শিরোনাম :
ঝিনাইগাতী গজনী অবকাশ কেন্দ্র বাসের চাপায় প্রাণ গেলো আইসক্রীম বিক্রেতার বর্ণাঢ্য আয়োজনে বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন গাজীপুর জেলার পিকনিক ২০২৪  অনুষ্ঠিত সবসময়ই কালোকে কালো এবং সাদাকে সাদা বলে দৈনিক  যুগান্তর ভান্ডারিয়ায় স্মার্ট আই ডি  বিতরণ  মোরেলগঞ্জ ভয়াবহ অগ্নিকান্ডে বসতঘর ভস্মিভূত, ১০ লক্ষাধিক টাকার ক্ষতি খুলনায় আতাই নদী থেকে উদ্ধারকৃত মাহফুজকে বৈবাহিক কারণে স্ত্রীর স্বজনদের হাতে জীবন দিতে হয়েছে নওগাঁর মান্দায় নিভৃত পল্লী গ্রাম মশিদপুরে দিনব্যাপী বইমেলা বড়াইগ্রামে বর্ণিল আয়োজনে পিঠা উৎসব ও বসন্ত বরণ বাঘায় সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে মানববন্ধন  সীমান্তে হত্যা ও বিদেশী আগ্রাসন বন্ধের দাবীতে ঠাকুরগাঁওয়ে প্রতীকী লাশের মিছিল
সাইবার অপরাধ ঠেকাতে সিআইডির অধীনে গঠিত হচ্ছে বিশেষ থানা

সাইবার অপরাধ ঠেকাতে সিআইডির অধীনে গঠিত হচ্ছে বিশেষ থানা

দেশে দিন দিন প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ছে। আর প্রযুক্তির ব্যবহার বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে সাইবার অপরাধও বেড়েছে। কিন্তু যারা সাইবার অপরাধের শিকার হচ্ছে তারা সমস্যার সমাধান পাচ্ছে না। বর্তমান পুলিশ বাহিনীতেও প্রযুক্তিতে দক্ষ জনবলের অভাব রয়েছে। একই সাথে লজিস্টিক সাপোর্টও কম। ফলে চাইলেই পুলিশের যে কোনো তদন্ত কর্মকর্তা প্রযুক্তি মামলার তদন্ত করতে পারে না। এ ধরনের প্রযুক্তি মামলার সমাধান করতে সৃষ্টি হচ্ছে সাইবার পুলিশ স্টেশন বা সাইবার থানা। পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডির অধীনে ওই থানার কার্যক্রম পরিচালনা করা হবে। পুলিশ বিভাগ সংশ্লিষ্ট সূত্রে এসব তথ্য জানা যায়।

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, করোনা মহামারী সময়ে দেশে প্রযুক্তির ব্যবহার বেড়েছে বহুগুণ। অধিকাংশ মানুষ বাসায় বসেই প্রযুক্তির মাধ্যমে অফিসের কাজ করেছে। এমনকি সাধারণ মানুষেরও এখন সারা দিন প্রযুক্তির মধ্যে কাটে। পুলিশের ক্রাইম ডাটা ম্যানেজমেন্ট সিস্টেমের (সিডিএমএস) পরিসংখ্যান অনুযায়ী বিগত ২০১৩ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত সাইবার অপরাধের ঘটনায় রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন থানায় ৩ হাজার ৬৫৯টি মামলা হয়েছে। তার মধ্যে ১ হাজার ৫৭৫টি মামলা সাইবার ট্রাইব্যুনালে গেছে। নিষ্পত্তি হয়েছে ৫২২টি মামলা আর ২৫ মামলায় আসামিদের সাজা হয়েছে।

সূত্র জানায়, সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম, গুগল, স্কাইপের ভুয়া আইডি খুলে বিভিন্ন অনলাইন পোর্টাল ও ব্লগে মিথ্যা ও মানহানিকর তথ্য প্রচার, অশ্লীল ছবি ও ভিডিও আপলোড এবং মেসেজ পাঠিয়ে অহরহ প্রতারণার ঘটনা ঘটছে। আর সাইবার অপরাধের শিকার বেশির ভাগই নারী। তারা নিজেকে লুকিয়ে রেখে অপরাধীর হাত থেকে বাঁচতে চায়। কখনো কখনো কেউ কেউ থানায় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করে। আর ভয়াবহ ক্ষতির শিকার হলে তবেই মামলা করে। কিন্তু ওসব অপরাধের সাথে জড়িত মূল অপরাধীদের এখনো সঠিকভাবে আইনের আওতায় আনা যাচ্ছে না। পুলিশ সদর দপ্তরের হিসাবে দেশে সাধারণত ১৩ ধরনের সাইবার অপরাধের ঘটনা ঘটছে। এর মধ্যে রয়েছে পারিবারিক বিদ্বেষ সৃষ্টি, স্বামী-স্ত্রীর ঝগড়া, বন্ধুবান্ধবের মধ্যে বিরোধ তৈরি, উগ্র ও বিদ্বেষপূর্ণ মন্তব্য প্রচার, ইউটিউবে অন্তরঙ্গ ভিডিও ও ছবি আপলোড, ফেক অ্যাকাউন্ট তৈরি, পাসওয়ার্ড বা গোপন নম্বর অনুমান করে আইডি হ্যাক, মোবাইল ব্যাংকিং, ই-কমার্স, ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ড জালিয়াতি, অনলাইন এমএলএম (মাল্টি লেভেল মার্কেটিং), অনলাইনে প্রশ্নপত্র ফাঁস ও অনলাইন গেমলিং (জুয়া)। তার বাইরেও বিভিন্ন ধরনের সাইবার অপরাধ হয়।

সূত্র আরো জানায়, সিআইডির অধীনে পরিচালিত প্রস্তাবিত সাইবার থানার প্রধান হবেন একজন পুলিশ সুপার (এসপি) পদমর্যাদার কর্মকর্তা। তাছাড়া ৩ জন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, ১২ জন সহকারী পুলিশ সুপার, ২৪ জন পুলিশ পরিদর্শক, ৭২ জন উপ-পরিদর্শক, ১৮ জন সহকারী উপ-পরিদর্শক এবং ৪০ জন কনস্টেবল ওই থানায় থাকবে। মূলত প্রযুক্তির জ্ঞানসম্পন্ন পুলিশ কর্মকর্তারাই সেখানে নিয়োগ পাবে। পাশাপাশি প্রযুক্তি বিষয়ে তাদের একাধিক প্রশিক্ষণও দেয়া হবে। ফলে যে ধরনের সাইবার অপরাধই হোক না কেন, তারা সমাধান দিতে পারবে। সাইবার মামলার চার্জশিট সরাসরি সাইবার ট্রাইব্যুনালেই দাখিল করবেন সংশ্লিষ্ট মামলার তদন্ত কর্মকর্তা।

এদিকে সাইবার থানা প্রসঙ্গে সিআইডির প্রধান অতিরিক্ত আইজিপি মাহবুবুর রহমান জানান, বিশ্বের বিভিন্ন দেশে সাইবার পুলিশ স্টেশন আছে। এদেশেও প্রয়োজন। কারণ সাইবার অপরাধ বাড়ছে। প্রাথমিক পর্যায়ে ঢাকায় একটি সাইবার পুলিশ স্টেশন করা হবে। এখানে সারা দেশ থেকে ক্ষতিগ্রস্ত যে কেউ অভিযোগ দিতে পারবে। তাছাড়া জেলা পর্যায়ে সিআইডির কর্মকর্তাদের কাছেও অভিযোগ করতে পারবে। সব মামলার তদন্ত করবে সাইবার থানা। ইতিমধ্যে সাইবার থানার কাঠামোসহ সব ধরনের প্রস্তুতি নেয়া হয়েছে। আশা করা যায় এ বছরই থানার কার্যক্রম চালু করা যাবে। প্রশাসনিক পুনর্বিন্যাস-সংক্রান্ত জাতীয় বাস্তবায়ন কমিটির (নিকার) সভায় এর অনুমোদনও হয়ে গেছে। তাছাড়া থানার কার্যক্রম এখনো শুরু না হলেও ইতিমধ্যে সারা দেশে যেসব সাইবার মামলা হচ্ছে, সেগুলোর কাগজপত্র সংগ্রহ করা হচ্ছে। থানার কার্যক্রম শুরু হলেই মামলাগুলোর তদন্ত করবে সাইবার থানা। আশা করা যায় এর মাধ্যমে ভুক্তভোগীরা দ্রুত সেবা পাবে।

সূত্র: এফএনএস২৪

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published.




কপিরাইট © ২০২১ || দি ডেইলি আজকের আলোকিত সকাল - সর্বসত্ত্ব সংরক্ষিত