত রাস্তা পার হয়ে মেট্রোরেল তৈরির বেরিগেটযুক্ত এলাকায় ঢুকে পড়ে। এরপর ভুক্তভোগী যুবকরাও তাদের পিছু নেয়। সেখানে গিয়ে এক পর্যায়ে তাদের সঙ্গে ওই তিন যুবকের ধস্তাধস্তি হয়। ধস্তাধস্তির সময়ে তরুণীরা তাদের হাতে থাকা বেøড দিয়ে যুবকদের গায়ে, হাতে ও পিঠে আঘাত করে পালিয়ে যায়।
অপরদিকে ১৮ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৬টার দিকে মিরপুরের প্রশিকা মোড়ে এক তরুণের পথরোধ করে দুই ছিনতাইকারী যুবক। এ সময় টার্গেট তরুণের দুইপাশে অবস্থান নিয়ে কাঁধে তারা হাত রেখে ধীর গতিতে হাঁটতে থাকে। এরই মাঝেই একজন তরুণের কোমড়ে পিস্তল এবং আরেকজন ধারালো চাকু ঠেকিয়ে বন্ধুর মতো গল্প করতে করতে এগোয়। খুব অল্প সময়ের মধ্যেই ওই তরুণের কাছ থেকে মোবাইল ফোন ও টাকা কেড়ে নিয়ে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে তাড়িয়ে দেয়।
ওই তরুণের চাচা দৈনিক আজকের আলোকিত সকাল প্রতিনিধিকে বলেন, প্রশিকার মোড়ে চিহ্নিত কয়েকজন ছিনতাইকারী নিয়মিত ওই কৌশলে দীর্ঘদিন ধরে ছিনতাই করে যাচ্ছে। তারা এমন কৌশল প্রয়োগ করছে যে, সাধারণ পথচারীরা কোনো সন্দেহও করতে পারছেন না। আবার ভুক্তভোগীরা প্রাণের ভয়ে চিৎকার দিতেও সাহস পাচ্ছে না।
জানা গেছে, কেবল উত্তরা, বাংলামোটর কিংবা মিরপুর নয়, রাজধানী ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় ছিনতাইকারী চক্র সক্রিয়। অনেকেই গ্রেফতার হচ্ছে। অল্প কিছুদিন জেলে থেকে জামিনে বেরিয়েই আবারও জড়িয়ে পড়ছে এই ভয়ঙ্কর অপরাধে। নির্দয় ছিনতাইকারীদের হাতে কেবল সর্বস্ব নয়, প্রাণ খোয়াচ্ছেন অনেকে। গত কয়েক বছরে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ বেশ কিছু ছিনতাইকারী ও ডাকাত নিহত হয়েছে। তারপরও এই ঘৃণ্য পেশা ছাড়ছে না অপরাধীরা।
এ প্রসঙ্গে ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের সমাজকল্যাণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের সহকারী অধ্যাপক তৌহিদুল হক দৈনিক আজকের আলোকিত সকাল প্রতিনিধিকে বলেন, পেশাদার এসব অপরাধীদের গ্রেফতার ও আইনের মাধ্যমে শাস্তি নিশ্চিত করার পাশাপাশি কারাগারের ভেতরে ‘মোটিভেশন’ করা প্রয়োজন। তাদের মাঝে মানবিক ও ধর্মীয় মূল্যবোধ সৃষ্টিসহ সামাজিক ও পারিবারিক দায়বদ্ধতার বিষয়গুলো তুলে ধরতে হবে। মানসিকতার পরিবর্তন ঘটানো গেলে জামিনে বেরিয়ে তারা সহসায় আর এ ধরনের ভয়ঙ্কর অপরাধে জড়াবে না বলেও মস্তব্য করেন এই সামাজিক অপরাধ বিশ্লেষক।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত